সমুদ্রের নীচে হারানো রোমান বসতির আকর্ষণ | অন্বেষণ | DW | 14.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

সমুদ্রের নীচে হারানো রোমান বসতির আকর্ষণ

ইটালির এক ছোট দ্বীপের জেলেদের তরুণ প্রজন্ম নিজস্ব উদ্যোগে অসাধ্য সাধন করছে৷ বাপ-দাদার পেশার বদলে তারা ডুবুরি ও প্রত্নতাত্ত্বিক হিসেবে হারিয়ে যাওয়া রোমান বসতির ধ্বংসাবশেষ পুনরুদ্ধারের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে৷

Norwegen | Unterwasserrestaurant eröffnet (picture-alliance/dpa/AP Photo/NTB Scanpix/AP/T. E. Schroder)

প্রতীকী ছবি

জুলিয়ো লাউরো বলেন, মাছ ধরে আর বেশি দিন সংসার চলবে না৷ তাই ইস্কিয়ার মৎসজীবীরা নতুন পথ বেছে নিয়েছেন৷ ছুটির মরসুমে তাঁরা পর্যটকদের চারিদিক ঘুরিয়ে দেখান৷ এর মধ্যে একটি নৌকো চোখে পড়ার মতো৷ জেলেরা নিজস্ব উদ্যোগে নীচে কাচের মেঝে লাগিয়েছেন৷ তাতে চেপে পর্যটকরা আয়েনারিয়া গিয়ে ইস্কিয়ায় পানির নীচে রোমান সাম্রাজ্যের ধ্বংসাবশেষ দেখতে পারেন৷ জুলিয়ো-র ছেলে গেতানো-র মতো তরুণরা ইস্কিয়ায় সাংস্কৃতিক পর্যটনের সুযোগ সৃষ্টি করতে চান৷ তাঁর মতে, তরুণ প্রজন্মের মনে তাদের বাবা-মায়েদের তুলনায় সমুদ্রকে ভিন্ন ভাবে কাজে লাগানোর আইডিয়া এসেছিল৷

জুলিয়ো লাউরো নিজে মনে করেন, ‘‘ভিটেমাটির প্রতি ভালবাসা থেকেই এই সব শুরু হয়েছে৷ আমরা আমাদের জন্মভূমিকে তার প্রাপ্য মর্যাদা দিতে চাই৷ আমরা মৌসুমের বাইরেও কর্মসংস্থান বাড়াতে চাই৷ একাধিক আইডিয়া ও উদ্যোগের সমন্বয় এই প্রকল্পের বৈশিষ্ট্য৷''

এভাবে জেলেরাও প্রত্নতত্ত্ববিদ হয়ে উঠেছেন৷ তাঁরা সর্বশক্তি প্রয়োগ করে নিজেদের উদ্যোগে ডুবুরির পোশাক ও সরঞ্জাম কিনেছেন এবং প্রয়োজনীয় সরকারি অনুমতি জোগাড় করেছেন৷ সেইসঙ্গে তাঁরা পানির নীচের এক প্রত্নতাত্ত্বিক বিশেষজ্ঞকে এনেছেন, যিনি আজও খননের কাজে নেতৃত্ব দিচ্ছেন৷

পানির নীচে প্রত্নতত্ত্বের কাজ বেশ কঠিন৷ ধীরে ধীরে সূক্ষ্ম কাজের ফলে যে অংশ উদ্ধার করা হয়েছে, পানির স্রোত ও ঢেউ মুহূর্তের মধ্যে তা আবার ঢেকে দিতে পারে৷ কিন্তু জেলেরা হাল ছাড়েননি৷ এমনকি তাঁরা রোমান আমলের এক বন্দর আবিষ্কার করে চমক সৃষ্টি করেছেন৷ একটি ভিলার ধ্বংসাবশেষও তাঁরা আবিষ্কার করেছেন৷ রোমানরা যে সত্যি ইস্কিয়ায় বসতি স্থাপন করেছিল, এতকাল কেউ তা বিশ্বাস করে নি৷ কারণ রোমান আমলে এই দ্বীপে নিয়মিত ভূমিকম্প হতো৷

ভিডিও দেখুন 04:11

সাগরতলের বসতির আকর্ষণ

হাতে সময় পেলেই জেলেরা অনুসন্ধানের কাজে বেড়িয়ে পড়েন৷ তরুণ জেলেদের মধ্যে অনেকেই বেশ অভিজ্ঞ প্রত্নতাত্ত্বিক ডুবুরি হয়ে উঠেছেন৷ তবে নিয়মিত এই কাজ সত্ত্বেও তাঁদের কাছে এই উদ্যোগের আলাদা গুরুত্ব রয়েছে৷ জোভি বুয়োনো ডুবুরিদের একজন৷ তিনি নিজের অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়ে বলেন, ‘‘আমি পানিতে কাজ করি৷ প্রত্যেকবার ডুব মারার সময় অনবদ্য অভিজ্ঞতা হয়৷ কারণ প্রত্যেক বার নতুন কিছু আবিষ্কারের সম্ভাবনা থাকে৷ এই সব আবিষ্কার অতীতকে বুঝতে সাহায্য করে৷ প্রতিদিনই নতুন কিছুর দেখা মেলে৷''

ইস্কিয়ার মানুষ বর্তমানে কার্যত শুধু পর্যটনের উপর নির্ভরশীল৷ প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ পর্যটক এই দ্বীপে আসেন৷ তাঁরা উষ্ণ প্রস্রবণে স্নান করেন, বিখ্যাত আরাগোনেসে দুর্গ ঘুরে দেখেন৷ কখনো বিশাল আকারের বিলাসবহুল নৌকাও নোঙর ফেলে৷

দ্বীপের মেয়র এনসো ফেরান্দিনো পর্যটনের নতুন এই শাখাকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত বটে, কিন্তু জেলেদের জন্য কোনো আর্থিক সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিতে তিনি দ্বিধা করেন৷ এর কারণ ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, ‘‘সব জেলায় অর্থাভাব রয়েছে৷ যা পাওয়া যায়, তা দিয়ে কোনোমতে সবকিছু চালাতে হয়৷ তবে এটা ভালো উদ্যোগ, এ নিয়ে আমাদের ভাবনাচিন্তা করা উচিত৷''

প্রত্নতত্ত্ববিদ হিসেবে আলেসান্দ্রা বেনিনি জেলেদের উদ্যোগ সম্পর্কে অভিভূত৷ তিনি বলেন, ‘‘জেলেরা এই গবেষণার প্রতি আস্থা রেখেছিলেন৷ এখানকার পরিস্থিতি সত্যি অসাধারণ৷ কারণ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সব রকম অনুমতি থাকা সত্ত্বেও বেসরকারি উদ্যোগেই এখানকার সব ব্যয় বহন করা হচ্ছে৷''

রাষ্ট্রীয় সহায়তা ছাড়াই জেলেরা কাজ চালিয়ে যেতে চান৷ জুলিও-র মতে, এর একটা সুবিধাও রয়েছে৷ কেউ কাজে নাক গলাতে আসে না৷

ভাইট-উলরিশ ব্রাউন/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন