সবার জন্য শিক্ষার পথে অনেক বাধা | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 19.02.2009
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সমাজ সংস্কৃতি

সবার জন্য শিক্ষার পথে অনেক বাধা

বাংলাদেশে এখন প্রায় আড়াই কোটি ছেলেমেয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছে৷ তাদের জন্য রয়েছে ৮০ হাজারের বেশী প্রাইমারি স্কুল৷ তবে দেশের প্রায় ২ হাজার গ্রামে এখনও কোন স্কুল নেই৷

২০১৫ সালের মধ্যে সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিত করতে হলে প্রাথমিক শিক্ষার ভিতকে শক্তিশালী করতে হবে৷

২০১৫ সালের মধ্যে সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিত করতে হলে প্রাথমিক শিক্ষার ভিতকে শক্তিশালী করতে হবে৷

অন্যদিকে, প্রাইমারি স্কুলে ভর্তির হার এখন শতভাগ হলেও ৪৬ ভাগ ছেলেমেয়েই প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করার আগেই পড়াশোনা ছেড়ে দেয়৷ সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী এর জন্য প্রধানত দারিদ্র্যকেই দায়ী করেছেন৷ যোগ্য শিক্ষকের অভাব, শিক্ষা উপকরণ ও স্কুলঘর না থাকাকেও দায়ী করেন তিনি৷ তিনি জানান, চরাঞ্চল ও পাহাড়ি অঞ্চলে প্রাথমিক শিক্ষার অবস্থা খুবই হতাশা ব্যাঞ্জক৷

Indien: Kinderarbeit

বাবা-মারা মনে করেন, স্কুলে না পাঠিয়ে কাজে পাঠালে ছেলেমেয়েরা আয় করতে পারবে৷

ঢাকার অদূরে সাভারে একটি প্রাইমারি স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে রাশেদা কে চৌধুরীর কথার সত্যতা পাওয়া যায়৷ স্কুল শিক্ষিকা হালিমা বেগম জানান, অনেকে ভর্তি হলেও দারিদ্র্যের কারণে শেষ পর্যন্ত টিকে থাকতে পারে না৷ বিনামূল্যে বই ও শিক্ষা উপকরণ এবং মেয়েদের জন্য উপবৃত্তির ব্যবস্থা থাকলেও দারিদ্র্য কেন বাধা হচ্ছে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, বাবা-মারা মনে করেন, স্কুলে না পাঠিয়ে কাজে পাঠালে তারা আয় করতে পারবে৷

২০১৫ সালের মধ্যে সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিত করতে হলে প্রাথমিক শিক্ষার ভিতকে শক্তিশালী করতে হবে৷ আর এজন্য প্রাথমিক শিক্ষার প্রতি আরও নজর দেয়া প্রয়োজন৷ অর্থনীতিবিদ ড. আতিউর রহমান বলেন, শিক্ষার হার ৬৫ ভাগ বলে দাবি করা হয়৷ কিন্তু সহস্রাব্দের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে এই গাণিতিক হিসাব যথেষ্ট নয়৷ শিক্ষার গুণগত মান নিশ্চিত করতে হবে৷ তিনি বলেন, গুণগত মানের দিক থেকে প্রাথমিক ও উচ্চ শিক্ষা অনেক পিছিয়ে আছে৷ বাংলাদেশে ২২ হাজারের বেশী উচ্চ বিদ্যালয়, সাড়ে ৩ হাজার কলেজ ও ৫৬টি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে৷

Indien Welttag gegen Kinderarbeit

শিক্ষা ব্যবস্থার দুর্বলতাগুলো দূর করতে পারলে হয়তো সহস্রাব্দের লক্ষ্যমাত্রা সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে৷

এছাড়াও রয়েছে সরকারী ও বেসরকারী মাদ্রাসা৷ যার সংখ্যা ১১ হাজার৷ এর বাইরে রয়েছে অনিবন্ধিত কওমী মাদ্রাসা৷ এই প্রেক্ষাপট বিশ্লেষণ করে অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদ বলেন, ১১ ধরণের শিক্ষা ব্যবস্থা জিইয়ে রেখে সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়৷ এখানে শিক্ষা ব্যবস্থায় শহর-গ্রামের যেমন পার্থক্য রয়েছে৷ তেমনি পার্থক্য রয়ে ধনী আর গরীবের মধ্যে৷ আর বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যমের পার্থক্য তো রয়েছেই৷ তার মতে, সবার জন্য শিক্ষা বলতে আমরা কি বুঝি তা আগে নির্ধারণ করা উচিত৷

তবে রাশেদা কে চৌধুরী মনে করেন, হতাশার মধ্যেও আশার আলো আছে৷ কারণ বাংলাদেশে শিক্ষার চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে৷ শিক্ষা ব্যবস্থার দুর্বলতাগুলো দূর করতে পারলে হয়তো সহস্রাব্দের লক্ষ্যমাত্রা সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন