শেখ হাসিনার উদ্বেগ, মিয়ানমার সেনাপ্রধানের ‘নতুন চাল′ | বিশ্ব | DW | 16.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

রোহি্ঙ্গা সংকট

শেখ হাসিনার উদ্বেগ, মিয়ানমার সেনাপ্রধানের ‘নতুন চাল'

শেখ হাসিনা বলেছেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশ নজিরবিহীন সংকটের মুখোমুখি৷ রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরার ব্যবস্থা না হলে সংকট নিরসন সম্ভব নয়৷ অথচ রোহিঙ্গাদের ফেরানোর প্রশ্নে নতুন শর্ত আরোপ করেছেন মিয়ানমারের সেনাপ্রধান৷

বুধবার জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সাম্প্রতিক সেনা অভিযানের কারণে রোহিঙ্গাদের জীবনে যে বিপর্যয় নেমে এসেছে, তার কারণে বাংলাদেশ এখন নজিরবিহীন সংকটের দ্বারপ্রান্তে৷ অতীতের যে কোনো সময়ের তুলনায় বর্তমান পরিস্থিতি অনেক ভয়াবহ৷'' এখনো প্রতিদিনই রোহিঙ্গারা মিয়ানমার ছেড়ে বাংলাদেশে আসছেন – এ তথ্য জানিয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘‘সমস্যাটা তৈরি করেছে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ, সমাধানও তাদেরই করতে হবে৷''

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নতুন শর্ত

রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গা গ্রামগুলোতে নৃশসংসতা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ তদন্তের পর সম্প্রতি মিয়ানমার সেনাবাহিনী এক প্রতিবেদনে দাবি করেছিল, তাদের সেনারা হত্যা, ধর্ষণ নির্যাতন, ঘর-বাড়িতে আগুন দেয়ার মতো ঘটনা ঘটায়নি৷ এরপর রাখাইন রাজ্যে অভিযানের দায়িত্বে থাকা মেজর জেনারেল মাউং মাউংকে বদলি করা হয়৷

সব মিলিয়ে গত কয়েকদিন রোহিঙ্গা ইস্যুতে ঘুরেফিরেই খবরে এসেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী৷ বৃহস্পতিবার সে দেশের সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইং বলেছেন, শুধু ‘মিয়ানমারের প্রকৃত জনগণ' চাইলেই রোহিঙ্গারা ফিরতে পারে৷ নিজের ফেসবুক পেজে দেয়া ইংরেজিতে লেখা এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘‘রাখাইনের স্থানীয় লোকজন, যাঁরা মিয়ানমারের প্রকৃত নাগরিক, তাঁদের ইচ্ছাকেই এখন প্রাধান্য দিতে হবে৷ শুধু রাখাইনের স্থানীয় আদি বাসিন্দারা যখন মেনে নেবেন, তখনই কেবল সব জনগণ খুশি হবে৷''

গত ২৫ আগস্টের সেনা অভিযানের পর থেকে ৬ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে৷ বাংলাদেশ চায়, গত কয়েক দশক ধরে যারা গিয়েছেন এবং সম্প্রতি যারা নিপীড়ন, নির্যাতনের মুখে যেতে বাধ্য হয়েছেন, তাঁদের সবাইকেই মিয়ানমার ফিরিয়ে নিক৷ কিন্তু মিয়ানমার সেনাপ্রধান এ প্রসঙ্গে পরিষ্কার ভাষায় বলেছেন, ‘‘বাংলাদেশ যতজনকে নেয়ার কথা বলছে, ততজনকে গ্রহণ করা অসম্ভব৷''

রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে এইচআরডাব্লিউ এবং অ্যাঞ্জেলিনা জোলি

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডাব্লিউ) এক প্রতিবেদনে লিখেছে, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংসতার কারণে বাধ্য হয়ে দেশ ছেড়েছে রোহিঙ্গারা৷ ব্যাপক হত্যা, নির্যাতন এবং ধর্ষণের প্রমাণ পাওয়া গেছে বলেও দাবি করা হয় প্রতিবেদনে৷

দিকে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক বিশেষ দূত, হলিউড সুপারস্টার অ্যাঞ্জেলিনা জোলি মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নারীদের ওপর যৌন সহিংসতার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন৷ 

এসিবি/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন