শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করলেই করোনা থেকে বাঁচা যাবে না | বিশ্ব | DW | 16.03.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করলেই করোনা থেকে বাঁচা যাবে না

সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে৷ অনেক দেশই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ তবে বাংলাদেশ অনেক দিক থেকেই আলাদা, তাই শিক্ষার্থীদের বড় একটা অংশ ও তাদের অভিভাবকেরা যে নতুন সংকটে পড়বেন তাতে কোনো সন্দেহ নেই৷

বিশেষ করে ছোট-বড় সব স্কুলপড়ুয়াকে ঘরে রাখা যে কঠিন হবে সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই৷ কী আছে ঘরে? অবসর বিনোদনের কী ব্যবস্থা রয়েছে বাংলাদেশের ঘরে ঘরে? কম্পিউটারের সামনে পড়ে থাকার ব্যবস্থা? তা-ই বা কত শতাংশ স্কুলপড়ুয়ার ঘরে আছে? তাছাড়া লম্বা সময় ধরে কম্পিউটারের সামনে থাকাও তো স্বাস্থ্যের জন্য, মননের জন্য ভালো নয়৷ ক্যারম, দাবা, লুডু, বাগাডুলি, টেবিল টেনিসের মতো ঘরের ভেতরে খেলার উপযোগী খেলার সুযোগ এবং চর্চা কোনোটাই প্রায় নেই বললেই চলে৷

তাহলে?

৩১ মার্চ পর্যন্ত ঘরে কীভাবে সময় কাটাবে স্কুলের শিক্ষার্থীরা? মা-বাবা কীভাবে ঘরে রাখবেন তাদের?

প্রশ্নগুলো খুব গুরুত্বপূর্ণ, কারণ, করোনা থেকে নিরাপদ দূরত্বে থাকতে শিক্ষার্থীরা যাতে ভিড় এড়াতে পারে সে কারণেই সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার৷

স্কুল পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে দুশ্চিন্তা অনেক বেশি, কারণ, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় বা সেই পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অনেক বেশি সচেতনতা আশা করা যায়৷ সেই তুলনায় স্কুল, মাদ্রাসার ছোট ছোট শিক্ষার্থীদের বয়স এবং সচেতনতা স্বাভাবিক অবস্থায় অনেক কম৷

এমন নয় যে এই সমস্যাটা শুধু বাংলাদেশের৷ জার্মানিসহ ইউরোপ এবং ইউরোপের বাইরের অনেক দেশেই এখন স্কুল বন্ধ৷ এসব দেশের মধ্যে অনেকগুলোতেই ঘরে বিনোদনের ব্যবস্থাও রয়েছে৷ তারপরও কিছু শিক্ষার্থীর মাঝে করোনার কারণে পাওয়া ছুটি ঘরের বাইরে কাটানোর প্রবণতা দেখা যাচ্ছে৷

Ashish Chakraborty

আশীষ চক্রবর্ত্তী, ডয়চে ভেলে

এই প্রবণতা বাস্তবিক কারণেই বাংলাদেশে যে অনেক বেশি হবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই৷

এই মুহূর্তে ঘরে ঘরে বিনোদনের ব্যবস্থা করা বা কারো পক্ষে করে দেয়া তো সম্ভব নয়৷ তাই বই পড়ায় সবাইকে উৎসাহিত করার উদ্যোগ খুব দরকার৷ শিক্ষা মন্ত্রণালয় এই সময়ে করোনা এবং বিনোদন ও শিক্ষামূলক ভিডিও প্রচারের বিশেষ উদ্যোগও নিতে পারে৷

এছাড়া সবার সচেতনতা বৃদ্ধির প্রয়াস জোরদার করাও জরুরি৷ নইলে অনেক অভিভাবক সন্তানকে নিয়ে বেড়ানোর পরিকল্পনাও করতে পারেন৷ তাতেও বিপর্যয়ের শঙ্কা বাড়াবে৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন