শিশু নিগ্রহের ঘটনা প্রচারে মিডিয়ার প্রতি আদালতের নতুন নির্দেশিকা | বিশ্ব | DW | 19.08.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

শিশু নিগ্রহের ঘটনা প্রচারে মিডিয়ার প্রতি আদালতের নতুন নির্দেশিকা

এহেন ঘটনা প্রচারে ভারতীয় মিডিয়ার প্রতি নতুন নির্দেশিকা অনুমোদন করেছে দিল্লির উচ্চ আদালত৷ একটি জনস্বার্থ মামলার ভিত্তিতে গঠিত বিশেষ কমিটির নির্দেশিকায় বলা হয়, নিগৃহীত শিশুর পরিচয় মিডিয়াকে গোপন রাখতে হবে৷

শিশু নিগ্রহের ঘটনাকে কেন্দ্র করে যেসব ফৌজদারি মামলা দায়ের করা হয়, এবং সংশ্লিষ্ট সেই শিশুর পরিচয় মিডিয়াতে যেভাবে তুলে ধরা হয়, তাতে আদালত যারপরনাই ক্ষুব্ধ৷ সমাজে শিশুরা হামেশাই শোষণ, যৌন নিগ্রহ, পাচার, জীবনের নিরাপত্তা, মানসিক পীড়ন এবং সংগঠিত অপরাধের শিকার হয়ে থাকে৷ সেটা সামাজিক ও মানসিক দিক থেকে আরো মারাত্মক হয়ে ওঠে যখন তা সবিস্তারে তুলে ধরা হয় মিডিয়াতে৷

সম্প্রতি জনৈক আইনজীবীর দায়ের করা জনস্বার্থ মামলার প্রেক্ষিতে দিল্লি হাইকোর্ট এক বিশেষ কমিটি গঠনের নির্দেশ দেয়৷ কমিটিতে ছিলেন জুভেনাইল জাস্টিস বোর্ড, জাতীয় শিশু সুরক্ষা অধিকার কমিশন, এনজিও, মিডিয়া ও ভারতের প্রেস কাউন্সিলের প্রতিনিধিরা৷ তাঁদের সুপারিশ করা নির্দেশিকায় বলা হয়, শিশুর পরিচয়, অর্থাৎ নামধাম, ঠিকানা, ছবি, স্কুলের নাম বা মা-বাবার পরিচয় ইত্যাদি যেন মিডিয়াতে তুলে ধরা না হয়৷ খবর হিসেবে প্রচার করার সময় যেন যথেষ্ট সাবধানতা অবলম্বন করা হয়৷ কারণ, এই সব শোষণের ঘটনা প্রচার করলে তাদের সামাজিক লজ্জা, মানসিক চাপ এবং আবেগ দারুণভাবে আহত হয়৷ মিডিয়ার উচিত শিশু সংক্রান্ত খবরাখবর প্রচার এবং মত প্রকাশ ও জানার অধিকারের মধ্যে একটা ভারসাম্য রাখা৷

Projekt Chileselust

শিশুদের প্রধান অধিকার চারটি৷ বেঁচে থাকার অধিকার, সুরক্ষার অধিকার, বিকাশের অধিকার এবং মতপ্রকাশের অধিকার

মালদার সহযোগিতা সমিতি নামে একটি শিশু সুরক্ষা এনজিও'র সভাপতি রবিশঙ্কর ঘোষ সে কথাই বললেন ডয়চে ভেলেকে৷ নিগৃহীত শিশু বৈষম্যের শিকার হয়৷ তার স্কুলে যাওয়ার অসুবিধা হয়, তাকে সমাজে রাখা মুশকিল হয়ে পড়ে৷ এমন কী তার বাবা-মাকেও নানা প্রশ্নের সন্মুখীন হতে হয়৷ এর জন্যই আদালত মনে করছে যে, কোথাও একটা নৈতিক বিধি লঙ্ঘিত হচ্ছে৷ মিডিয়া নিশ্চয় খবর করবে, কিন্তু তাদেরও একটা নীতি থাকা উচিত, কতটা বলবো, কতটা বলবো না৷

উল্লেখ্য, যে আইনজীবী জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেছিলেন তিনি দু'বছরের একটি শিশু কন্যাকে গুরুতর আহত অবস্থায় রাস্তা থেকে তুলে হাসপাতালে নিয়ে যান৷ শিশুটির মাথায় আঘাত, হাত পা ভাঙা, শরীরে মানুষের দংশনের চিহ্ন৷ পুরো ঘটনাটাই কিন্তু ইলেকট্রনিক সংবাদ মাধ্যমে প্রচার করা হয় ফলাও করে৷

তাই আমাদের মানসিকতার পরিবর্তন দরকার৷ শিশু অধিকার পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত করা চাই৷ শিশুদের প্রধান অধিকার চারটি৷ বেঁচে থাকার অধিকার, সুরক্ষার অধিকার, বিকাশের অধিকার এবং মতপ্রকাশের অধিকার৷ আর দরকার অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি৷ অথচ সে জায়গাটা দেশে খুব কম রয়েছে বলে মনে করেন তিনি৷

প্রতিবেদন: অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুন দিল্লি

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন