সমুদ্রের মাঝে মঠের মধ্যে আধুনিক মনোরঞ্জন | বিশ্ব | DW | 26.11.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

সমুদ্রের মাঝে মঠের মধ্যে আধুনিক মনোরঞ্জন

সমুদ্রের মাঝে এক টিলার উপর মনাস্ট্রি৷ জোয়ার-ভাঁটার খেলার মাঝে গোটা এলাকার রূপ বদলে যায়৷ এমন অসাধারণ স্থাপনাকে প্রেক্ষাপট হিসেবে ব্যবহার করে চোখ ধাঁধানো শোয়ের আয়োজন করেছেন এক ফরাসি ডিজে৷

মঁ স্যাঁ মিশেল এমন রূপে এর আগে কখনো দেখা যায় নি৷ ফ্রান্সের উত্তর-পশ্চিমের বিখ্যাত মঠ-টিলা ১৯৭৯ সাল থেকে ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্য তালিকায় স্থান পেয়েছে৷

এমন জায়গায় পারফর্ম করা প্যারিসের ডিজে মিকায়েল কানিত্রোর জন্য অসাধারণ এক অভিজ্ঞতা৷ সেই সুযোগের গুরুত্ব তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘‘মঁ স্যাঁ মিশেল এক ঐতিহাসিক ও প্রতীকী স্থান৷ অসাধারণ দৃশ্যের পাশাপাশি আধ্যাত্মিক পরিবেশও রয়েছে৷ এই জায়গা আমাকে অনেক প্রেরণা দেয়৷ শিশু বয়সে বাবা-মার সঙ্গে দর্শনীয় স্থান হিসেবে সবার আগে এখানেই এসেছিলাম৷ এমনকি আমার প্রপিতামহীও সঙ্গে ছিলেন৷''

প্যারিসের এই ডিজে ও তাঁর টিম প্রায় ছয় মাস ধরে প্রস্তুতি চালিয়েছিলেন৷ এমন দুরূহ কাজ সম্পর্কে কানিত্রো বলেন, ‘‘এই জায়গাটি অত্যন্ত জটিল৷ সমুদ্রের মাঝে তৈরি এই কেল্লা অবশ্যই প্রযুক্তিগত ও শৈল্পিক চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করে৷ এমন পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া সত্যি কঠিন৷’’

১৫৭ মিটার উঁচু এই মনাস্ট্রি এক হাজার বছরেরও আগে অ্যাটলান্টিক মহাসাগরের এক টিলার উপর নির্মিত হয়েছিল৷ স্থাপত্য জগতের এক মাস্টারপিস হিসেবে সেটি পরিচিত৷

ভিডিও দেখুন 04:33

ভিন্ন রূপে মঁ স্যাঁ মিশেল

সাংস্কৃতিক কর্মকর্তা হিসেবে ফ্রঁসোয়া স্যাঁ জাম এই মঠের প্রতিটি কোণ চেনেন৷ ১৮৭৪ সালে এই স্থাপনাকে জাতীয় সৌধের মর্যাদা দেওয়া হয়৷ জায়গাটি ঘিরে মানুষের মুগ্ধতা কখনোই কাটে না৷ ফ্রঁসোয়া বলেন, ‘‘আমার মতে, এখানে প্রবেশ করলেই আমরা যেন আবার শিশু হয়ে উঠি বলেই এত আবেগ জেগে ওঠে৷ ছোট ছেলেদের জন্য এটা যেন তাদের কাঙ্খিত খেলনার দুর্গ৷ ছোট মেয়েদের জন্য সিন্ডারেলার রূপকথার দুর্গ৷’’

আইফেল টাওয়ার ও ভার্সাই প্রাসাদের পর মঁ স্যাঁ মিশেল দর্শনীয় স্থান হিসেবে সবচেয়ে বেশি পর্যটক আকর্ষণ করে৷ সেই মধ্যযুগেও শিল্পীদের জন্য জায়গাটির জাদুময় আকর্ষণ ছিল৷ তীর্থস্থান হিসেবেও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল৷ ফ্রঁসোয়া স্যাঁ জাম মনে করিয়ে দেন, ‘‘গোটা ইউরোপ থেকে হাজার হাজার তীর্থযাত্রী সে সময়ে এখানে আসতেন৷ মোট জনসংখ্যার বিচারে সেই সংখ্যা সত্যি বিস্ময়কর৷ আজ গোটা বিশ্ব থেকে বছরে ২৫ থেকে ৩০ লাখ মানুষ আসেন৷ মধ্যযুগের তীর্থযাত্রীদের পদচিহ্ন বরাবর তাঁরা এগিয়ে চলেন৷’’

চোখ ধাঁধানো লাইট শো ইভেন্টের আওতায় ডিজে মিকায়েল কানিত্রো এমনকি মহাকাশ থেকে তোলা পৃথিবীর ছবিও দেখাচ্ছেন৷ বিভিন্ন ঐতিহাসিক শোধের উপর তিনি এমন ছবি নিক্ষেপ করেন৷ এভাবে তিনি বিভিন্ন প্রজন্মের মধ্যে মেলবন্ধন ঘটাতে চান৷ মিকায়েল বলেন, ‘‘আমার মনুমেন্টাল ট্যুরের মাধ্যমে এমন অনন্য ঐতিহাসিক স্থাপনাগুলিকে আমি ভিন্ন স্বাদে তরুণ প্রজন্মের কাছে নিয়ে আসতে চাইছি৷ তারা ইলেকট্রনিক মিউজিক শোনে৷ অন্যদিকে অপেক্ষাকৃত বয়স্ক মানুষ ক্লাবে না গিয়েও আমার সংগীতের স্বাদ পাচ্ছেন৷’’

ইউরোপীয় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য দিবস উপলক্ষ্যে প্যারিসের এই ডিজে মনাস্ট্রি টিলায় পার্টির আবহ সৃষ্টি করেছেন৷ এক রাতের জন্য এই মঠ লাইট শো-র উজ্জ্বল মঞ্চ হয়ে উঠেছে৷ ইলেকট্রো বিটের তালে প্রাচীন প্রাচীর কেঁপে উঠছে৷

ফ্রঁসোয়া স্যাঁ জাম অবশ্য তাঁর প্রিয় মঁ স্যাঁ মিশেলে নীরবতাই পছন্দ করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘প্রতি সন্ধ্যায় এখানে অসাধারণ এক প্রাকৃতিক ঘটনা ঘটে৷ সেটা হলো সূর্যাস্ত৷ সূর্যাস্তের এমন অভিজ্ঞতা অন্য কোথাও সম্ভব নয়৷''

পরিবর্তনশীল বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে মঁ স্যাঁ মিশেল অতীতের মতো বর্তমানেও মানুষকে মন্ত্রমুগ্ধ করে চলেছে৷

কাটিয়া লিয়র্শ/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়