সম্রাটের অসুস্থতা নিয়ে দুদকের সন্দেহ | বিশ্ব | DW | 12.05.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

সম্রাটের অসুস্থতা নিয়ে দুদকের সন্দেহ

আলোচিত ক্যাসিনো কেলেঙ্কারির এপর্যন্ত একটি মাত্র মামলার রায় হয়েছে৷ অধিকাংশ মামলাই বিচার পর্যায়ে রয়েছে৷ আর এই মামলার আসামিরা এখন জামিন পেতে শুরু করেছেন৷

যুবলীগের বহিস্কৃত নেতা ইসমাইল হোসেন  সম্রাটের  জামিনে মুক্তির মধ্য দিয়ে আরো অনেকের মধ্যেই এখন জামিনের আশা জাগছে৷ যদিও এর আগে আরো তিনজন জামিন পেয়েছেন৷

সম্রাটকে কয়েকটি শর্তে শারীরিক দিক বিবেচনা করে চারটি মামলায়ই জামিন দেয়ার পর বুধবার তিনি মুক্তি পান৷ তিনি এখনো বিএসএমইউতে চিকিৎসাধীন আছেন৷ বৃহস্পতিবার বিএসএমইউ কর্তৃপক্ষ এই পর্যায়ের একজন যুবলীগের  বহিস্কৃত নেতার স্বাস্থ্য সম্পর্কে নজিরবিহীন সংবাদ সম্মেলন করেছে৷ তবে দুদক তার এই অসুস্থতা নিয়ে সন্দেহ করছে৷ তারা জামিন বাতিলের জন্য আবেদন করবে আদালতে৷

ক্যাসিনো মামলার সর্বশেষ পরিস্থিতি

তদন্তকারীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ঢাকায় ক্যাসিনোর ঘটনায় র‌্যাব, পুলিশ, সিআইডি ও দুদক মিলিয়ে তখন ৫৫টি মামলা করে৷ এরমধ্যে বিভিন্ন সংস্থা ৩৫টি মামলায় আদালতে চার্জশিট দিয়েছে৷ এই সব মামলায় সম্রাট ছাড়া  আরো তিনজন জামিন পান৷ তারা হলেন: ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর ময়নুল হক মনজু, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের ডাইরেক্টর ইনচার্জ  লোকমান হোসেন ভুইঁয়া এবং কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের সভাপতি ও কৃষক লীগ নেতা শফিকুল আলম ফিরোজ৷

তার মধ্যে অস্ত্র, মাদক, মানিলন্ডারিং ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে ৩২ টি মামলা করে র‌্যাব, ডিবি ও সিআইডি৷ আর ১৩টি মামলা করেছে দুদক৷ ২০১৯ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার মতিঝিলে ক্লাবপাড়ায় অভিযানের মধ্য দিয়ে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরু হয়৷

ওই অভিযানে যারা আটক হয়েছিলেন তাদেরমধ্যে  আলোচিতরা হলেন: ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত ( গ্রেপ্তারের পর) সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী  সম্রাট, তার সহযোগী আরমান, যুবলীগের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমান ও তাঁর স্ত্রী সুমি রহমান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, প্রভাবশালী ঠিকাদার যুবলীগ নেতা গোলাম কিবরিয়া  শামীম (জি কে শামীম) কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের সভাপতি ও কৃষক লীগের নেতা শফিকুল আলম ফিরোজ, বিসিবির ডিরেক্টর ইনচার্জ লোকমান হোসেন ভূঁইয়া, অনলাইন ক্যাসিনোর সেলিম প্রধান, দুই সহোদর ও যুবলীগ নেতা এনামুল হক ভূঁইয়া এনু ও রূপন ভূঁইয়া, ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান মিজান, তারেকুজ্জামান রাজীব ও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা ও ওয়ার্ড কাউন্সিল ময়নুল হক মনজু৷

অডিও শুনুন 00:38

চিকিৎসার নামে এই জামিন গ্রহণযোগ্য নয়: খুরশিদ আলম

একই সময়ে ওয়েস্টিন হোটেল কেলেঙ্কারিতে  গ্রেপ্তার হন যুব মহিলা লীগ নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়া ও তার স্বামী সুমন চৌধুরী৷

পাপিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র ও অর্থপাচারের মামলা হয়েছে৷ তবে ওই ঘটনাকে ক্যাসিনো কাণ্ডের বাইরে ধরা হয়৷ অস্ত্র মামলায় পাপিয়া ও তার স্বামীকে ২৭ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত ২০২০ সালের অক্টোবরে৷ 

ক্যাসিনো কেলেঙ্কারির মামলাগুলোর মধ্যে দুই সহোদর এনামুল হক ভূঁইয়া এনু ও রূপন ভূঁইয়ার একটি মামলায় শাস্তি হয়েছে৷ তাদের সাত বছরের কারাদণ্ড এবং চার কোটি টাকা জরিমানার রায় দিয়েছেন আদালত৷

যে মামলাগুলো দায়ের করা হয়েছে তার এজাহার পর্যালোচনা করে দেখা যায় যে কয়েক হাজার কোটি টাকার অর্থ পাচারের অভিযোগ রয়েছে৷ তারা ওই অর্থ ক্যাসিনো, মাদক, টেন্ডারবাজি ও অস্ত্রসহ নানা অবৈধ  কাজের মাধ্য আয় করে বড় একটি অংশ দেশের বাইরে পাচার করেছেন৷ তদন্তকারীরা বলছেন করোনার কারণে তাদের মামলার তদন্তে দেরি হয়েছে৷ বাকি ২০টি মামলার তদন্তও শেষ পর্যায়ে আছে৷ অনেক মামলাই এখন বিচারাধীন৷ তবে বিচার দ্রুত শেষ হওয়া না হওয়া আদালতের বিষয়৷

সম্রাট কাহিনি

জামিনে মুক্তি পাওয়া যুবলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন  সম্রাটের বিরুদ্ধে তদন্তে ১৯৮ কোটি টাকা পাচারের তথ্যপ্রমাণ পাওয়া গেছে৷ তিনি সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ায় এই অর্থ পাচার করেছেন৷ তাকে ক্লাব পাড়ায় অবৈধ ক্যাসিনো ব্যবসা ও টেন্ডারবাজির নিয়ন্ত্রক হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে৷ ক্যাসিনো কেলেঙ্কারি ও টেন্ডারবাজিতে যারা আটক হয়েছেন তারা কোনো না কোনোভাবে সম্রাটের সাথে যুক্ত৷ তদন্তে দেখা গেছে সম্রাট ২০১১ সাল থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে সিঙ্গাপুরেই গিয়েছেন ৩৫ বার৷

তিনি কারাগারে আটক ৩১ মসের মধ্যে অধিকাংশ সময়ই হাসপাতালে থাকার সুযোগ পেয়েছেন৷ আর আদালত তাকে দেশের বাইরে না যাওয়ার শর্তে ওই  স্বাস্থ্যের দিক বিবেচনা করেই জামিন দিয়েছেন৷ বৃহস্পতিবার নজিরবিহীনভাবে তার পক্ষে সংবাদ সম্মেলন করেন বিএসএমইউর পরিচালকসহ চিকিৎসকরা৷ সেখানে বলা হয়, সম্রাটকে দেখতে সুস্থ ও ফিট মনে হলেও তিনি প্রকৃতপক্ষে প্রচণ্ড অসুস্থ৷

এদিকে তার জামিনে মুক্তিতে তার অনুসারীরা আবার সক্রিয় হয়ে উঠেছেন৷ মতিঝিল ক্লাব পাড়ায় ফিরে আসতে শুরু করেছেন তারা৷ এমনকি তারা হাসপাতালেও ভিড় করছেন৷

জামিন বাতিলের আবেদন করবে দুদক

দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম বলেন, ‘‘সম্রাটকে যে মেডিকেল গ্রাউন্ডে আদালত জামিন দিয়েছেন তা নিয়ে আমাদের সন্দেহ আছে৷ আমরা এই জামিন বাতিলের জন্য উচ্চ আদালতে যাব৷ চিকিৎসার জন্য তার জামিনের কোনো প্রয়োজন ছিল না৷ তিনি অসুস্থ হয়ে থাকলে জামিন কেন? বিএসএমএমইউতেই চিকিৎসা হতে পারত৷ তিনি তো সেখানেই ছিলেন৷ চিকিৎসার নামে এই জামিন গ্রহণযোগ্য নয়৷”

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘আমাদের কাছে যে মামলা আছে তার বেশিরভাগেরই চার্জশিট হয়েছে, বাকিগুলোর তদন্ত শেষ পর্যায়ে আছে৷’’

কেন বিচারে জট?

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের প্রধান পাবলিক প্রসিকিউটর  অ্যাডভোকেট আব্দুল্লাহ আবু বলেন, ‘‘করোনার কারণে চার্জশিট দেয়ায় দেরি হয়েছে সেকারণেই বিচারকাজও দেরিতে শুরু হয়েছে৷ তবে যেসব মামলায় চার্জশিট হয়েছে তার অধিকাংশেরই অভিযোগ গঠন করা হয়েছে, ট্রায়ালে আছে৷ আর মামলার বিচার স্বাভাবিক গতিতে অন্যান্য মামলার মতই চলছে৷ এর জন্য আলাদা কোনো ট্রাইবুন্যাল হয়নি৷ এছাড়া সাক্ষীরা ঠিকমত হাজির না হওয়ার কারণেও বিচার দেরি হচ্ছে৷ আমরা চেষ্টা করছি দ্রুত বিচার শেষ করতে৷’’

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘সম্রাটসহ আসামিরা জামিন পাওয়ায় কোনো সমস্যা দেখছি না৷ তারা জামিন পেয়ে পলাতক হলে সমস্যা৷ তখন আদালত আবার গ্রেপ্তারি পরওয়ানা জারি করবে৷ হাজির না হলে অনুপস্থিতিতে বিচার হবে৷’’

তিনি দাবি করেন, এইসব মামলা নিয়ে তার ওপর কোনো চাপ নেই৷ প্রসঙ্গতঃ ক্যাসিনো মামলার আসামিরা প্রায় সবাই আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ নেতা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়