শিক্ষক-হত্যা: ফ্রান্সে ছয় মাসের জন্য বন্ধ একটি মসজিদ | বিশ্ব | DW | 21.10.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ফ্রান্স

শিক্ষক-হত্যা: ফ্রান্সে ছয় মাসের জন্য বন্ধ একটি মসজিদ

নিহত শিক্ষকের নিন্দা করে ভিডিও আপলোড করেছিল ফ্রান্সের একটি মসজিদ। তাই ছয় মাসের জন্য তা বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে।

মহানবী হযরত মোহাম্মদ(সাঃ)-র কার্টুন দেখিয়ে মত প্রকাশের স্বাধীনতা ব্যাখ্যা করেছিলেন প্যারিসের স্কুল শিক্ষক ,স্যামুয়েল প্যাটি। সে জন্য তাঁকে নৃশংসভাবে খুনকরা হয়েছে। সেই হত্যার পর ফ্রান্স জুড়ে চরমপন্থীদের বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযান চলছে। তারই অঙ্গ হিসাবে বন্ধ করে  দেয়া হচ্ছে উত্তর পূর্ব প্যারিসের প্যানটিন মসজিদ। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক মঙ্গলবারই মসজিদটি ছয় মাস বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে।

শিক্ষক প্যাটি কার্টুন দেখানোর পরই মসজিদ থেকে তার নিন্দা করে একটি ভিডিও শেয়ার করা হয়। সে জন্যই ছয় মাসের জন্য মসজিদটি সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিচ্ছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। মন্ত্রক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, বুধবার রাত থেকে মসজিদটি বন্ধ হয়ে যাবে। এখানে দেড় হাজারের মতো মুসলিম নামাজ পড়তেন। বলা হয়েছে, মসজিদ সাময়িকভাবে বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়ার একমাত্র উদ্দেশ্য হলো সন্ত্রাস ঠেকানো।

যে ভিডিওটি মসজিদ থেকে শেয়ার করা হয়েছিল, তা প্যাটিরই এক ছাত্রের বাবার করা। সেই ভিডিওতে শিক্ষককে দুবৃত্ত আখ্যা দিয়ে বলা হয়েছিল, তিনি মুসলিম ছাত্রদের বেছে নিয়ে অপমান করছেন।

ইমামের প্রতিক্রিয়া

মসজিদের ইমাম সংবাদসংস্থা এএফপি-কে জানিয়েছেন, ওই ভিডিও শেয়ার করার জন্য তিনি ক্ষমাপ্রার্থী। কিন্তু তিনি তা করেছিলেন মুসলিম ছাত্রদের কথা ভেবে। মসজিদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ইসলামে হিংসার কোনো স্থান নেই। যে ভাবে শিক্ষককে হত্যা করা হয়েছে তা নিন্দনীয়।

শিক্ষক হত্যার পরই ফ্রান্সজুড়ে পুলিশি অভিযান শুরু হয়। এখনো পর্যন্ত ৪৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ওই ভিডিওর নির্মাতাকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। স্কুলের চারজন ছাত্রকেও ধরা হয়েছে। পুলিশ বিশেষ করে শিক্ষক-হত্যার আগে যে সব ঘৃণা ভরা মেসেজ সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করা হয়েছে, তা খুঁজে বের করছে। চরমপন্থীদের নেটওয়ার্কের সন্ধান করছে।

ফ্রান্সের শিক্ষামন্ত্রী ঘোষণা করেছেন, ওই শিক্ষককে দেশের সর্বোচ্চ সম্মান লিজিয়ন অফ অনার দেয়া হবে। তিনি প্যাটিকে 'শহিদ' আখ্যা দিয়েছেন।

জিএইচ,এসজি(এএফপি, রয়টার্স)

বিজ্ঞাপন