শহিদুল আলম কি জামিন পাবেন? | বিশ্ব | DW | 11.09.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

শহিদুল আলম কি জামিন পাবেন?

ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের পর এবার মহানগর দায়রা জজ আদালতও শহিদুল আলমের জামিন আবেদন নাকচ করলেন৷ এরপর উচ্চ আদালতে জামিন আবেদন করা ছাড়া আর কোনো পথ নেই৷ প্রশ্ন হচ্ছে, সেখানে কি তার জামিন মিলবে?

মঙ্গলবার মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েস শহিদুল আলমের জামিন আবেদন না মঞ্জুর করেন৷ তবে লিখিত আদেশের অনুলিপি ছাড়া জামিন আবেদন নাকচ করার কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারছেন না তার আইনজীবীরা৷ এর আগে গত ৫ আগস্ট তাঁকে গ্রেপ্তারের পর আদালতে হাজির করার প্রথম দিনেই মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেটের কাছে জামিনের আবেদন করা হয়েছিল৷ তখনও জামিন দেননি আদালত৷ এর পর মহানগর দায়রা জজ আদালতে জামিনের আবেদন ঝুলে ছিল৷

আর জামিন না পেয়ে মহানগর দায়রা জজ আদালতের আদেশের আগেই গত সপ্তাহে হাইকোর্টে আবেদন করেছিলেন শহিদুলের আইনজীবীরা৷ শুনানিতে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ বিব্রত হলে প্রধান বিচারপতি  আরেকটি বেঞ্চ নির্ধারণ করে দেন৷ আর সেই বেঞ্চ নিজে জামিনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত না নিয়ে মহানগর দায়রা জজ আদালতকে মঙ্গলবারের ( ১১ সেপ্টেম্বর) মধ্যে জামিন আবেদনের নিস্পত্তি করার আদেশ দেন৷ মহানগর দায়রা জজ আদালত শহীদুল আলমকে জামিন না দিয়েই নিষ্পত্তি করলেন৷

অডিও শুনুন 03:52
এখন লাইভ
03:52 মিনিট

‘চাইলে হাইকোর্টই জামিনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারতেন’

শহিদুলের আইনজীবী ব্যারিস্টার সারা হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন,‘‘ চাইলে হাইকোর্টই জামিনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারতেন৷ কিন্তু তাঁরা তা করেননি৷  তাঁদের এটা নিস্পত্তির ক্ষমতা ছিল৷আবার দায়রা জজ আদালতে পাঠানোর দরকার ছিল না৷ কিন্তু তাঁরা তা করলেন৷ হাইকোর্টতো আর জামিন দিতে বলেননি৷ নিষ্পত্তি করতে বলেছেন৷এখন কী কারণে দায়রা জজ শহিদুল আলমকে জামিন  দিলো না, তা জানতে আমাদের আদেশের লিখিত কপি পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে৷ আদালত জামিন বাতিলের সময় মুখে এ বিষয়ে কিছু বলেননি৷''

সারা হোসেন আরো বলেন, ‘‘এখন আমাদের আবার হাইকোর্টে জামিন আবেদন নিয়ে যেতে হবে৷ আমরা যাব৷ তবে কতদূর ঘুরতে হবে তা জানি না৷''

শহিদুল আলমকে গ্রেপ্তারের পর৬ আগস্ট তাঁর বিরুদ্ধে তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা দেয়া হয়৷ দায়রা জজ আদালতে মঙ্গলবার জামিন শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষ তাঁর জামিনের তীব্র বিরোধিতা করে৷ আদালতে প্রধান সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) আবদুল্লাহ আবু বলেন, ‘‘শহিদুল আলম যে বক্তব্য দিয়েছেন, তাতে তাঁর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হওয়া উচিত৷ নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক বক্তব্য দিয়েছেন৷ জঘন্য অপরাধ করেছেন শহিদুল আলম৷''

অডিও শুনুন 03:22
এখন লাইভ
03:22 মিনিট

‘আমরা আদালতকে বলেছি, তাঁর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ, তা মিথ্যা এবং সাজানো’

সারা হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘রাষ্ট্রপক্ষ বলছে, শহিদুল আলমের বক্তব্য রাষ্ট্রের সুনাম ক্ষুন্ন করেছে৷ কিভাবে করেছে? কেউ কি সরকারের সমালোচনা করতে পারবে না? ভিন্নমত থাকবে না? তদন্তের স্বার্থে নাকি তাঁকে আটক রাখা প্রয়োজন৷ তদন্তের জন্য যা প্রয়োজন, তাতো তদন্তকারীদের হাতে আছে৷ তাঁর মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, সব কিছু৷ তিনি কি দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাবেন? তাও না৷ তিনি কি জামিন পেলে কাউকে হুমকির মুখে ফেলবেন? তাও না৷ জামিন দেয়া না দেয়া আদালতের ইচ্ছা৷ কিন্তু জামিন পাওয়াও অধিকার৷ কোন কারণে তাঁকে জামিন দেয়া হচ্ছে না, তা আমার কাছে স্পষ্ট নয়৷'' 

শহিদুল আলমের আরেকজন আইনজীবী এহসানুল হক সমাজি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা আদালতকে বলেছি, তাঁর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ, তা মিথ্যা এবং সাজানো৷ কারণ, তিনি কোনো ভিডিও বা অডিও বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘটনার দিন কোনা উসকানিমূলক বক্তব্য দেননি৷ এই মামলায় তাঁকে আইনগতভাবে জামিন দেয়ায় কোনো বাধা নেই৷ তিনি আইনগতভাবে জামিন পাওয়ার অধিকার সংরক্ষণ করেন৷ আদালত চাইলে দিতে পারেন৷''

অডিও শুনুন 01:29
এখন লাইভ
01:29 মিনিট

‘আমি মনে করি, শহিদুল আলমকে জামিন না দেয়ায় ন্যায় বিচারের ব্যাত্যয় হচ্ছে’

এদিকে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমি মনে করি, শহিদুল আলমকে জামিন না দেয়ায় ন্যায় বিচারের ব্যাত্যয় হচ্ছে৷ কারণ, মামলা যদি অজামিনযোগ্যও হয়, তাহলে আদালতের জামিন দেয়ার এখতিয়ার আছে৷ শহিদুল আলম একজন দেশে বিদেশে সুপরিচিত ব্যক্তি৷ তিনি পালিয়ে যাবেন, এমন ভাবা যায় না৷ আর তাঁর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তা নিয়ে নানা বিতর্ক আছে৷ তাঁর বক্তব্যের কারণে আওয়ামী লীগ অফিসে হামলা হয়েছে, এটা এখনো প্রমাণিত নয়৷'' তিনি আরো বলেন, ‘‘শেষ পর্যন্ত যদি তিনি বিচারে অপরাধী প্রমাণিতও হন, তাহলে তাঁকে তো শাস্তি দেয়ার সুযোগ আছে৷ তার আগেই নানা কারণ দেখিয়ে তাঁকে এতদিন আটক রাখায় তাঁর অধিকার ক্ষুন্ন হচ্ছে বলে আমি মনে করি৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন