সংসদ নির্বাচনে আসছে একঝাঁক নতুন মুখ | বিশ্ব | DW | 01.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

সংসদ নির্বাচনে আসছে একঝাঁক নতুন মুখ

আসন্ন সংসদ নির্বাচনে একঝাঁক নতুন মুখ দেখা যাবে৷ আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি ও বিএনপি– সব দলেই প্রস্তুত হচ্ছেন তরুণরা৷ ডয়চে ভেলেকে তাঁরা জানিয়েছেন, বিভাজনের রাজনীতি নয়, রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তন আনাই হবে তাঁদের চ্যালেঞ্জ৷

আলাপচারিতায় বেশিরভাগ তরুণ রাজনীতিবিদ এক জায়গায় একমত যে, বিভাজন দিয়ে দেশকে এগিয়ে নেয়া যাবে না৷ পুরনো ধ্যান-ধারণা নিয়ে বসে থাকলেও চলবে না৷ এখন প্রয়োজন পরিবর্তন৷ তবে একাজ করতে গিয়ে তাঁরা দলের নিয়ম-কানুন ভেঙে ফেলতে চান না৷ বরং নতুন ও পুরনোর যৌক্তিক সংমিশ্রণ ঘটাতে চান৷ ডয়চে ভেলেকে নিজেদের ভবিষ্যত পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন তাঁরা৷

তরুণ এসব রাজনীতিবিদ মনে করেন শিক্ষিত, মেধাবী ও যোগ্য তরুণদের আরও অংশগ্রহণের মাধ্যমেই দেশের রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে পরিবর্তন আসতে পারে৷ 

অডিও শুনুন 03:13
এখন লাইভ
03:13 মিনিট

‘প্রবীণ রাজনীতিবিদদের নামের সাথে নেগেটিভ লেবেল থাকে’

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক ব্যারিস্টার আহসান হাবীব ভুঁইয়ার সাথে কথা হয় ডয়চে ভেলের৷ আগামী নির্বাচনে নোয়াখালি ২ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী তিনি৷ বলেন, ‘‘প্রবীণ রাজনীতিবিদদের নামের সাথে নেগেটিভ লেবেল থাকে৷ মানুষ মনে করে, রাজনীতিবিদ মানেই গুন্ডা, মাস্তান, চাঁদাবাজ, বদমাশ৷ ভালো, ভদ্র, শিক্ষিক, মার্জিত ছেলেমেয়ারা রাজনীতিতে আসে না৷ এই ধারণার পরিবর্তন করতে চাই৷''

তরুণ এই রাজনীতিবিদ আরো বলেন, ‘‘তরুণদের নিয়ে এর আগে কোনো রাজনৈতিক দল বাংলাদেশে এত কাজ করেনি, দলে এতটা জায়গা দেয়নি৷ আমাদের জনসংখ্যার ৬৪ ভাগ এখন তরুণ এবং তাঁরা ভোটার৷ কাজেই এটিই ‘হাইটাইম' তাঁদেরকে রাজনীতিতে সম্পৃক্ত করার, তাঁদের জন্য কিছু করার৷''

তাঁর মতে, ‘‘তরুণরা সব সময়ই বিশেষ কিছু করে৷ আমাদের তরুণরা এখন আইটি ও আউটসোর্সিংয়ে খুবই ভালো করছে৷ এই সম্ভাবনাগুলো কাজে লাগাতে হবে৷ স্থানীয় রাজনীতিতে তরুণদের অংশগ্রহণ আরও বাড়ানো্ এবং প্রযুক্তিনির্ভর কাজ আমি ভবিস্যতে করতে চাই৷'' 

অডিও শুনুন 01:17
এখন লাইভ
01:17 মিনিট

‘আমাদের সময়ের রাজনীতিবিদরা নেতা নয় তৃণমূল নিয়ে বেশি ভাববে'

অন্যদিকে আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি মাহজাবিন খালেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘পুরনোদের তো মানুষ দেখেছে, দেখেছে তাঁরা কতখানি কাজ করেছেন৷ এবার নতুনদের দেখার সুযোগ দিতে হবে৷ সংরক্ষিত আসনে থেকে কোনো কাজ করার থাকে না৷ তারপরও আমি নিয়মিত এলাকায় যাই৷ তাঁদের (জনগণের) কথা শুনি৷ তাঁদের জন্য কিছু করতে চাই৷ সেকারণেই আগামীতে সরাসরি নির্বাচন করার ইচ্ছা রাখি৷''

মাহজাবিন বলেন, ‘‘আমার দল আওয়ামী লীগের কথাই বলি, সবাই কেবল নেতাদের নিয়ে ব্যস্ত থাকে৷ কিন্তু নেতারাই তো সব নয়৷ তৃণমূলে কাজ করে যে মানুষগুলো, তাঁদের নিয়েও ভাবতে হবে৷ আমার মনে হয়, আমাদের সময়ের মানুষরা, রাজনীতিবিদরা এসব নিয়ে অনেক বেশি ভাববে৷''

গণমাধ্যমে বিএনপিপন্থি আইনজীবী হিসেবে পরিচিত মুখ ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা৷ দলের কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করছেন তিনি৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, ‘‘রাজনীতি আমার কাছে অনেকটা মানবদেহের মতো৷ মাথা, হাত, পা সবকিছুর যেমন আলাদা আলাদা কাজ আছে, কোনো জায়গাই খাটো করে দেখার মতো নয়, তেমনি দলেও মিছিলের কর্মী যেমন আছে, তেমনি পলিসি মেকিংয়ের জন্যও লোক লাগে৷ আগামী নির্বাচনের ম্যানিফেস্টো কী হবে, সেটা কীভাবে অর্জন করা যাবে, সেসব নিয়ে কেউ কেউ ভাববে৷ এসব কাজে আমার সরাসরি সম্পৃক্ততা আছে৷ আমি যেক্ষেত্রে ভালো করতে পারি সেই ক্ষেত্রেই আমি কাজ করছি৷'' 

রুমিন ফারহানা জানান, ‘‘সহায়ক সরকারের একটা প্রস্তাব আমরা সহসাই দেবো৷ সেটা তৈরির ব্যাপারে আমি ভূমিকা রেখে যাচ্ছি৷ এছাড়া বিভিন্ন সাংবিধানিক বিষয় অনেক সময় সামনে আসে, সেগুলোর ব্যাখ্যা তৈরির কাজ করি৷ যদি সরাসরি নির্বাচনে অংশ নেয়ার প্রশ্ন আসে, যদি দল মনে করে আমি যোগ্য, তাহলে নির্বাচন করব৷''

তাঁর মতে, ‘‘গত কয়েক বছরে আমাদের দেশ বিভাজনের রাজনীতিতে জড়িয়ে গেছে৷ কেবল তরুণ হলে হবে না, শিক্ষিত, যোগ্য তরুণরাই পারবে এই বিভাজন থেকে দেশকে বের করে আনতে৷ আমি সেই রকম তরুণদেরর প্রতিনিধিত্ব করতে চাই না যারা ব্যক্তি ভাগ্যের পরিবর্তন করতে না পেরে রাজনীতিতে আসে৷ ''

অডিও শুনুন 03:00
এখন লাইভ
03:00 মিনিট

‘তরুণরা বিভাজনের রাজনীতি চায় না’

অন্যদিকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের আইন ও বিচার বিভাগীয় উপদেষ্টা শামীম হায়দার পাটোয়ারীও টেলিভিশনের চেনামুখ৷ এর আগে স্থানীয় নির্বাচনও করেছেন৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, ‘‘আমাদের  ভোটারদের একটা বড় অংশই হলো তরুণ৷ এদের বেশিরভাগই রাজনীতিবিমুখ৷ তাঁরা রাজনীতিবিমুখ বলেই অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী অথবা দেশপ্রেমিক নয় এমন ব্যক্তি মন্ত্রী, এমপি হয়ে যায়৷ তাই সময় এসেছে তরুণদের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত করা এবং তাঁদের মাধ্যমেই ভালো জনপ্রতিনিধি তৈরি করার৷ এরা সম্পৃক্ত হলে দেশে স্বাভাবিকভাবেই তারুণ্যনির্ভর রাজনীতির শুরু হবে৷ সেটি ডিজিটালাইজড হবে, ফোকাসড হবে, দেশপ্রেম থাকবে এবং এর মাধ্যমে দেশের রাজনীতিতে একটা পরিবর্তন আসবে৷'' 

শামীম হায়দার বলেন, ‘‘দুঃখজনক হলেও সত্য যে, আমাদের এখানকার প্রবীণ রাজনীতিবিদরা অনেকটা প্রতিহিংসার রাজনীতি করেন৷ তাঁরা নিজেরাও নানা প্রতিহিংসার সম্মুখীন হয়েছেন, সহিংসতার শিকার হয়েছেন৷ এখন যাঁরা আওয়ামী লীগ করছেন, তাঁরা এক সময় বিএনপির দ্বারা নির্যাতিত হয়েছেন, যাঁরা বিএনপি করছেন তাঁরা আওয়ামী লীগ দ্বারা নির্যাতিত হয়েছেন৷ দেশে অনেক ঘটনা ঘটেছে, আমাদের রাজনীতিবিদরা সেগুলো ঠেকাতে পারেননি৷ তাই আমি মনে করি, আমাদের তরুণদের দেশ গড়ার রাজনীতি করা প্রয়োজন৷''

অডিও শুনুন 02:21
এখন লাইভ
02:21 মিনিট

‘বেশিরভাগ ভোটার তরুণ বলে রাজনীতিতে তরুণদের আসতে হবে’

তিনি আরো বলেন, ‘‘আমাদের যে তরুণ সমাজ ইন্টারনেটকে ভালো পথে কাজে লাগাতে পারবে, তাদেরকে রাজনীতিতে আনতে হবে৷ এমপি বা অন্যান্য পদে শতকরা ১০ ভাগ তরুণকেও দেখা যাচ্ছে না৷ এতে এক ধরনের মতপার্থক্য তৈরি হচ্ছে৷ এই মতপার্থক্য থাকলে দেশ বেশি দূর এগোতে পারবে না৷''

শামীম হায়দার পাটোয়ারী জানান, তাঁর দল জাতীয় পার্টি তরুণদের এখন বেশ গুরুত্ব দিচ্ছে৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি নিজে যেমন পার্টির চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করছি, তেমনি দলে আরও অনেক তরুণই এখন গুরুত্পূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করছেন৷ তরুণদের নানা ধ্যান-ধারণা ও ভাবনা গ্রহণ করছে দল, এটা খুবই ইতিবাচক৷''

জাতীয় পার্টির মতো আওয়ামী লীগ ও বিএনপির তরুণ রাজনীতিবিদরাও জানান, তাঁদের দলও এখন তরুণ ভাবনাকে বেশ গুরুত্ব সহকারে দেখছে৷ তাঁদের সমসাময়িক আরও অনেক তরুণ মাঠে ও মাঠের বাইরের রাজনীতির সাথে নিজেদের সম্পৃক্ত করছেন৷ ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগে তো একাধিক তরুণ সাংসদ ও মন্ত্রীও আছেন৷ বিএনপিতেও অনেক তরুণই এগিয়ে আসছেন বলে জানা গেছে৷

এ বিষয়ে আপনার কোন মাতমত থাকলে লিখুন নিচে মন্তব্যের ঘরে

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়