শিক্ষায় ক্যাডার, নন-ক্যাডার প্রশ্নে বিরোধ | বিশ্ব | DW | 28.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

শিক্ষায় ক্যাডার, নন-ক্যাডার প্রশ্নে বিরোধ

বেসরকারি কলেজ সরকারি করার পর, সেখানকার শিক্ষকরা বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারে অন্তর্ভুক্ত হবেন কিনা, তা নিয়ে চলছে বিতর্ক৷ বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে আসা সদস্যরা এর বিরুদ্ধে৷ তবে বেসরকারি শিক্ষকদের মতে, এটা হীনমন্যতা৷

বাংলাদেশে ২৮৩টি বেসরকারি কলেজকে সরকারি (জাতীয়করণ) করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয় গত এপ্রিল মাসে৷ এর আগেও ধাপে ধাপে কিছু বেসরকারি কলেজকে সরকারি করা হয়েছে৷ এত বেশি সংখ্যক কলেজ একসঙ্গে সরকারি করার সিদ্ধান্ত এই প্রথম৷ এছাড়া এ পর্যন্ত ৫৩টি কলেজ সরকারি করার চূড়ান্ত আদেশ জারি হয়েছে৷ সেখানকার শিক্ষকরাও ক্যাডারভুক্ত হয়েছেন৷ পর্যায়ক্রমে বাকিগুলোর ব্যাপারেও আদেশ জারি হবে৷ আর এতেই আপত্তি সরকারি কলেজে কর্মরত বিসিএস (বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস) ক্যাডারভুক্ত শিক্ষকদের৷ তাঁদের কথা, ‘‘বেসরকারি শিক্ষকদের সরকারি করা হোক৷ সুযোগ-সুবিধা দেয়া হোক৷ তাতে আমাদের কোনো আপত্তি নাই৷ তবে তাঁরা বিসিএস পরীক্ষা না দিয়েই বিসিএস ক্যাডারভুক্ত হবেন, এটা আমরা মানতে পারি না৷''

দেশে বর্তমানে ১৫ হাজারের বেশি ক্যাডারভুক্ত শিক্ষক রয়েছেন৷ তাঁদের মধ্যে ১৩ হাজার বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের এবং দু'হাজার এর আগে বিভিন্ন সময় জাতীয়করণকৃত কলেজের আত্মীকৃত শিক্ষক৷

বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির সভাপতি অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খন্দকার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘সরকার এবার প্রতিটি উপজেলায় একটি করে মোট ২৮৩টি কলেজ জাতীয়করণ করছে৷ এতে করে ১৫-১৬ হাজার বেসরকারি শিক্ষক সরকারি হবেন৷ তাঁদের যদি ক্যাডারভুক্ত করা হয়, তাহলে আমরা যাঁরা প্রকৃতই বিসিএস ক্যাডার, তাঁরা কোণঠাসা হয়ে পড়বো, মাইনরিটি হয়ে পড়বো৷ আমাদের পদ, পদোন্নতি, সিনিয়রিটি – এ সব বিষয় নিয়ে আমরা জটিলতায় পড়বো৷ এই জটিলতায় মামলা-পাল্টা মামলা হবে৷ এটা ন্যায়নীতি বিরোধী৷ কারণ আমরা পাবলিক সার্ভিস কমিশনের প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার মাধ্যমে বিসিএস ক্যাডার হয়েছি৷''

অডিও শুনুন 05:17
এখন লাইভ
05:17 মিনিট

‘আমাদের দাবি আদায় না হলে আমরা আরো কঠোর কর্মসূচি দেবো’

তিনি বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নতুন যেসব কলেজ সরকারি হবে তার শিক্ষকরা ঐ কলেজেই থাকবেন৷ বদলি হবেন না৷ প্রধানমন্ত্রীর এই কথাতেই ইঙ্গিত আছে যে, তাঁরা বিসিএস ক্যাডার হবেন না৷ ক্যাডার হলে তো বদলির বিষয় থাকত৷ তাছাড়া ২০১০ সালের শিক্ষা নীতিতেও বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের সিনিয়রিটি ও তাঁদের স্বার্থ অক্ষুণ্ণ রাখার কথা বলা হয়েছে৷''

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘আমরা এ মাসে দু'দিন ( ২৬ ও ২৭ নভেম্বর) কর্মবিরতি পালন করেছি৷ ডিসেম্বর মাস যেহেতু বিজয়ের মাস, তাই ঐ মাসে কোনো কর্মসূচি দেইনি৷ জানুয়ারি মাসের ৬, ৭ ও ৮ তারিখে ফের কর্মবিরতিতে যাব৷ তাতেও যদি আমাদের দাবি আদায় না হয়, তাহলে আমরা আরো কঠোর কর্মসূচি দেবো৷''

তাঁর কথায়, ‘‘কলেজ জাতীয়করণ হোক তাতে আমাদের কোনো সমস্যা নেই৷ তাঁদের বেতন-ভাতাসহ আমাদের মতো অন্যান্য সুবিধা দিলেও আপত্তি নেই৷ আমাদের দাবি, ঐ সব শিক্ষককে নন-ক্যাডার মর্যাদায় রাখতে হবে৷ তাঁদের বদলি করা যাবে না এবং পদোন্নতির পদ্ধতিতেও পরিবর্তন আনতে হবে৷ এ জন্য আলাদা একটি বিধিমালা জারি করতে হবে৷''

অন্যদিকে জাতীয়করণের আওতাভুক্ত শিক্ষকরা বলছেন, সুনির্দিষ্ট যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার ভিত্তিতেই তাঁদের ক্যাডারভুক্ত করার কথা বলা হয়েছে৷ কলেজ জাতীয়করণের আদেশ ২০০০-এ এ কথা উল্লেখ আছে৷ তাই তাঁরা মনে করেন, বিসিএস পরীক্ষা দিয়ে না এলেও বিসিএস ক্যাডারদের চেয়ে তাঁদের অভিজ্ঞতা কম নয়৷''

জাতীয়করণকৃত কলেজ শিক্ষক সমিতির সভাপতি জহুরুল ইসলাম বলেন, ‘‘বাংলাদেশে মাত্র তিনটি কলেজ সরকারি ছিল৷ ১৯৭৮ সাল থেকে কলেজ জাতীয়করণ হচ্ছে৷ এরপর পর্যায়ক্রমে ২০০টি কলেজ সরকারি হয়েছে৷ ঐ সব কলেজের শিক্ষকরা ক্যাডার হিসেবেই নিয়োগ পেয়ে আসছেন৷ তবে এখন এটা নিয়ে কথা উঠছে কেন? যাঁরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিটি উপজেলায় কমপক্ষে একটি করে সরকারি কলেজ স্থাপনের বিরোধী, তাঁরাই এখন এ সব কথা বলছেন৷''

অডিও শুনুন 06:29
এখন লাইভ
06:29 মিনিট

‘আমাদের যদি নন ক্যাডার করা হয় তাহলে তা হবে বৈষম্যমূলক’

তিনি বলেন, ‘‘২০০০ বিধি অনুযায়ী, যেসব বেসরকারি কলেজ সরকারি কলেজ হিসেবে আত্মীকৃত হবে, সেসব কলেজের শিক্ষকরাও বিসিএস শিক্ষা ক্যাডার হিসেবে আত্মীকৃত হবে৷ সরকারের এবারের সিদ্ধান্তে বিসিএস শিক্ষায় নতুন ১৫ হাজার পদ সৃষ্টি হবে৷ কিন্তু এঁদের এই বিরোধিতার কারণে নতুন পদ সৃষ্টি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে৷ এই ১৫ হাজার শিক্ষকের বড় একটি অংশ ৫-৬ বছরের মধ্যে অবসরে চলে যাবেন৷ তখন নতুনদের জন্য বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারে চাকরির সুযোগ সৃষ্টি হবে৷''

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘২০১০ সালের শিক্ষানীতিতে বেসরকারি কলেজের শিক্ষকরা সরকারি কলেজের শিক্ষক হলে তাঁদের নন ক্যাডার করার কথা বলা হয়নি৷ বলা হয়েছে, শিক্ষা ক্যাডারের অধিকার সংরক্ষণের কথা৷ তাঁদের কোনো অধিকার কেটে তো আমাদের দেয়া হবে না৷ আমাদের যা দেবে সরকার দেবে, রাষ্ট্র দেবে৷ তাতে তাঁদের আপত্তির কোনো কারণ থাকতে পারে না৷''

তিনি আরো বলেন,‘‘আমাদের যদি নন ক্যাডার করা হয় তাহলে তা হবে বৈষম্যমূলক৷একই কলেজে একই সিলেবাসে পড়াবেন আর দু'জন শিক্ষকের মর্যাদার বৈষম্য হবে, এটা তো হয় না৷''

মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ওয়াহিদুজ্জামান এ নিয়ে ডয়চে ভেলের কাছে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি৷ তিনি শুধু বলেন, ‘‘এটা মন্ত্রণালয়ের বিষয়৷'' এদিকে এই সংকট নিয়ে শিক্ষামন্ত্রণালয় আনুষ্ঠানিক কোনো বক্তব্য এখনো দেয়নি৷ তবে গত রবিবার এ নিয়ে একটি বৈঠক হয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে৷

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে এখন সরকারি কলেজ ৩১৫টি৷ আর সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আরো ২৮৩টি কলেজ সরকারি হলে মোট সরকারি কলেজ হবে ৫৯৮টি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন