সম্পূর্ণ ধ্বংসের হাত থেকে বেঁচে গেল নোত্র দাম গির্জা | বিশ্ব | DW | 16.04.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ফ্রান্স

সম্পূর্ণ ধ্বংসের হাত থেকে বেঁচে গেল নোত্র দাম গির্জা

সোমবার বিকেলে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে প্যারিসের নোত্র দাম গির্জার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে৷ আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার পর পুনর্গঠনের নানা উদ্যোগ শুরু হয়েছে৷ কর্তৃপক্ষ ঘটনার তদন্তের ঘোষণা করেছে৷

সোমবারের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড সত্ত্বেও প্যারিসের বিখ্যাত নোত্র দাম ক্যাথিড্রালের মূল কাঠামো অক্ষত রয়েছে৷ তবে কাঠের তৈরি গির্জার ছাদ ও ৯৩ মিটার উঁচু স্পায়ার ধ্বংস হয়ে গেছে৷ ৮ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে প্রায় ৪০০ দমকলকর্মীর অক্লান্ত প্রচেষ্টার ফলে আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে৷ দমকল বিভাগের প্রধান বলেন, এবার গোটা ভবনটিকে ধীরে ধীরে ঠাণ্ডা করাই পরবর্তী কাজ হবে৷

এখনো পর্যন্ত এই অগ্নিকাণ্ডকে দুর্ঘটনা হিসেবেই বিবেচনা করা হচ্ছে৷ সেই অনুমানের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হচ্ছে৷ গির্জার প্রধান রেক্টর মঁসিনিয়র পাট্রিক শোভে বলেন, সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদগুলি রক্ষা করা সম্ভব হয়েছে৷ তার মধ্যে রয়েছে একি কাঁটার মুকুট, যেটি ক্রুশবিদ্ধ হবার আগে যিশুখৃষ্টর মাথায় বসানো হয়েছিল বলে ধর্মপ্রাণ খ্রিষ্টানরা বিশ্বাস করেন৷

এমন ভয়াবহ বিপর্যয় প্যারিস-সহ গোটা বিশ্বের মানুষের মনে রেখাপাত করেছে৷ প্রায় ৮৫০ বছরের ঐতিহাসিক গির্জাটির ক্ষয়ক্ষতি সামলে উঠে পুনর্গঠনের অঙ্গীকার করছেন অনেকে৷ ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ দমকলকর্মীদের অসাধারণ সাহসের প্রশংসা করে নোত্র দাম গির্জা পুনর্গঠনের প্রতিশ্রুতি দেন৷ তিনি বলেন, ‘‘এই ক্যাথিড্রাল আমাদের ইতিহাস, আমাদের সাহিত্য, আমাদের কল্পনার স্বরূপ৷ সেখানে আমাদের মহামারি, যুদ্ধ ও মুক্তি সংগ্রামের মতো বড় মুহূর্তগুলির অভিজ্ঞতা হয়েছে৷'' মাক্রোঁ জানান, জাতীয় স্তরে গির্জার পুনর্গঠনের ব্যয় বহন করতে মঙ্গলবার এক উদ্যোগের ঘোষণা করা হবে৷ তার আওতায় সাধারণ নাগরিকরাও এই কাজের জন্য চাঁদা দিতে পারবেন৷

ফ্রান্সের এক বিলাসবহুল সামগ্রী প্রস্তুতকারী কোম্পানির প্রধান ফ্রঁসোয়া অঁরি পিনো বলেন, তাঁর পারিবারিক বিনিয়োগ কোম্পানি নোত্র দাম গির্জার পুনর্গঠনের জন্য ২০ কোটি ইউরো অঙ্গীকার করছে৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এমন ‘অভূতপূর্ব' অগ্নিকাণ্ডের উল্লেখ করে এক টুইটবার্তায় দমকলকর্মীদের জন্য পরামর্শও দিয়েছেন৷ তাঁর মতে, উড়ন্ত পানির ট্যাংকার কাজে লাগানো উচিত ছিল৷ ফ্রান্সের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা মন্ত্রী লোরঁ নুনিয়েস অবশ্য বলেন, দমকলের বিমান ব্যবহার করলে তা গোটা কাঠামোর জন্য মারাত্মক ঝুঁকি বয়ে আনতো৷

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এই অগ্নিকাণ্ডের পর ফ্রান্সের মানুষের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেন৷ সপরিবারে সেই গির্জা ভ্রমণের একটি ছবিসহ এক টুইট বার্তায় তিনি লেখেন, ইতিহাস হারিয়ে গেলে দুঃখ প্রকাশ করা মানুষের চরিত্রের মধ্যে পড়ে৷ একইসঙ্গে আগামীকালের জন্য পুনর্গঠনও সেই চরিত্রেরই অংশ৷

ইউরোপীয় পরিষদের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টুস্ক প্যারিসের মানুষের কাছে গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন৷ ফরাসি ভাষায় লেখা এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, ‘প্যারিসের নোত্র দাম গোটা ইউরোপের নোত্র দাম৷'

এসবি/এসিবি (ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন