সন্দেহ, বোমা বাঁধার সময় বিস্ফোরণ, মৃত দুই তৃণমূল কর্মী | বিশ্ব | DW | 05.01.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

সন্দেহ, বোমা বাঁধার সময় বিস্ফোরণ, মৃত দুই তৃণমূল কর্মী

খেজুরিতে বোমা ফেটে মৃত দুই তৃণমূল কর্মী। অভিযোগ, বোমা বাঁধার সময় এই ঘটনা ঘটে।

প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

আবার অশান্ত পূর্ব মেদিনীপুরের খেজুরি। সেখানে আবার রাজনৈতিক সহিংসতারঘটনা ঘটছে। সোমবার রাতে খেজুরির জনকা এলাকায় বোমা বিস্ফোরণ হয়। সেখানে দুইজন মারা গেছেন এবং দুই জন আহত হয়েছেন। সকলেই তৃণমূল কর্মী। অভিযোগ, তারা বোমা বাঁধার সময় বিস্ফোরণ হয়। এছাড়া কটকাদেবীচক, গোড়াঘাটের মতো এলাকায় রজনৈতিক সংঘর্ষও হয়েছে।

বিজেপি-র অভিযোগ, তৃণমূল কর্মীরা তাদের আক্রমণ করছে। খেজুরির বিধায়ক শান্তনু প্রামাণিক বিজেপি নেতা। তিনি অভিযোগ করেছেন. সোমবার রাতে পশ্চিম ভাঙনমারি বুথে বিস্ফোরণ হয়। খুবই জোরালো বিস্ফোরণ। স্থানীয় মানুষ গিয়ে দেখেন, কিছু দেহ পড়ে আছে। সেখানে অনুপ দাস সহ দুইজনে তৃণমূল কর্মী মারা গেছেন।

বিজেপি বিধায়কের অভিযোগ, বিস্ফোরণের পর কাউকেই ওই এলাকায় ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। বিজেপি কর্মীরা যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তৃণমূলের কর্মীরা তাদের জোরজবরদস্তি করে ফেরত পাঠিয়েছে। বিধায়কে বলেছেন, খেজুরি হলো তৃণমূলের বোমা বানানোর কারখানা।

জেলার তৃণমূল নেতা সুপ্রকাশ গিরি বিস্ফোরণের কথা স্বীকার করে নিয়েছেন। তবে তিনি জানিয়েছেন, এর পিছনে তৃণমূলের হাত নেই। তিনি বলেছেন, বোমা বাঁধতে গিয়ে হয়েছে নাকি বোমা পরিকল্পনা করে রাখা হয়েছিল, সেটা তদন্ত করে দেখা দরকার। তৃণমূল কর্মীদের বোমা মেরে খুন করা হয়েছে কি না, সেটাও পুলিশকে দেখতে বলেছেন তিনি। সুপ্রকাশ জানিয়েছেন, যারা দোষী, তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিজেপি-র দাবি, তাদের কর্মীদের উপর সহিংসতা, বিস্ফোরণ নিয়ে তারা পুলিশের কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন। কিন্তু পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

যেখানে বিস্ফোরণ হয়েছে, সেই জায়গাটা থানার খুবই কাছে।

জিএইচ/এসজি (আনন্দবাজার, এস নিউজ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন