সবাই শোনো: শরীর আমার, পছন্দ আমার | বিশ্ব | DW | 13.05.2021

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

সবাই শোনো: শরীর আমার, পছন্দ আমার

সমাজের অগ্রগতি বা পিছিয়ে পড়ার বহিঃপ্রকাশ হিসেবে নারীর পোশাককে উপস্থাপনের প্রবণতা নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে ইউরোপে৷ ফ্রান্সে পোশাক নিয়ে একটি আইনের সংশোধনী প্রস্তাব এই বিতর্ককে উস্কে দিয়েছে৷ এ নিয়ে লিখেছেন ওয়াফা আলবাদ্রি৷

নারীর একখণ্ড পোশাক দিয়ে সমাজের অগ্রগগতি বা পিছিয়ে পড়ার হিসেব করাটা একটি উদ্ভট ব্যাপার৷ কোন রাষ্ট্র যখন নৈতিকতাকে সংরক্ষণ ও উজ্জীবিত করতে চায় বা আত্মতুষ্টিতে ভুগতে চায় প্রথমেই সে নারীর পোশাকের দিকে নজর দেয়৷

আর পুরো এই ব্যাপারটি সংস্কৃতি চালিত৷ যদি সেটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ হয় তাহলে সমাজ বা কখনও আইন দিয়ে নারীদের হিজাব পরতে চাপ প্রয়োগ করা হয়৷ ইউরোপীয় দেশ হলে মুসলিম সংখ্যালঘু নারীদেরকে হিজাব খুলতে বাধ্য করা হয়৷ কী পরবে আর কী পরবে না সেটি নিয়ে সব সময়ই নারীদের চাপে থাকতে হয়৷

বিশ্বের নেতা ও নাগরিকরা নারীর পোশাক আর জীবন আচরণকে অন্যের সঙ্গে তুলনা করতে থাকেন, সেখানে নারীর নিজস্ব পছন্দের বিষয়টি উপেক্ষিত থাকে৷ অসাম্প্রদায়িকতা বা ধর্মীয় আনুগত্য যা দিয়েই চালিত হোক না কেন তারা নারীদেরকে তাদের মতো করে রূপ দিতে চান৷

ফ্রান্সে নতুন একটি আইন পাস হয়েছে৷ এই আইন অনুযায়ী, কিছু জায়গায় কিপা, ক্রস, হেডস্কার্ফ, মাথা ঢাকার কাপড় এবং অন্যান্য ধর্মীয় প্রতীক বা পোশাক পরা যাবে না৷ 

তবে আইনের প্রস্তাবিত একটি সংশোধনী নতুন করে বিরোধিতার মুখে পড়েছে৷ সংশোধনী অনুযায়ী, পাবলিক প্লেস বা উন্মুক্ত স্থানে নারী বা মেয়েরা হিজাব পরতে পারবে না৷ এ নিয়ে #HandsOffMyHijab (#PasToucheAMonHijab) এমন হ্যাশট্যাগে অনলাইনে প্রতিবাদ গোটা ইউরোপের মুসলিমদেরই দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে৷ প্রস্তাবটি নিয়ে ক্ষুব্ধ হওয়াটা যুক্তিযুক্ত৷ এটিকে শুধু ধর্মীয় দৃষ্টিতে নয় নারীদের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখার চেষ্টা করেছি আমি৷

ভিডিও দেখুন 05:02

প্রথমবার যৌনমিলনে কি রক্তপাত হয়?

হিজাব নিষিদ্ধ করা নতুন কোন বিষয় নয়, ইউরোপে বছরের পর বছর ধরে এই আলোচনা চলছে৷ কিন্তু হিজাব ইস্যুটিকে নারীর অধিকারের সামগ্রিক প্রেক্ষিত থেকে আলাদা করে দেখা যাবে না৷ নারী যা ইচ্ছা পরবে সেই অধিকারে হস্তক্ষেপ করা নারীর শরীরের উপর তার নিজের যে অধিকারের তার প্রতি ভয়ানক অসম্মান প্রদর্শনের সামিল৷

নারী কী পরবে না পরবে সেটি নিয়ন্ত্রণ করার মধ্য দিয়ে পুরুষতান্ত্রিকতাকেই উস্কে দেয়া হয়৷ সেই সমাজে পুরুষতানন্ত্রিকতার অস্তিত্ব আছে কিনা এখানে তা বিবেচ্য নয়৷

একজন স্বাধীনচেতা নারী হিসেবে আরব কোন দেশের সৈকতে বিকিনি পরার বিষয়টিকে আমি স্বাভাবিক হিসেবে দেখার স্বপ্ন দেখি৷ আবার যেকেউ এমনকি ইউরোপের মানুষও নারীদের পোশাকের বিষয়ে কোন পছন্দ নির্ধারণ করে দিবে না যতক্ষণ না কারো নিরাপত্তার ক্ষতি হয়৷

সবার জন্য এক সমাধান নয়

পৃথিবীতে কোন সমস্যার একক সমাধান নেই৷ আমরা হয়ত যুক্তি দাঁড় করাতে পারি যে মুখ ঢেকে রাখা যোগাযোগ ও নিরাপত্তার জন্য বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে৷ কিন্তু হেডস্কার্ফের ক্ষেত্রে এই কথাটি ঠিক নয়৷ আবার নিকাব কিন্তু হিজাব নয়৷

ফ্রান্সের প্রস্তাবিত সংশোধনীতে ১৮ বছরের কম বয়সি মেয়েদের জন্য হেডস্কার্ফ নিষিদ্ধের কথা বলা হয়েছে, এর একটি সাধারণ ভিত্তি রয়েছে বলে আমি মনে করি৷ শিশু বা অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েদের জন্য হেডস্কার্ফ পরাটা আমি সঠিক বলে মনে করি না৷ এখানে সমাজ বা পারিবারিক চাপে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ ঠিক হবে না৷ শিশুদের কোন নির্দিষ্ট পথের দিকে ঠেলে দেয়া উচিত না৷ পরিবারের নিজেদের বিশ্বাস শিশুদের জীবনে চাপিয়ে দেয়া উচিত না৷ কিন্তু এক্ষেত্রে প্রশ্ন হল আইন দিয়ে সেটি নিশ্চিত করা কি ভালো কোন উপায়? যেসব শিশু অন্য ধর্মীয় প্রতীক বহন করে তাদের ক্ষেত্রেও একই আচরণ করা হবে?

Deutschland Berlin | DW Journalistin | Wafaa Albadry

ওয়াফা আলবাদ্রি, ডয়চে ভেলে

আরো কিছু ন্যয়সঙ্গত যুক্তি রয়েছে৷ কিন্তু প্রাপ্তবয়স্ক নারীদের ক্ষেত্রে এই বিষয়টি আলাদা৷ তারা কী চায় সেই বিষয়ে তথ্যের সব ধরনের সুযোগ তাদের রয়েছে বলে আমি দাবি করতে পারি৷ যদি কোন নারী বিকিনি পরার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন তিনি তার পছন্দের জন্য লজ্জার শিকার হতে পারেন না৷ একই কথা প্রযোজ্য যিনি মাথা ঢাকতে চাইবেনা তার জন্যেও৷ গণতন্ত্র এবং নারীর অধিকারকে রক্ষা করতে চায় এমন প্রগতিশীল দেশের ক্ষেত্রে বিষয়টি এমনই হওয়ার কথা৷

মানুষকে তার কাজের জন্য দায়ী হবেন, তাদের পোশাক বা পছন্দের জন্য নয়৷ একজন নারীর শরীর, সেটি ঢেকে রাখা বা না রাখার বিষয়টি সমাজের অগ্রগতি প্রদর্শনের হাতিয়ার হতে পারে না৷ বরং নারীর স্বাধীনতা এবং শরীরের উপর তার অধিকার ও পছন্দকে রক্ষা করাই একটি দেশের অগ্রগতির যথাযথ মানদণ্ড৷

ব্যক্তিগতভাবে আমি হিজাব পরি না এবং পরতে চাই না৷ আমার ২০ বছরের শুরুর দিকটায় এ বিষয়ে আমার অভিজ্ঞতা এখনো তাড়া করে৷ চারপাশে যখন সবাই আমার পছন্দ নিয়ে তাদের মতামত দেয়াটাকে অধিকার মনে করে সেটা খুবই অপমানজনক৷ নারীর অধিকারে বিশ্বাসী হিসেবে যারা নারীকে বস্তু হিসেবে বিবেচনা করেন তাদেরকে আমি না বলি, এমনকি সেটা যদি তারা নারীর স্বাধীনতা প্রদর্শনের জন্যেও হাজির করতে চান তাহলেও৷

শরীর আমার, তাই পছন্দটাও আমার৷

ওয়াফা আলবাদ্রি/এফএস

নির্বাচিত প্রতিবেদন