শিশুদের ভবিষ্যৎ গড়ছেন বিখ্যাত আপা শেরপা | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 26.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

নেপাল

শিশুদের ভবিষ্যৎ গড়ছেন বিখ্যাত আপা শেরপা

একুশবার এভারেস্টে ওঠা নেপালের আপা শেরপা এখন থাকেন যুক্তরাষ্ট্রে৷ তবে প্রতিবছর নেপালে গিয়ে শেরপা শিশুদের কল্যাণে কাজ করেন৷ আপা শেরপা চান, আজকের শিশুদের যেন ভবিষ্যতে তাঁর মতো বিপজ্জনক পথ বেছে নিতে না হয়৷

আপা শেরপার বয়স এখন ৫৯৷ যখন ছোট ছিলেন, তখন বড় হয়ে ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন৷ কিন্তু দারিদ্র্য আর সুযোগ-সুবিধার অভাবে সেই স্বপ্ন পূরণ করতে পারেননি তিনি৷ কারণ, সেই সময় তাঁর গ্রামের স্কুলে শুধুমাত্র দ্বিতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদান হতো৷ এরপর পাশের গ্রামের স্কুলে গিয়ে আরো দু'বছর লেখাপড়া করেছেন তিনি৷ তবে এজন্য তাঁকে প্রতিদিন ছয় ঘণ্টা পাহাড়ি পথে হাঁটতে হয়েছে৷ এরপর বাবা মারা যাওয়ায় পরিবার চালাতে ১২ বছর বয়সেই মাউন্ট এভারেস্টে উঠতে চাওয়া বিদেশিদের সেবায় কাজ শুরু করতে হয়েছিল আপা শেরপাকে৷

সেই থেকে শুরু৷ এরপর ৩০ বছর বয়সে প্রথম এভারেস্টের চূড়ায় ওঠেন তিনি৷ ক্রমেই এভারেস্টে ওঠার দক্ষ গাইড হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেছিলেন আপা শেরপা, যাঁকে পরবর্তীতে ‘সুপার শেরপা' নামে ডাকা হতো৷

এভাবে ২১ বার চূড়ায় উঠে ২০১১ সালে অবসরে যান আপা শেরপা - যা সেই সময় একটি রেকর্ড ছিল৷ অবশ্য তিনি ছাড়া ফুর্বা তাসি নামে আরেক শেরপাও ঐ রেকর্ডের মালিক ছিলেন৷ এভারেস্টে ওঠার এখনকার রেকর্ডের মালিক শেরপা কামি রিতা৷ সম্প্রতি তিনি এক সপ্তাহের ব্যবধানে দুই বার এভারেস্টের চূড়ায় উঠেছেন৷ সব মিলিয়ে তিনি ২৪ বার সেখানে গেছেন৷

ভিডিও দেখুন 01:25

এভারেস্টে শেরপা বিধবাদের অন্যরকম পরিকল্পনা

শিশুদের কল্যাণ

হতে চেয়েছিলেন চিকিৎসক৷ কিন্তু সুযোগের অভাবে পারেননি৷ তাই এভারেস্টের গাইডের মতো ঝুঁকিপূর্ণ পেশা বেছে নিতে হয়েছিল আপা শেরপাকে৷

এ অবস্থার পরিবর্তন চান তিনি৷ তাই আজকের শেরপা শিশুদের শিক্ষায় সহায়তা করছেন তিনি৷ এজন্য ২০১২ সালে নিজের নামে একটি ফাউন্ডেশন গড়ে তুলেছেন৷ এর মাধ্যমে শেরপা শিশুদের স্কুলের উন্নয়নে সহায়তা করা হয়৷

যেমন, আপা শেরপার নিজের গ্রামের স্কুলে আটজন শিক্ষক থাকার কথা থাকলেও সরকার মাত্র তিনজনের বেতন দিতে সমর্থ বলে জানিয়েছে৷ এক্ষেত্রে বাকি পাঁচ শিক্ষকের দায়িত্ব নিয়েছে ‘আপা শেরপা ফাউন্ডেশন'৷

এছাড়া শিশুদের পড়াশোনায় আগ্রহী করে তুলতে স্কুলে দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করা, কম্পিউটার, বই, কলম ও গরম কাপড়ের ব্যবস্থা করা - এসব কাজও করে থাকে আপা শেরপা ফাউন্ডেশন৷

আপা শেরপা বলেন, ‘‘শেরপাদের অন্য কাজ করার সামর্থ্য না থাকায় তাঁরা পরিবার চালাতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে৷ তাই আমার লক্ষ্য হচ্ছে, শিশুদের যেন ভবিষ্যতে আমাদের মতো পেশায় আসতে না হয়, সেই চেষ্টা করা৷''

নিজের শিশুদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে ২০০৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমিয়েছিলেন আপা শেরপা৷

জেডএইচ/এসিবি (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন