সমুদ্রের তেল অপসারণের প্রশিক্ষণ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 07.09.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সমাজ সংস্কৃতি

সমুদ্রের তেল অপসারণের প্রশিক্ষণ

‘এক্সোন ভালডেজ’, ‘প্রেসটিগা’ এই নামগুলো মনে হলেই সমুদ্রে তেলবাহী জাহাজ দুর্ঘটনার কথা মনে পড়ে৷ বছর দুই আগে মেক্সিকো উপসাগরেও বিপি’র তেলের রিগ দুর্ঘটনার কথাও ভুলে যাওয়ার কথা নয়৷

এই ধরণের দুর্ঘটনার ফলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় সমুদ্রের জীব বৈচিত্র্য৷ এছাড়া সমুদ্রের পানিতে ভাসতে ভাসতে সেই তেল চলে আসে উপকূল এলাকাতে৷ সমুদ্র থেকে দ্রুত তেল সরিয়ে নিতে স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলো বিশেষ প্রশিক্ষণ চালু করেছে৷ জার্মানির পাশেই বাল্টিক সাগরে চলে এই প্রশিক্ষণ৷

হেলসিঙ্কির পাশের বাল্টিক সাগর এলাকা৷ সেখানে ভাসছে একটি জাহাজ৷ তবে জাহাজটি দেখতে কিন্তু কিম্ভূতকিমাকার৷ কারণ জাহাজের দুই পাশে দুটি বিশাল আকারের যান্ত্রিক শুঁড় বের হয়ে আছে৷ জার্মানির তৈরি এই জাহাজটির নাম আর্কোনা৷ সেটি তার বিশাল শুঁড় দিয়ে পানিতে ভেসে থাকা তেল পরিষ্কার করছে, জানালেন ফিনল্যান্ড কোস্টগার্ডের বিশেষজ্ঞ টম লুনডেল৷ ‘‘এটির কাজ হলো পানি থেকে তেল তোলা, এজন্য সেটি জাহাজের দুইপাশের হাত ব্যবহার করছে৷ এভাবে তেল ভেসে জাহাজের কাছে চলে আসার পর পানি থেকে তেল তুলে ফেলছে৷''

This handout photo taken on November 19, 2011 shows the aerial view of a major oil spill since Nov. 8 in Campos offshore, near Rio de Janeiros coast, Brazil. Government figures reckon the spill could reach between five and eight thousand barrels a day, the worst environmental disaster of this kind in Brazilian coast. George Buck, chairman of Chevron Corp. to Brazil, which operates the oil exploration, said the company takes all the responsability for the leak.The SEDOC 706 platform, where the leak came out from, was produced by the same company that operated for BP, involved in a major oil spill in the Gulf of Mexico in 2010. Photo: ROGERIO SANTANA/RIO DE JANEIRO GOVERNMENT/HANDOUT/AE

দুই বছর আগে মেক্সিকো উপসাগরে তেলের রিগে দুর্ঘটনার পর এভাবে সমুদ্রে তেল ছড়িয়ে পড়ে

আর্কোনার মত ৫০টি জাহাজ এখন তেল তোলার প্রশিক্ষণ নিচ্ছে৷ কয়েকদিন আগেই হেলসিঙ্কি আর টালিন এর মাঝখানের সমুদ্র এলাকায় একটি তেলের ট্যাংকারের সঙ্গে আরেকটি জাহাজের সংঘর্ষ হয়৷ ফলে প্রায় ১৫ হাজার টন তেল ছড়িয়ে পড়ে সমুদ্রে৷ মাইলের পর মাইল পানিতে শুধু তেল ভাসতে থাকে৷ সেই তেল ভাসতে ভাসতে ফিনল্যান্ডের উপকূল এলাকা পর্যন্ত চলে আসে৷ সমুদ্রে তেল দুর্ঘটনার ব্যাপারে সুইডেনের কোস্টগার্ড এর কর্মকর্তা বের্ন্ট স্টেড্ট বলেন, ‘‘এটা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ, কারণ এটা বাল্টিক সাগরের সরু একটি চ্যানেলের পানিকে দূষিত করছে৷ আর এই এলাকায় এরকম সরু আরও অনেক পানিপথ রয়েছে৷ বর্তমানে তেলবাহী ট্যাংকারের সংখ্যাও বেড়েছে এবং এগুলো আকারেও অনেক বড়৷''

এই কারণে আগে তেলবাহী ট্যাংকার দুর্ঘটনায় পড়লেও সেগুলো ছিলো ছোটখাটো দুর্ঘটনা৷ তবে যত সময় গিয়েছে ততই বড় বড় ট্যাংকার দুর্ঘটনায় পড়েছে এবং সামুদ্রিক পরিবেশ বিপন্ন হওয়ার ঝুঁকি বেড়েছে৷ প্রশিক্ষণ চলাকালে উদ্ধারকারী জাহাজগুলো সমুদ্রে তেল ছড়িয়ে সেটা তুলে আনার চেষ্টা করে৷ তবে খুব বেশি তেল যেন সমুদ্রে না ছড়ানো হয় সেটির দিকেও লক্ষ্য রাখা হয়৷ একটি নির্দিষ্ট এলাকায় কিছু তেল ছড়িয়ে দেওয়া হয় তারপর সেটি পরিষ্কার করে আর্কোনার মত জাহাজ৷ সমুদ্রে ঢেউ এবং বাতাসের গতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে ভাসতে থাকে জাহাজটি৷ এরপর পানিতে ভাসতে থাকা তেলগুলোকে একটি নির্দিষ্ট জায়গায় ঠেলে দিয়ে সেখান থেকে অপসারণ করা হয় জাহাজের যান্ত্রিক শুঁড়ের মাধ্যমে৷

Hubschraubereinsatz beim Ölkatastrophentraining *** Von Finnish Environment Institute auf eigener Picasa-Webseite bereitgestellt: http://www.environment.fi/default.asp?contentid=418034&lan=EN https://picasaweb.google.com/103326386790730382753/BalexDelta2012?authkey=Gv1sRgCPWU3fetruCYmQE&feat=email# Rechteeinräumung: Für Medien zur Berichterstattung über Balex Delta 2012 zur Verfügung gestellt Copyrightangabe: Finnish Border Guard Thematische oder zeitliche Nutzungsbeschränkungen: keine

প্রশিক্ষণের সময় ব্যবহার করা হয় হেলিকপ্টারও

তাদের এই কাজে সহায়তা করছে হেলসিঙ্কি বিশ্ববিদ্যালয়ের মৎস গবেষণা বিভাগ৷ তাদের একটি দল একটি সফটওয়্যার তৈরি করেছে যার মাধ্যমে বোঝা যায় যে, সমুদ্রে ভেসে থাকা তেল আগামী কয়েকদিনের মধ্যে কোনদিকে যাবে৷ হেলসিঙ্কি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সাকারি কুইকা বললেন, ‘‘যদি সমুদ্রে তেল ছড়িয়ে পড়ে তাহলে আমরা আবহাওয়ার গতি প্রকৃতি বিশ্লেষণ করে আগে থেকেই বলে দিতে পারি যে তেলটি ভাসতে ভাসতে কোথায় চলে যাবে৷ ফলে আমরা বুঝতে পারি কোন এলাকার বসতি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে৷ যেমন যদি আমরা দেখি যে ভাসমান তেল ওই এলাকার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তাহলে আমরা আগে থেকেই সেখান থেকে তেল তোলার প্রক্রিয়া শুরু করতে পারি৷''

এতগুলো জাহাজের একসঙ্গে মহড়া চালানোটাও কম ঝক্কির কাজ নয়৷ তাই একটি জাহাজে স্থাপন করা হয়েছে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ৷ সেখান থেকেই সবগুলো জাহাজের কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ করা হয়৷ এই প্রশিক্ষণে অংশ নিয়েছে ৩০ টি জাহাজ, দুটি হেলিকপ্টার৷ এছাড়া প্রায় ডজনখানেক প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা অংশ নেয় এই প্রশিক্ষণে৷ তবে শেষ পর্যন্ত ঠিকঠাকমতই চলেছে এই প্রশিক্ষণ, কারণ আবহাওয়াও ওই সময় ভালো ছিলো৷ আবহাওয়া ভালো না থাকলে এই ধরণের তেল অপসারণের কাজ চালানোটা কঠিন হয়ে পড়ে৷ বিরূপ আবহাওয়ার সময় এই ধরণের কাজ বন্ধও রাখতে হয়৷ তখন অপেক্ষা করা ছাড়া আর কোন উপায় থাকে না৷

প্রতিবেদন: ফ্রাঙ্ক গ্রোটেল্যুশেন / আরআই

সম্পাদনা: জাহিদুল হক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন