শ্রীলঙ্কায় মহিলাদের সুরা ক্রয়ের উপর নিষেধাজ্ঞা | বিশ্ব | DW | 21.01.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

শ্রীলঙ্কা

শ্রীলঙ্কায় মহিলাদের সুরা ক্রয়ের উপর নিষেধাজ্ঞা

শ্রীলঙ্কায় মহিলাদের মদ কেনা কিংবা বার অথবা মদের দোকানে কাজ করার ওপর নিষেধাজ্ঞা বহুদিনের৷ সরকার এতোদিনে সে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে আবার সপ্তাহ খানেকের মধ্যেই তা বহাল করলেন৷

অর্থমন্ত্রী মাংগালা সামারাভিরা মহিলাদের মদ কেনার ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হচ্ছে, এ কথা ঘোষণা করার কয়েক দিনের মধ্যেই সেই নিষেধাজ্ঞা নতুন করে জারি হল – গত রবিবার থেকে৷

‘‘আমি অর্থমন্ত্রী... প্রধানমন্ত্রী ও আরো ক'জন মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি ও তাঁদের অবিলম্বে (নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার) বাতিল করতে বলেছি,'' প্রেসিডেন্ট মৈত্রীপালা সিরিসেনা একটি নির্বাচনি সমাবেশে বলেন৷

শ্রীলঙ্কায় মহিলাদের মদ কেনা কিংবা মদের কারখানা কিংবা বার ইত্যাদিতে কাজ করার উপর নিষেধাজ্ঞা ১৯৭৯ সাল যাবৎ বলবৎ ছিল৷

গত সপ্তাহে দেশের অর্থ মন্ত্রণালয় সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার ঘোষণা করে – দৃশ্যত শ্রীলঙ্কার পর্যটন শিল্পের চাপে, কেননা নিষেধাজ্ঞার দরুন বিদেশি মহিলা পর্যটকরা শ্রীলঙ্কায় সুরা ক্রয় করতে পারেন না৷ অর্থ মন্ত্রক সেই সঙ্গে বার খোলা রাখার সময়ও বাড়িয়ে দেয়৷

যুগপৎ কর্তৃপক্ষ উর্দিধারী পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের মদ বিক্রয়ের উপর আইনগত বাধানিষেধ বজায় রাখেন৷

নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের কারণ হিসেবে অর্থ মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আলি হাসেন গত বুধবার বলেন, ‘‘উদ্দেশ্য ছিল, লিঙ্গ নিরপেক্ষতা পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা৷''

বিরোধী রাজনীতিকরা সরকারের পদক্ষেপের সমালোচনা করে বলেন যে, এর ফলে দেশের বৌদ্ধ মূল্যবোধের হানি ঘটবে৷ ক্রেতাদের অধিকার সুরক্ষার জন্য জাতীয় আন্দোলন নামধারী সংগঠনটিও অর্থমন্ত্রীর বিরুদ্ধে মদ্যপানের প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ করে ও প্রেসিডেন্ট সিরিসেনার প্রতি পুরাতন বাধানিষেধ ফিরিয়ে আনার আবেদন জানায়৷

এসি/এসবি (রয়টার্স, এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন