সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার জন্য তিনটি প্রস্তাব | বিশ্ব | DW | 03.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতার জন্য তিনটি প্রস্তাব

প্রতিবেদন প্রকাশের উপর নিষেধাজ্ঞা, রুটি-রুজি বন্ধ করা ও কারাদণ্ড সাধারণত স্বৈরাচারী রাষ্ট্রের আচরণের মধ্যে পড়ে৷ এভাবে তারা স্বাধীনভাবে মত প্রকাশের অধিকার সঙ্কুচিত করতে চায়৷

ইতোমধ্যে এমন সব বিপদ দেখা যাচ্ছে, যা সহজে বোঝা যায় না৷ তার মধ্যে সবার আগে রয়েছে ইন্টারনেটের ভাইরাল কাঠামো৷ মানুষ এবং ইদানীংকালে আরো বেশি যন্ত্র মিথ্যা, কারচুপি করা ভিডিও ও ছবি ছড়িয়ে দিচ্ছে৷ সুপরিকল্পিতভাবে জনমত প্রভাবিত করাই এর উদ্দেশ্য৷ ‘ফেক নিউজ’, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যা ছড়ানোর অভিযান, অপবাদ ও হুমকি দৈনন্দিন জীবনের অঙ্গ হয়ে উঠেছে৷ আনাড়ি লোকের কাঁচা কাজ নয়, বরং পেশাদারি সংবাদমাধ্যমও আরো বেশি করে এমন কাজ করছে৷ রাশিয়া টুডে এবং দুর্ভাগ্যবশত আল জাজিরাও এমন কাজে লিপ্ত হচ্ছে৷ তাদের সংবাদ পরিবেশনের ধারা বেশ মনোরম মনে হতে পারে৷ এমনকি কখনো কখনো বেশ মজাদার ও তীক্ষ্ণ রসে ভরা৷ জটিল এক জগতে তারা বিষয়বস্তুগুলি দর্শকদের জন্য সহজ করে উপস্থাপন করার টোপ দিয়ে থাকে৷ তাছাড়া একাধিক দেশের সরকার খোলামেলা ইন্টারনেটে রাশ টেনে দেশবাসীর জন্য সেন্সর করে এক ইন্ট্রানেট কাঠামো গড়ে তোলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে৷ আমরা ইরান, চীন, রাশিয়া ও তুরস্কে এমনটা লক্ষ্য করছি৷

এমন প্রচেষ্টার একটি মাত্র জবাব হতে পারে৷ মানুষকে সত্য ও মিথ্যার মধ্যে পার্থক্য করা শিখতে হবে৷ এই ক্ষমতা স্কুলশিক্ষার পাঠক্রমের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ করে তুলতে হবে৷ প্রাপ্তবয়স্কদের জন্যও এমন শিক্ষার আকর্ষণীয় পাঠক্রমের ব্যবস্থা করতে হবে৷ এর মাধ্যমে মানুষকে বোঝাতে হবে যে, শেষ পর্যন্ত শুধু সংবাদ মাধ্যমের অধিকার হুমকির মুখে পড়ছে না৷ রাষ্ট্রের দমন নীতির ভয় না করে পরিচিত পরিবেশে স্বাধীনভাবে নিজস্ব মত প্রকাশের অধিকারও বিপন্ন হয়ে উঠছে৷

Infografik Pressefreiheit 2019 EN

রাজনৈতিক নেতাদের দায়বদ্ধতা

জার্মানি ও ইউরোপসহ গোটা বিশ্বের গণতান্ত্রিক নেতারা চীনকে তোয়াজ করতে পরস্পরের মধ্যে প্রতিযোগিতায় নেমেছেন৷ সে দেশে সংবাদ মাধ্যমের অধিকারের কোনো অস্তিত্ব নেই৷ ডয়চে ভেলের মতো নিরপেক্ষ বিদেশি সংবাদমাধ্যমও সেখানে বাধার মুখে পড়ে৷ কিন্তু তাতে তাঁদের কিছুই এসে যায় না৷ অর্থনীতি জগতও চীনের ক্ষেত্রে বড় ব্যবসাকে অগ্রাধিকার দেয়৷ সে ক্ষেত্রে মানবাধিকারের কোনো ভূমিকা নেই৷

ইরানের ক্ষেত্রেও অর্থনৈতিক মাপকাঠি নিয়ে আলোচনা হয়৷ সে দেশের রেভোলিউশনরি গার্ড বাহিনীর কুখ্যাত কারাগারে নিপীড়িত ২০ জনেরও বেশি সাংবাদিকদের কথা ভাবা হয় না৷ বাংলাদেশ ও পাকিস্তানে ব্লগাররা নিজেদের জীবন বিপন্ন করে নিজেদের দেশে উগ্র ইসলামপন্থিদের উত্থানের চিত্র তুলে ধরেন৷ বিদেশ থেকে যথেষ্ট সহায়তা তাঁরা পান না৷ সৌদি আরবে নারীরা সিনেমা হল ও স্টেডিয়ামে যাবার এবং গাড়ি চালানোর অধিকার পেয়েছেন বলে গোটা বিশ্ব সে দেশের যুবরাজের প্রশংসায় পঞ্চমুখ৷ কিন্তু ব্লগার রাইফ বাদাউয়ি যে এখনো কারাবন্দি রয়েছেন, তা নিয়ে কোনো উচ্চবাচ্য নেই কেন?

Ines Pohl Kommentarbild App

ইনেস পোল, ডয়চে ভেলের প্রধান সম্পাদক

এই তালিকা আরো দীর্ঘ হতে পারে৷ এই তালিকা বিষণ্ণতায় ভরা৷ সংবাদমাধ্যমের অধিকার খর্ব করার বেড়ে চলা প্রবণতার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক নেতারা কী করছেন, সে বিষয়ে প্রশ্ন তোলার জন্য আজকের দিনটি অত্যন্ত উপযুক্ত৷ তাঁরা কি স্বৈরাচারী শাসকদের সামনে যথেষ্ট স্পষ্টভাবে আমাদের মূল্যবোধ তুলে ধরছেন? সেই মূল্যবোধ লক্ষণীয়ভাবে লঙ্ঘন করলে তাঁরা কি ব্যবসা-বাণিজ্যের স্বার্থ বলি দিতে প্রস্তুত? উন্নয়ন সাহায্য দেবার ক্ষেত্রে মানবাধিকার ও সংবাদ মাধ্যমের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে পারবেন কি তাঁরা?

সাংবাদিকরাই মূল চালিকা শক্তি

সংবাদমাধ্যমের অধিকার শুধু উপর থেকে রক্ষা করা হয় না৷ আইনি কাঠামো একটি বিষয়৷ তবে প্রত্যেক সাংবাদিকের নিজস্ব মনোভাবও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷ বিশেষ করে যেসব দেশে সংবাদ মাধ্যম যথেষ্ট স্বাধীনতা ভোগ করে, সেসব দেশের সাংবাদিকদের এ ক্ষেত্রে আদর্শ ভূমিকা পালন করতে হবে৷ যাঁরা কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে কাজ করে চলেছেন, তাঁদের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে উঠতে হবে৷

আমার কাছে সাংবাদিক হওয়ার অর্থ নিজস্ব বিশ্বাস অথবা সহকর্মীদের ভাবনাচিন্তার ক্ষেত্রেও সন্দেহ প্রকাশ করা৷ এমনকি নিশ্চিত হলেও প্রশ্ন তুলতে হবে৷ ভুল দিক থেকে করতালির ভয় থাকলেও চলবে না৷ জার্মানিতে দক্ষিণপন্থি পপুলিস্ট এএফডি দলের রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে আদৌ কথা বলা উচিত কিনা, এমন আলোচনা সম্পর্কে আমি নিজে অত্যন্ত সন্দিহান৷ কোনো রাজনৈতিক শিবির, অপ্রীতিকর রাজনৈতিক নেতা অথবা আমাদের অপছন্দের অন্য কোনো ব্যক্তিত্বকে এড়িয়ে চলি, তাহলে এমন এক শূন্যস্থান সৃষ্টি হবে, যা পূরণ করতে অন্যরা এগিয়ে আসবে৷

এমনটা করলে শেষ পর্যন্ত সংবাদমাধ্যমের অধিকারের ক্ষতি হবে, আজকের দিনে যা আমরা তুলে ধরার চেষ্টা করছি৷

ইনেস পোল/এসবি

২০১৮ সালের এপ্রিলের ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন