সমাবেশে ব্যাপক সংক্রমণে জার্মানির দুশ্চিন্তা | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 25.05.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইউরোপ

সমাবেশে ব্যাপক সংক্রমণে জার্মানির দুশ্চিন্তা

সোমবার থেকে ইউরোপের অনেক দেশে লকডাউন আরও শিথিল করা হচ্ছে৷ কিন্তু প্রকাশ্যে বেশি মানুষের সমাগম যে এখনো বিপদের কারণ হতে পারে, একাধিক ঘটনা তা স্পষ্ট করে দিচ্ছে৷

করোনা সংকট সত্ত্বেও জার্মানি শুরু থেকে পুরোপুরি লকডাউনের পথে যায় নি৷ দোকানপাট ইত্যাদি বন্ধ রাখার পাশাপাশি কিছু বিধিনিয়ম চালু করে প্রকাশ্যে মানুষের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে যথেষ্ট সাফল্য পেয়েছে সে দেশ৷ গত কয়েক সপ্তাহ ধরে একের পর এক নিয়ম শিথিল হবার ফলে জার্মানিতে বিচ্ছিন্নভাবে হলেও জমায়েতের কারণে সংক্রমণ বাড়ার ঘটনা বাড়ছে৷ ফলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দুশ্চিন্তা বাড়ছে৷ যেমন লোয়ার স্যাক্সনি রাজ্যে একটি রেস্তোরাঁর মালিক ও প্রায় ১৩ জন অতিথি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন৷ ফলে সব মিলিয়ে ১১৪ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে৷ ১৫ই মে রেস্তোরাঁ আবার খোলার আনন্দে মালিক একটি উৎসবের আয়োজন করেন৷ সম্ভবত সেই সন্ধ্যায় সেখানে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে৷  ৯ই মে থেকে জার্মানির সব রাজ্যেই কড়া নিয়মের বেড়াজলে রেস্তোরাঁ খোলা হয়েছে৷

এদিকে ফ্রাংকফুর্ট শহরে একটি গির্জায় গত ১০ই মে এক প্রার্থনাসভার পর এখনো পর্যন্ত ১০৭ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন৷ ফলে কর্তৃপক্ষ বাকি ব্যক্তিদের খোঁজ করছে, যাঁরা গির্জা খোলার পর সেখানে গিয়েছিলেন৷ হেসে রাজ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তে গত ১লা মে থেকেই গির্জা খুলে গেছে৷ রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী কাই ক্লোসে বলেন, এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে স্পষ্ট হয়ে যাচ্ছে যে সবাইকে এখনো সতর্ক থাকতে হবে, অসাবধান হলে চলবে না৷ তিনি মনে করিয়ে দেন, যে করোনা ভাইরাস এখনো মোটেই উধাও হয়ে যায় নি৷

এমন বিচ্ছিন্ন ঘটনা সত্ত্বেও ইউরোপজুড়ে একের পর এক নিয়ম শিথিল করা হচ্ছে৷ বিশেষ করে শর্তসাপেক্ষে কিছু মানুষের জন্য সীমান্ত আবার খুলছে অনেক দেশ৷ যেমন অন্যান্য নর্ডিক দেশ ও জার্মানিতে স্থায়ীভাবে বসবাস করে, এমন মানুষকে নির্দিষ্ট কিছু কারণে প্রবেশের অধিকার দিচ্ছে ডেনমার্ক৷ গ্রিসও চলতি মাসের শেষ থেকে কিছু দেশের মানুষকে প্রবেশের অনুমতি দেবে৷ ইটালি ৩রা জুন থেকে বিদেশিদের প্রবেশের অনুমতি দিতে চলেছে৷ স্পেন অবশ্য এখনো সতর্কতামূলক ব্যবস্থা বজায় রাখছে৷ তবে মাদ্রিদ ও বার্সেলোনা শহরে সোমবার থেকে কিছু নিয়ম শিথিল করা হচ্ছে৷

প্রকাশ্যে আরও মানুশের সমাবেশে ছাড়পত্র দিচ্ছে ইউরোপের কিছু দেশ৷ যেমন চলতি মাসের শেষে অস্ট্রিয়ায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে৷ কমপক্ষে এক মিটার দূরত্ব বজায় রাখলে একশো দর্শক এমন অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারবেন৷ আইসল্যান্ড সোমবার থেকেই একশো মানুষের সমাবেশের অনুমতি দিচ্ছে৷ জার্মানিতেও চলতি মাসের শেষ পর্যন্ত অনেক হোটেলের দরজা আবার খুলে যাবে৷

এসবি/কেএম (ডিপিএ, রয়টার্স)

বিজ্ঞাপন