শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারির তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ | বিশ্ব | DW | 01.05.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারির তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ

শেয়ারবাজার কেলেঙ্কাকারির তদন্ত রিপোর্ট আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করেছে সরকার৷ তদন্ত রিপোর্ট প্রকাশ অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী বলেন, সিকিউরিটিজ এক্সচেঞ্জ কমিশনে দুয়েকদিনের মধ্যেই নতুন চেয়ারম্যান যোগ দেবেন৷

default

ফাইল ছবি

অবশেষে শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারির তদন্ত রিপোর্ট কোনো প্রকার কাটছাঁট ছাড়াই আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করেছে সরকার৷ অর্থ মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটেও প্রতিবেদনটি পাওয়া যাচ্ছে৷ শনিবার সন্ধ্যায় অর্থ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এ রিপোর্ট প্রকাশ করেন৷ এসময় তিনি পুঁজিবাজার নিয়ে সরকারের নানা সংস্কারের কথা তুলে ধরেন৷

অর্থমন্ত্রী বলেন, পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে দুয়েকদিনের মধ্যেই নতুন চেয়ারম্যান যোগ দেবেন৷ সদস্য হিসেবে আরও দুই জন যোগ দেবেন৷ বর্তমানে যে দুই জন সদস্য আছেন তারা চলে যাবেন৷ তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের ফৌজদারি কিছু বিষয় দুদকে পাঠানো হচ্ছে৷

অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন প্রকাশ নিয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনা হয়েছে৷ তাই সরকার পুরো প্রতিবেদনটি কাটছাঁট ছাড়াই প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ প্রমাণ ছাড়া কারো চরিত্র হনন হোক এটা যেমন কাম্য নয়, তেমনি কারসাজি করে কেউ পার পেয়ে যাক তা-ও সরকার চায় না৷ তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে সরকার শেয়ারবাজার নিয়ে কাজ করছে উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, তদন্ত কমিটি শেয়ারবাজার ডিম্যুলাইজেশনের কথা বলেছে, এটি আমিও বলেছিলাম৷ সরকার আশাবাদী, খুব তাড়াতাড়ি এ বিষয়ে একটি পথনির্দেশ দিতে পারবো৷

কমিটি ২৫টি সুপারিশ, ১১টি পর্যবেক্ষণসহ অধিকতর তদন্তের কথা বলেছে৷ অর্থমন্ত্রী জানান সেটা করা হবে, পাশাপাশি একটি টাস্কফোর্স গঠন করা হবে৷ তারা সংস্কার কার্যক্রমেরও মূল্যায়ন করবেন৷ একইভাবে শেয়ারবাজারকে ঝুঁকিপূর্ণ উল্লেখ করে বিনিয়োগকারীদেরও জ্ঞানভিত্তিক সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরামর্শ দেন অর্থমন্ত্রী৷

প্রসঙ্গত, শেয়ারবাজারে কারসাজির ঘটনায় খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদের নেতৃত্বে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়৷ গত ৭ এপ্রিল ওই কমিটি অর্থমন্ত্রীর কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়৷

প্রতিবেদন: সমীর কুমার দে, ঢাকা

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

সংশ্লিষ্ট বিষয়