‘শেষ ইচ্ছা′ জানিয়ে নিখোঁজ হন সৌলের মেয়র | বিষয় | DW | 10.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

দক্ষিণ কোরিয়া

‘শেষ ইচ্ছা' জানিয়ে নিখোঁজ হন সৌলের মেয়র

দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সৌলের মেয়র পাক ভন-সুনের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ৷ তিনি আত্মহত্যা করেছেন ধরে নিয়ে তদন্ত করা হবে৷ নিখোঁজ হওয়ার আগে মেয়ের মোবাইলে ‘শেষ ইচ্ছা' জানিয়েছিলেন পার্ক৷

২০১১ সাল থেকে সৌলের মেয়র পাক৷ গতবছর জুনে তিনি তৃতীয়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন৷ তিনি দেশটির শাসক দলের সদস্য ছিলেন৷ ২০২২ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়াইয়েরও আগ্রহ ছিল তার৷

পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে সরকারি বাসভবন থেকে বের হন পাক৷ এই সময় তিনি নিজের মেয়ের মোবাইলের ‘অ্যান্সারিং সার্ভিসে' একটি বার্তা রেখেছিলেন৷ পাঁচ ঘণ্টারও বেশি সময় পর সেই বার্তা শোনেন মেয়রের মেয়ে৷ এরপর বাবার ফোন বন্ধ পেয়ে তিনি বিষয়টি পুলিশকে জানালে মেয়রের খোঁজ শুরু হয়৷

পাকের মেয়ে জানান, মোবাইলে রেখে যাওয়া তার বাবার বার্তা ‘শেষ ইচ্ছার' মতো শুনিয়েছে৷

ড্রোন ও কুকুর দিয়ে খোঁজ শুরুর কয়েক ঘণ্টা পর বৃহস্পতিবার মাঝ রাতের পর পাকের মরদেহ খুঁজে পায় পুলিশ৷ সৌলের উত্তরে বুগাক পাহাড়ের ঢালে এক বৌদ্ধমন্দিরের কাছে জঙ্গলে তার মরদেহ পাওয়া যায়৷ তার শরীরে আঘাতে কোনো চিহ্ন নেই বলে জানিয়েছে পুলিশ৷

এদিকে, বাসভবনের এক টেবিলে মেয়রের হাতে লেখা একটি চিঠি পাওয়া গেছে৷ পরিবারের অনুমতি নিয়ে শুক্রবার টেলিভিশনে সেটি প্রচার করা হয়েছে৷ পাক লিখেছেন, ‘‘আমি সবার কাছে ক্ষমা চাইছি৷ আমার সঙ্গে আমার জীবনে যারা ছিলেন তাদের সবাইকে আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি৷ আমি আমার পরিবারের কাছে ক্ষমা চাইছি, কারণ, আমি শুধু তাদের কষ্টই দিয়েছি৷ দয়া করে আমার দেহ পুড়িয়ে আমার মা-বাবার কবরে ছড়িয়ে দেবেন৷''

দক্ষিণ কোরিয়ার গণমাধ্যম জানাচ্ছে, বুধবার সন্ধ্যায় পাকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ দায়ের করেছিলেন তার এক সাবেক সেক্রেটারি৷ পাকের বিরুদ্ধে ‘অযাচিত শারীরিক সম্পর্ক'  ও ‘অসঙ্গত বার্তা পাঠানো'র অভিযোগ আনা হয়৷

পুলিশ এই অভিযোগ সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করেনি৷ দক্ষিণ কোরিয়ার আইন অনুযায়ী, পাকের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে এই অভিযোগের তদন্ত প্রক্রিয়া শেষ হয়ে গেছে৷

সৌলের শহর কর্তৃপক্ষ এসব অভিযোগ সম্পর্কে ‘অবগত নয়' বলে জানিয়েছে৷

পাকের পরিচয়

১৯৭০-এর দশকে সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত হয়েছিলেন ৬৪ বছর বয়সি পাক৷

পরবর্তীতে মানবাধিকার আইনজীবী হিসেবে কাজ করেছেন৷ আশি ও নব্বইয়ের দশকে রাজনৈতিক কর্মীদের হয়ে আইনি লড়াই করেছেন৷

দেশের মধ্যে সামাজিক ও অর্থনৈতিক অসমতার নিয়মিত সমালোচক ছিলেন৷

২০১৭ সালে দেশটির তৎকালীন প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে আয়োজিত ‘মোমবাতি বিক্ষোভের' অন্যতম আয়োজক ছিলেন৷ এই প্রতিবাদের কারণে ক্ষমতা হারিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট পাক গুন-হে৷

জুলিয়ান রায়াল/জেডএইচ