শিল্পের প্রদর্শনী, না খেলার মাঠ? | অন্বেষণ | DW | 25.07.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

শিল্পের প্রদর্শনী, না খেলার মাঠ?

শিল্পবোদ্ধা না হলে শিল্পের প্রদর্শনীতে যেতে অনেকের মনে সংকোচ হতে পারে৷ অস্ট্রিয়ার এক অভিনব প্রদর্শনীতে দর্শকরা শিশুদের মতো খেলাচ্ছলে শিল্পকর্মগুলির স্বাদ পেতে পারেন৷ এমন অভিজ্ঞতা তাঁদের ভাবতে বাধ্য করে৷

লিনৎস শহরে একাধিক ভবনের ছাদজুড়ে শিল্পের প্রদর্শনী চলছে, যার পোশাকি নাম ‘ইন্দ্রিয়র নেশা – শিল্প ও গতিশীলতা'৷ সেখানে প্রাপ্তবয়স্করাও আবার শিশু হয়ে উঠতে পারেন৷ এখানে শিল্প শুধু দেখা যায় না, ছোঁয়াও যায়৷ বস্তুগুলির উপর চড়া যায়, সেগুলি নিয়ে খেলা করা যায়, ইচ্ছামতো নাচা যায়৷

‘লিনৎসের নল'  নামের শিল্পকর্ম বিশেষ নজর কাড়ছে৷ নীল জাল দিয়ে তৈরি এই বস্তুটি ছাদের ইস্পাতের কাঠামোর কল্যাণে সীমা ছাড়িয়ে ছড়িয়ে পড়ছে৷ ক্রোয়েশিয়া ও অস্ট্রিয়ার এক শিল্পীসংঘ ৬ দিনের মধ্যে প্রায় ৩,০০০ মিটার তার ও ১,০০০ মিটারেরও বেশি নায়লনের জাল সৃষ্টি করেছে৷ অস্ট্রিয়ার ক্রিস্টফ কাৎসলার এই সংঘের তিনজন প্রতিষ্ঠাতার একজন৷ ক্রিস্টফ বলেন, ‘‘ফ্রাংকফুর্ট শহরের একটি গ্যালারিতে আমরা এই ধারার অন্যতম প্রথম প্রদর্শনীর আয়োজন করেছিলাম৷ দর্শকদের প্রতিক্রিয়া ছিল অসাধারণ৷ এই অভিজ্ঞতা, এই আনন্দ, এই উৎসাহ আমাকে সত্যি অত্যন্ত নাড়া দিয়েছিল৷ তখনই এ রকম আরও স্পেস বা শিল্পের ক্ষেত্র সৃষ্টি করার আইডিয়া মাথায় এসেছিল৷''

ভিডিও দেখুন 03:48

শিল্পের প্রদর্শনী, না খেলার মাঠ?

‘লিনৎসের নল'-এর ঠিক পাশেই ‘সমবেত আলোকপাত' নামের আরেকটি ইনস্টলেশন শোভা পাচ্ছে৷ দর্শকরা লাল রঙের কাপড়ের এই জঙ্গলে খেলাচ্ছলে হারিয়ে যেতে এবং পরস্পরকে আবার খুঁজে নিতে পারেন৷ স্ক্যান্ডিনেভিয়ার ‘আর্জেন্ট এজেন্সি' এটি সৃষ্টি করেছে৷ তাঁরা ডিজাইন ও সংস্কৃতির বিশ্লেষণের মধ্যে মেলবন্ধন ঘটাতে চেয়েছেন৷ লিনৎস শহরের প্রদর্শনীর জন্যই আলাদা করে এই ইনস্টলেশন সৃষ্টি করা হয়েছে৷ দর্শনের ছাত্র হিসেবে ক্রিস্টিয়ান পাগ মনে করেন, ‘‘একটি অনুভূতি হতে বাধ্য৷ এ যেন বাতাস ও সূর্যের সঙ্গে খেলা৷ রোদ উঠলে ফ্যাব্রিক বা কাপড়ের মধ্যে তা আরো লক্ষ্য করা যায়৷ অন্যদিকে এই শিল্পকর্ম আত্ম প্রতিফলন ও সমবেতভাবেও সেই প্রতিফলনে প্রেরণা জোগায়৷''

একাধিক সংঘ ও ২০ জনেরও বেশি শিল্পী এই প্রদর্শনীর খেলার উপকরণ সরবরাহ করেছেন৷ আল্ডো জানোটি সেই খেলার নির্দেশিকা সৃষ্টি করেছেন৷ প্রদর্শনী ক্ষেত্রের মধ্যে ছোট ছোট স্কেচের মাধ্যমে তিনি ইনস্টলেশনগুলি সম্পর্কে মন্তব্য রেখেছেন৷ এভাবে তিনি গোটা প্রদর্শনীটিকে একই সূত্রে বেঁধেছেন৷ আল্ডো বলেন, ‘‘সব সময়ই ইন্টারঅ্যাকশন বা আদানপ্রদান ঘটছে৷ শুধু শারীরিক নয়, ইন্টারঅ্যাকশনের অর্থ মস্তিষ্ক, কোনো ছবি বা কোনো কনসেপ্ট বা ধারণার সঙ্গে বোঝাপড়াও হতে পারে৷ অর্থাৎ ইন্টারঅ্যাকশন ছাড়া শিল্পই সম্ভব নয়৷''

এই প্রদর্শনীর দর্শকরা শুধু শারীরিকভাবেই শিল্পের জগতের সঙ্গে একাত্ম হচ্ছেন না৷ বেশ কয়েকটি শিল্পকর্ম ছলে-বলে-কৌশলে নতুন দৃষ্টিকোণ খুলে দিচ্ছে৷ ফলে দর্শকদের অবস্থান সত্যি আক্ষরিক ও রূপক অর্থেও বদলে যাচ্ছে৷

ইয়োসেফিন গ্যুন্টার/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন