শিল্পকলা যখন প্রকৃতির কাছ থেকে শেখে | অন্বেষণ | DW | 24.10.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

শিল্পকলা যখন প্রকৃতির কাছ থেকে শেখে

ফ্রান্সের নঁসি শহরে রয়েছে স্থানীয় শিল্পীদের শিল্পকলার সংগ্রহশালা এবং তার কাছেই নঁসির বটানিক্যাল গার্ডেন৷ উভয়ের যোগসূত্র হলো, শিল্প কীভাবে প্রকৃতির কাছ থেকে প্রেরণা পায়৷

লুসি কলো একোল দ্য নঁসি মিউজিয়ামে কাজ করেন৷লুসি দেখালেন, ‘‘এমিল গালে-র একটি অপূর্ব সৃষ্টি এখানেই রয়েছে: গোলাপ ফুল আঁকা একটি ফুলদানি৷ ফুলের বোঁটা, পাপড়ি, গোটা ফুলটাই দেখা যাচ্ছে৷ ফুলদানিটাই যেন একটি গোলাপ ফুল হয়ে দাঁড়িয়েছে৷''

ফরাসি ‘আর নুভো' বা ‘নিউ আর্ট' শৈলির শিল্পকলার একজন প্রথম সারির প্রতিনিধি ছিলেন এমিল গালে৷ তিনি ফরাসি উদ্ভিদবিজ্ঞান সমিতির সদস্য ছিলেন ও প্রায়ই তাঁর জন্মের শহর নঁসির বটানিক্যাল গার্ডেনে বেড়াতে আসতেন৷

‘আমার শিকড় বনে'

করিম বেনকেলিফা আজ এখানে উদ্ভিদ বিশেষজ্ঞ৷ করিম বলেন, ‘‘বিংশ শতাব্দীর সূচনায় নতুন নতুন প্রজাতির ফুল ও গাছপালা সৃষ্টিতে নঁসি বিশ্বের সেরা শহরগুলির মধ্যে অন্যতম ছিল৷ এখানকার সব শিল্পীরাই প্রকৃতি থেকে প্রেরণা নিতেন৷ এমিল গালে তো একবার বলেছিলেন, ‘‘আমার শিকড় বনে৷'' সে আমলে লোরেন এলাকায় যাবতীয় যা নতুন প্রজাতি সৃষ্টি হয়েছে, বটানিক্যাল গার্ডেনে তা দেখতে পাওয়া যাবে৷'' 

সিলভ্যাঁ অ্যাঁসেল্যাঁ আঁকা শেখান৷ আজও বহু কলাপ্রেমী বটানিক্যাল গার্ডেনে আসেন৷ অ্যাঁসেল্যাঁ মাসে দু'বার বিভিন্ন পদ্ধতিতে ছবি আঁকার ক্লাস করেন৷ আর্নো দিদঁ আঁকার সময় ডটপেন ব্যবহার করেন৷ সিলভ্যাঁ আর্নোকে বললেন, ‘‘এখানটা আর একটু বেশি সাদা হওয়া উচিত ছিল, কেননা পাশ থেকে এখানে আলো পড়ছে৷ তোমারটায় বড় অন্ধকার দেখাচ্ছে৷''

আর্নো দিদঁ আঁকা শিখছেন৷ আর্নো বললেন, ‘‘আমি এই ফুলগাছটাকে ভালোবাসি – আইরিস, শ্বেতদুর্বা৷ পেশায় আমি ল্যান্ডস্কেপ প্ল্যানার – আগে প্রকল্পটার ছবি এঁকে, পরে সেটাকে বাস্তবায়িত করি৷''

বাগানের শান্ত পরিবেশে সময় কাটে অজান্তে৷ ইসাবেল জারম্যাঁ বললেন,‘‘ছবি আঁকতে আঁকতে মানসিক চাপ কমে যায়৷ মাঝেমধ্যে আবার সুন্দর একটা আঁকা হয়: সেটাও খারাপ নয়৷'' ২৭ হেক্টর জমি জুড়ে এই বটানিক্যাল গার্ডেনে মোট ১২,০০০ প্রজাতির গাছপালা আছে৷ হটহাউসগুলিতে কিছু বিরল উদ্ভিদের নমুনা দেখালেন করিম বেনকেলিফা – নঁসির শিল্পীরা যে সব গাছপালা দেখে উদ্বুদ্ধ হতেন, তাদের কিছু কিছু এখানেও রাখা আছে৷ করিম বললেন, ‘‘শিল্পীদের বিশেষ পছন্দ ছিল অর্কিড, এমিল গালে-র ফুলদানিগুলিতেও অর্কিড পাওয়া যাবে৷ অর্কিড একটা দারুণ ফুল, মনমাতানো অথচ খুবই জটিল; নানা আকার ও আকৃতির৷ সত্যিই অদ্ভুত৷''

বটানিক্যাল গার্ডেন দেখার পর নঁসি ঘরানার শিল্পীদের সংগ্রহশালায় তাঁদের শিল্পকীর্তি সম্পূর্ণ অন্য চোখ দিয়ে দেখা যাবে৷ এভাবেই নঁসিতে প্রকৃতির সৌন্দর্যকে বিভিন্ন রূপে তুলে ধরা হয়েছে৷

এফা হাসেল ফন পক/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন