সম্ভাব্য করোনা টিকা নিয়ে উত্তপ্ত অ্যামেরিকার নির্বাচনি প্রচার | বিশ্ব | DW | 08.09.2020

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

সম্ভাব্য করোনা টিকা নিয়ে উত্তপ্ত অ্যামেরিকার নির্বাচনি প্রচার

নির্বাচনের আগেই করোনা টিকা বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা স্থির করে জোরালো সমালোচনার মুখে পড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প৷ তিনি উলটে বিরোধীদের বিরুদ্ধে তোপ দাগছেন৷

অ্যামেরিকায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে, করোনা ভাইরাসের সম্ভাব্য টিকাকে কেন্দ্র করে দুই রাজনৈতিক শিবিরের মধ্যে দ্বন্দ্বও তত বাড়ছে৷ ডনাল্ড ট্রাম্প নির্বাচনের আগেই সেই টিকা মার্কিন জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে বদ্ধপরিকর৷ রাজনৈতিক ফায়দা তুলতেই তিনি এমন এক ‘অবাস্তব’ পরিকল্পনা কার্যকর করার চেষ্টা করছেন বলে বিরোধীরা অভিযোগ করছে৷ ‘অপারেশন ওয়ার্প স্পিড’ নামের এক কর্মসূচির আওতায় তিনি আগামী জানুয়ারি মাসের মধ্যে ৩০ কোটি করোনাভাইরাস টিকা মজুত করার লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেছেন৷ সেই লক্ষ্য পূরণের জন্য ট্রাম্প কোটি কোটি ডলার ব্যয় করে জুয়া খেলছেন বলে সমালোচনা শোনা যাচ্ছে৷

ডেমোক্র্যাট দলের ভাইস প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী কমলা হ্যারিস সোমবার নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে এমন টিকা বিতরণের পরিকল্পনা সম্পর্কে গভীর সংশয় প্রকাশ করে বলেছেন, এ ক্ষেত্রে তিনি ট্রাম্পের বক্তব্যের উপর ভরসা করেন না৷ একমাত্র গণস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও বিজ্ঞানীরা এমন আশ্বাস দিলেই তিনি সেই সম্ভাবনার কথা বিশ্বাস করবেন৷

প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেনও টিকার প্রশ্নে বিজ্ঞানীদের রায়ের প্রতি আস্থা প্রকাশ করেন৷ সত্যি টিকা আবিষ্কার হলে তিনিও যত দ্রুত সম্ভব সেই টিকা অ্যামেরিকার মানুষের কাছে পৌঁছে দেবার পক্ষে সওয়াল করেন৷ এমনকি এর ফলে নির্বাচনে পরাজয় মেনে নিতেও তিনি প্রস্তুত৷

ট্রাম্প অবশ্য এমন অভিযোগ না মেনে উলটে বিরোধীদের বিরুদ্ধে তোপ দাগছেন৷ নিজের বক্তব্য অস্বীকার করে তিনি বলেন, যে তিনি মোটেই নভেম্বেরের মধ্যে টিকা আবিষ্কারের দাবি করেন নি৷ তার আগেই সেই টিকা প্রস্তুত হয়ে যেতে পারে৷ সোমবার হোয়াইট হাউসে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও দাবি করেন, নিরাপদ ও অত্যন্ত কার্যকর এই টিকা মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে৷ বিরোধীদের সংশয়কে তিনি বিপজ্জনক হিসেবে তুলে ধরেন৷ বিশেষ করে কমলা হ্যারিসের মন্তব্যকে ‘বেপরোয়া ও টিকা-বিরোধী বুলি’ হিসেবে বর্ণনা করেন তিনি৷ ট্রাম্প বলেন, মানুষ যাতে সেই সাফল্যকে বড় করে না দেখতে পারে, সে কারণে হ্যারিস টিকার প্রতি অবজ্ঞা প্রকাশ করছেন৷ জো বাইডেন-কে ‘স্টুপিড’ হিসেবে বর্ণনা করে ট্রাম্প বলেন, তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী ভাইরাসের কাছে দেশকে আত্মসমর্পন করাতে চাইছেন৷

ট্রাম্প প্রশাসনের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. অ্যান্টনি ফাউচি গত সপ্তাহে সিএনএন-কে বলেন, অক্টোবর মাসেই করোনার টিকা ছাড়পত্র পেতে পারে বলে তিনি মনে করেন৷ তাঁর মতে, অ্যামেরিকার মানুষের জন্য নিরাপদ ও কার্যকর না হলে এমন টিকা মোটেই ছাড়পত্র পাবে না৷ ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের প্রধান স্টিফেন হান একই আশ্বাস দিয়ে বলেছেন, যে টিকার মূল্যায়নে কোনো ত্রুটি রাখা হবে না৷ তবে গোটা প্রক্রিয়া তরান্বিত করতে উদ্যোগ নেওয়া হবে৷

এসবি/এসিবি (এপি, রয়টার্স)

সংশ্লিষ্ট বিষয়