শ্রীলঙ্কায় রাজনৈতিক সংকট ঘনীভূত | বিশ্ব | DW | 10.11.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

শ্রীলঙ্কায় রাজনৈতিক সংকট ঘনীভূত

শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা শনিবার সংসদ ভেঙে দিয়ে আগামী ৫ জানুয়ারি পুনরায় নির্বাচনের ঘোষণা করেছেন৷ এই ঘোষণার ফলে দেশটির জন্য ক্ষতিকর রাজনৈতিক অচলাবস্থা আরো অন্তত দুই মাস দীর্ঘায়িত হলো৷

শুক্রবার রাতে প্রেসিডেন্টের এই সিদ্ধান্তের ঘোর বিরোধিতা করছে দেশটির ২২৫-আসন বিশিষ্ট সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রতিনিধিত্ব থাকা দলগুলো৷ তারা মনে করছে, সংসদ ভেঙে দেয়ার এই সিদ্ধান্ত ‘অবৈধ' এবং ‘অসাংবিধানিক'৷

সংসদ ভেঙে দেয়ার আগে অবশ্য পুলিশ বিভাগকেও নিজের হাতে নিয়ে নেন সিরিসেনা৷ তিনি এই বাহিনীকে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অন্তর্ভূক্ত করেছেন৷ পাশাপাশি তিনি রাষ্ট্রের মুদ্রণ বিভাগেরও দায়িত্ব নিয়ে নিয়েছেন, যেটি বিভিন্ন ফরমান এবং ঘোষণাপত্র প্রকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে৷ গত ২৬ অক্টোবর দেশটির তখনকার প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহেকে পদচ্যুত করার পর রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমেরও দায়িত্ব নিয়ে নিয়েছিলেন সিরিসেনা৷ 

৫ জানুয়ারি নির্বাচনের দিন ঘোষণার মাধ্যমে সিরিসেনা কার্যত দেশটির পরবর্তী সংসদ নির্বাচন দুই বছর এগিয়ে আনলেন৷ তাঁর সমর্থিত প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসে, যিনি অতীতে দীর্ঘসময় দেশটির প্রেসিডেন্ট ছিলেন, সংসদে নিজের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণে যে ব্যর্থ হবেন, সেটা বোঝার পরই নির্বাচন এগিয়ে আনার এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন তিনি৷ ৭২ বছর বয়সি রাজাপাকসে দুই সপ্তাহ প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করলেও একবারও সংসদে যাননি৷ তবে, তিনি আগামী ১৭ জানুয়ারি নতুন সংসদদের অধিবেশন বসার আগ অবধি দেশটির নির্বাচনকালীন তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থার প্রধানের ভূমিকা পালন করবেন৷

রাজাপাকসের দলের নেতা সুশীল প্রেমাজয়ন্ত বলেছেন, ক্ষমতার লড়াইয়ের ইতি টানতে এবং নতুন সংসদ গঠনে জনগণকে সুযোগ দিতে সংসদ ভেঙে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন সিরিসেনা৷

প্রসঙ্গত, রাজাপাকসে এবং ক্ষমতাচ্যুত বিক্রমাসিংহে গত দুই সপ্তাহ ধরে নিজেদের মধ্যে ক্ষমতার লড়াইয়ে লিপ্ত ছিলেন৷ সংসদে নিজ জোটের সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় রাষ্ট্রপতি তাঁকে ক্ষমতাচ্যুত করলেও সেটা মেনে নেননি বিক্রমাসিংহে৷ বরং নিজেকে ‘বৈধ প্রধানমন্ত্রী' মনে করছেন তিনি৷ এমনকি প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনও ত্যাগ করেননি৷ 

ভিডিও দেখুন 05:43

শ্রীলঙ্কায় কার্বন-মুক্ত হোটেল

এদিকে, শ্রীলঙ্কায় এই রাজনৈতিক সংকট নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও আরো বেশ কয়েকটি দেশ৷ সিরিসেনার সংসদ ভেঙে দেয়ার সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে ওয়াশিংটন বলেছে, ‘‘শ্রীলঙ্কার সংসদ ভেঙে দেয়ার খবর শুনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র গভীরভাবে উদ্বিগ্ন৷ এতে করে রাজনৈতিক সংকট আরো গভীর হবে৷ শ্রীলঙ্কার এক প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সঙ্গী হিসেবে আমরা বিশ্বাস করি যে, স্থিতি এবং সমৃদ্ধি বজায় রাখতে দেশটির গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান এবং প্রক্রিয়ার প্রতি সম্মান বজায় রাখা উচিত৷''

উল্লেখ্য, ২ কোটি ১০ লাখ মানুষের দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কার পর্যটন খাত অত্যন্ত সমৃদ্ধ৷ রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে এই খাতে বিরূপ প্রভাবের পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগ বাধাগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশ্লেষকরা৷

এআই/এসিবি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন