শিল্পের মাধ্যমে প্লাস্টিক দূষণ সম্পর্কে সচেতনতা | অন্বেষণ | DW | 08.11.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

শিল্পের মাধ্যমে প্লাস্টিক দূষণ সম্পর্কে সচেতনতা

প্লাস্টিকের যথেচ্ছ ব্যবহারের ফলে যে পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে, এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই৷ স্পেনের এক গোষ্ঠী শিল্পকে হাতিয়ার করে মানুষকে এই সমস্যা সম্পর্কে সচেতন করে তোলার চেষ্টা চালাচ্ছে৷

স্পেনের সৃজনশীল এক গোষ্ঠী ‘নট লংগার লাইফ’ নামের এক ফটো সিরিজ সৃষ্টি করেছে৷ এর আওতায় ‘স্টিল লাইফ’ শৈলির বিখ্যাত কিছু চিত্রকে আধুনিক যুগে ফুটিয়ে তোলা হচ্ছে৷ যেমন প্লাস্টিকের মোড়কে জড়ানো পচনশীল ফল৷ গোটা বিশ্বে মোড়কের বিশাল পরিমাণের প্রতি শৈল্পিক সমালোচনা হিসেবেই এই সিরিজ তুলে ধরা হচ্ছে৷

সুপারমার্কেটে প্রতিদিন বিশাল পরিমাণ জঞ্জাল সৃষ্টি হলেও ক্রেতাদের তা সহজে চোখে পড়ে না৷ এই শিল্পকর্ম তার প্রতি মনোযোগ আকর্ষণ করছে৷ স্থপতি খুয়ান সুয়ে-এর জন্য এটি অত্যন্ত জরুরি এক বিষয়৷ তিনি বলেন, ‘‘এই প্রকল্পের মাধ্যমে আমরা আজকের দিনে প্লাস্টিক ব্যবহারের যুক্তিহীনতা তুলে ধরতে চেয়েছিলাম৷ যুক্তিহীন ও মাত্রাতিরিক্ত পথে এই সব ফলমূল মোড়কে ভরে জীবনযাত্রা সহজ করতে চাই৷’’

বিখ্যাত শিল্পী ক্লোদ মোনে-র টমেটো নামের ছবিকে এভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে৷ কার্ভাজো-র ফলের ঝুড়ি আজ মোড়কসহ অন্যরকম দেখতে লাগছে৷

ভিডিও দেখুন 02:40

প্লাস্টিকের বিরুদ্ধে শৈল্পিক প্রতিবাদ

সবার আগে ৪ জন স্থপতি ইন্টারনেট ঘেঁটে ‘স্টিল লাইফ’ ছবির খোঁজ করেন৷ মিগেল টোমাস-এর মতে, সুপরিচিত শিল্পকর্ম বাছাই করা উচিত৷ তাঁর মতে, ‘‘আমরা এই সব বিখ্যাত স্টিল লাইফ বাছাই করি, কারণ আমরা চাই আগে থেকেই মানুষের মনে সেই ছবির স্মৃতি বজায় থাকুক৷ আমাদের তৈরি ছবি দেখলে মানুষ প্লাস্টিকসহ ও প্লাস্টিক ছাড়া বিকল্পের তুলনা করে শিউরে উঠতে পারে৷’’

প্রতি বছর প্রায় ৩০ কোটি টন প্লাস্টিক উৎপাদন করা হয়৷ তার বেশিরভাগ অংশই সমুদ্রে গিয়ে পড়ে৷ দোকানে গেলে মোড়কের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়৷ যেমন ফলমূল ও শাকসবজি বিভাগে৷ এখানে প্রয়োজনমতো উপকরণ দেখা যায়৷ খুয়ান সুয়ে মনে করেন, সব পণ্য তাঁদের প্রকল্পের জন্য উপযুক্ত নয়৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা সুপারমার্কেটে আসছিলাম৷ মোবাইল ফোনে দেখে নিলাম, পণ্যগুলি মূল চিত্রের মতো দেখতে কিনা৷ ঠিক কী ধরনের মোড়ক রয়েছে তাও পরীক্ষা করি, যাতে তার থ্রিডি মডেল সৃষ্টি করা যায়৷’’

স্টুডিওয় ফিরে তাঁরা ১৬০২ খ্রীষ্টাব্দে আঁকা খুয়ান সানচেস কোটান-এর বাঁধাকপি, তরমুজ ও শসার চিত্রের অনুকরণে সৃষ্টির কাজে মেতে ওঠেন৷ মনে রাখতে হবে, সে যুগে কিন্তু প্লাস্টিক ছিল না৷

তাঁরা নিজেদের তৈরি থ্রিডি স্ক্যানার ব্যবহার করে খাদ্যের ছবি তোলেন৷ তারপর খাবার সরিয়ে সহজ আকার-আকৃতি সৃষ্টি করেন৷ তারপর থ্রিডি সফটওয়্যারের সাহায্যে তাঁরা প্লাস্টিক দিয়ে খাবার ঢেকে দেন ও এমনভাবে সাজিয়ে তোলেন, যাতে সেটি মূল চিত্রকর্মের মতো দেখতে লাগে৷

টেওডোরা মাভ্রোপুলুস/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন