সংস্কৃতির সেতু রচনায় হাস্যরস | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 01.06.2010
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

সংস্কৃতির সেতু রচনায় হাস্যরস

অভিবাসনের জন্য জার্মানরা সাধারণত পাড়ি জমায় অ্যামেরিকা, অস্ট্রেলিয়া বা ক্যানাডায়৷ কিন্তু অভিবাসনের গন্তব্য হিসাবে জার্মানদের কাছে প্রতিবেশী দেশ পোল্যান্ডের স্থান যে চতুর্থ, তা হয়তো অনেকেই জানেন না৷

default

জার্মান ও পোলিশ জনগণের মধ্যে রয়েছে এক ঐতিহাসিক মেলবন্ধন

অভিবাসী বহু জার্মানই কিন্তু পোল্যান্ডের সমাজে মিশে গিয়েছেন, নামও করেছেন বিভিন্ন ক্ষেত্রে৷ প্যোল্যান্ডে অভিবাসী জার্মানদের মধ্যে বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছেন স্টেফেন ম্যোলার৷ ১৫ বছর আগে পাড়ি জমিয়েছেন তিনি পোল্যান্ডে, কমেডি শিল্পী হিসাবে নাম করেছেন৷ জার্মানিতেও মাঝে মাঝে আসেন তিনি, পরিবেশন করেন কমেডি শো৷ পোলিশ বা জার্মান – কাউকেই ছাড়েন না ম্যোলার, তাদের নিয়ে করেন হাস্য কৌতুক৷ ৪১ বছর বয়সি স্টেফেন প্রথম দিকে পোলিশ ছাত্রদের জার্মান ভাষা শেখাতেন৷ কৌতুকাভিনয়ের ক্ষেত্রে নিজের সুপ্ত প্রতিভাটা আবিষ্কার করেন তিনি পরে৷

জার্মানরাও যে হাস্যরস জানে, তা তিনি দেখিয়ে দেন তাঁর নতুন দেশের মানুষদের৷ এ প্রসঙ্গে স্টেফেন ম্যোলার বলেন, ‘‘সবচেয়ে ভাল হয়, নিজেকে নিয়ে হাসতে পারলে৷ পেলিশরা যখন দেখে, জার্মানরা নিজেদের নিয়েও হাসি ঠাট্টা করে, তখন তারা ভাবে, এটা তো আশা করিনি৷

CSD 2007 in Warschau

অভিবাসনের জন্য জার্মানদের কাছে পোল্যান্ড বেশ আকর্ষণীয়

তখন আমিও একটু হালকা বোধ করতে পারি৷ কেননা পোল্যান্ডের কোনো কিছু নিয়ে সমালোচনা করলে সমস্যা দেখা দেয়৷ সেখানকার মানুষ মনে করে এই তো আমাকে আক্রমণ করা হল৷ দাঁত দাঁত চেপে হাত পা ছুড়ে প্রতিবাদ করে তারা৷''

যেমন এই কমেডি অনুষ্ঠানটি : ‘‘ইউরোপের দেশগুলির মধ্যে পোল্যান্ডেই সবচেয়ে বেশি ফুলের দোকান রয়েছে৷ আমাদের জার্মানদের আছে বিমা কোম্পানি ও ওষুধের দোকান৷ ওয়ারশ'র স্টেশনে গেলে আপনার চোখে পড়বে ২০ জনের মত পোলিশ স্বামী ফুলের তোড়া নিয়ে অপেক্ষা করছেন নিজেদের স্ত্রীদের জন্য৷ বার্লিন থেকে একটি ট্রেন এসে থামে৷ পোলিশ স্বামীরা দৌড়ে যান ট্রেন থেকে নামা স্ত্রীদের কাছে, তাদের হাতে তুলে দেন ফুলের তোড়া৷ অন্য কামরা থেকে এক মহিলা নামেন৷ কিন্তু তিনি কোনো ফুল পেলেন না৷ প্লাটফর্ম থেকে শোনা যায় এক পুরুষ কণ্ঠ চেঁচিয়ে বলছে, ‘তাড়াতাড়ি এসো, আমি ভুল জায়গায় গাড়ি পার্ক করে রেখেছি৷' এই ভদ্রলোক পোল্যান্ডের গ্যোটে ইন্সটিটিউটে কাজ করেন৷''

কমেডিয়ান ম্যোলার পোল্যান্ডে একজন জার্মান হিসাবে পেশার ক্ষেত্রে অসাধারণ সাফল্য পেয়েছেন৷ ২০০১ সালে পোল্যান্ডের ক্রাকাউ শহরে প্রথম কমেডি অনুষ্ঠান প্রদর্শন করেন ম্যোলার৷ এক বছরের মাথায় প্রথম পুরস্কারটি হাতে আসে তাঁর, হাস্যরসের মাধ্যমে পোলিশ ও জার্মানদের কাছাকাছি আনার জন্য৷ এর পর তিনি পোল্যান্ডের বিভিন্ন মঞ্চে কৌতুকাভিনয় করেছেন৷ চমৎকারভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন এক জার্মান আলু চাষির চরিত্র৷ পোল্যান্ডে তাঁর নাম এতটাই ছড়িয়ে পড়েছে, যে বলা যায় খ্যাতনামা জার্মানদের মধ্যে ক্যাথলিক ধর্মগুরু পোপের পরই তাঁর স্থান সেখানে৷ জার্মান ও পোলিশ সংস্কৃতিতে বিশেষ অবদানের জন্য ২০০৫ সালে জার্মানির সবচেয়ে বড় সম্মানসূচক পুরস্কার ‘বুন্ডেসফ্যারডিনস্টক্রয়েৎস' বা ‘ফেডারেল ক্রস অফ মেরিট' পেয়েছেন স্টেফেন ম্যোলার৷ পরে সমমর্যাদার একটি পুরস্কার পেয়েছেন পোল্যান্ডেও৷

বলা যায় পোল্যান্ডের সাথে হালকা হাস্যরসের কূটনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তুলেছেন ম্যোলার৷ এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘আমি কোনো কঠিন বিষয় নিয়ে মাথা ঘামাই না৷ আমার দৈনন্দিন জীবনে যা ঘটছে, সেসবই তুলে ধরি আমি৷ আমার সম্পর্কে সমালোচনা করে বলা হয় যে, জটিল বিষয়গুলি আমি এড়িয়ে চলি৷ অল্প কিছুদিনের জন্য আমি পোল্যান্ড থেকে জার্মানদের বিতাড়নের ইতিহাসটি আমার কমেডিতে তুলে ধরতে চেয়েছিলাম৷ কিন্তু জার্মান ও পোলিশ – দুই তরফেরই অসন্তোষের মুখে পড়ি আমি৷ এই সব কৌতুককে নির্লজ্জ বলে কঠোর সমালোচনা করে তারা৷ ব্যাস ঐ পর্যন্ত৷ এরপর থেকে আমি যা ভাল পারি, তাতেই মনোনিবেশ করতে থাকি৷''

২০০৮ সালে স্টেফেন ম্যোলারের ‘ভিভা পোলোনিয়া' বইটি বেস্ট সেলারের তালিকায় চলে আসে৷ বিক্রি হয় ২ লাখ কপি৷ তিনি নিজেও বিস্মিত হন এতে৷ ম্যোলার এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘পোল্যান্ডের ওপর বই লিখেছে, এমন ব্যক্তি আমিই প্রথম নই৷ ডজন ডজন বই লেখা হয়েছে পোল্যান্ডকে নিয়ে৷ হয়তো বা আমি হালকা রসের মাধ্যমে বিষয়গুলি তুলে ধরার চেষ্টা করেছি বলেই জনপ্রিয় হয়েছে বইটি৷ অন্যান্যদের লেখায় জার্মান-পোলিশ বিষয়গুলি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ভ্রূকুটি কিংবা বিতর্কের সৃষ্টি করে, যা কোনো ফলই বয়ে আনেনা৷''

স্টেফেন ম্যোলারের কৌতুকরসের মধ্যে অন্যকে অপমান করার কিংবা আঘাত দেয়ার ব্যাপারটা থাকেনা৷ পোলিশদের সম্পর্কে অনেক নেতিবাচক বদ্ধমূল ধারণাও তিনি নির্মল হাস্যরসের মাধ্যমে তুলে ধরেন৷ স্টেফেন ম্যোলার বলেন, ‘‘সাধারণত অন্যের সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণাটাই কমেডিতে তুলে ধরা হয়৷ পোলিশদের সম্পর্কে এই ধরণের প্রচুর ধারণা প্রচলিত রয়েছে৷ রাজনীতিবিদরা চাইলেও এসব ঢেকে রাখা যায়না৷ যেটা করা যেতে পারে, তা হল – হালকা রসের মাধ্যমে এ গুলি তুলে ধরা৷ আমার বিশ্বাস, তা আমি খানিকটা হলেও পেরেছি৷ দর্শকরা বলেছেন, আমার অনুষ্ঠান দেখে বের হওয়ার পর তাদের মনে হয়, ঠিক আছে আমি পোলিশ – তুমি জার্মান৷ অবশ্যই আমাদের মধ্যে অমিল রয়েছে৷ কিন্তু তাতে হলটা কি ? তা সত্ত্বেও আমরা পরস্পরকে পছন্দ করি৷''

প্রতিবেদন: রায়হানা বেগম

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়