শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তি চান ছাত্রীদের একাংশ | বিশ্ব | DW | 07.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তি চান ছাত্রীদের একাংশ

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যায় ‘প্ররোচণা’ দেয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার শিক্ষক হাসনা হেনার মুক্তির দাবি জানিয়েছেন একদল শিক্ষার্থী৷

শুক্রবার দুপুরে তাঁরা বেইলি রোডে স্কুলের প্রধান ফটকের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন৷

এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেলেও একদল শিক্ষার্থী হাসনা হেনার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ করেন৷ শনিবারও কর্মসূচি পালন করা হবে বলে জানানো হয়েছে৷

‘ভিকারুননিসা স্কুল অ্যান্ড কলেজের বর্তমান ও প্রাক্তন ছাত্রীবৃন্দ’ ব্যানারে শুক্রবারের অবস্থান কর্মসূচি পালিত হয়৷ সেখানে উপস্থিত একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী রোজ বাংলাদেশে ডয়চে ভেলের কন্টেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘‘যে শিক্ষককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে উনি কোনোভাবে অরিত্রীর ঘটনায় দায়ী নন৷ উনার নাম কোনোভাবেই ঘটনার সঙ্গে আসেনি৷ উনি পরিস্থিতির শিকার বলে আমরা মনে করছি৷’’

রোজের সঙ্গে বিক্ষোভে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা অরিত্রীর মৃত্যুর ঘটনায় ‘সুষ্ঠু বিচারও চায়’ বলে জানিয়েছেন তিনি৷ ‘‘কোনো শিক্ষিকা যেন অন্যায়ভাবে হয়রানির শিকার না হন, আমরা সেটাও চাচ্ছি,’’ বলেন রোজ৷

বিভিন্ন স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড নিয়ে অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা৷ যেমন ‘দোষীদের বিচার করতে গিয়ে নির্দোষের শাস্তি কেন?’, ‘অরিত্রী আমাদের বোন, শিক্ষক হাসনা হেনা আমাদের মা৷ নির্দোষের নিঃশর্ত মুক্তি চাই’ ইত্যাদি৷

এছাড়া তাঁরা ‘আমার মায়ের মুক্তি চাই’, ‘আমার মা নির্দোষ’, ‘আমার মায়ের অপমান, মানবনা, মানবনা’ ইত্যাদি স্লোগানও দেন৷ কর্মসূচি চলে প্রায় দুই ঘণ্টা৷

উল্লেখ্য, ভিকারুননিসার নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী গত সোমবার আত্মহত্যা করেন৷ বার্ষিক পরীক্ষার সময় তাঁর কাছে মোবাইল ফোন পাওয়ার পর স্কুলের অধ্যক্ষ তাঁর বাবা-মাকে ডেকে নিয়ে ‘অপমান করায়’ তিনি আত্মহত্যা করেন বলে অভিযোগ৷

স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি, মোবাইল ফোনে নকলসহ ধরা পড়েছিলেন অরিত্রী

আটক হাসনা হেনা অরিত্রীর ক্লাস টিচার৷ অরিত্রীর বাবার দায়ের করা মামলায় যে তিনজনকে আসামি করা হয়েছে তাঁদের মধ্যে তিনি একজন৷ বাকি দুজন হচ্ছেন স্কুলের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস ও প্রভাতী শাখার প্রধান জিনাত আখতার৷

জেডএইচ/এসিবি (বিডিনিউজ, বাংলা ট্রিবিউন)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন