1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ছবি: DW

শহরের কেন্দ্রস্থল গাড়িমুক্ত করার উদ্যোগ

২৮ জুলাই ২০২১

করোনা সংকট ও জলবায়ু পরিবর্তনের কুপ্রভাবের পরিপ্রেক্ষিতে বড় শহরগুলির কেন্দ্রস্থলের ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবনাচিন্তা আরো গতি পেয়েছে৷ গাড়ির বদলে সাইকেল ও পথচারীদের প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে৷

https://www.dw.com/bn/%E0%A6%B6%E0%A6%B9%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%95%E0%A7%87%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A6%B2-%E0%A6%97%E0%A6%BE%E0%A6%A1%E0%A6%BC%E0%A6%BF%E0%A6%AE%E0%A7%81%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%A4-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%89%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A7%8B%E0%A6%97/a-58667849

বার্লিনে বিক্ষোভ

বার্লিনের পথে গাড়ির ভিড়ের বিরুদ্ধে সাইকেল চালকদের প্রতিবাদ চলছে৷ তারা শহরের কেন্দ্রস্থলে গাড়ির সংখ্যা কমিয়ে শুধু সাইকেলের জন্য আরো বেশি পথ বরাদ্দ করার দাবি জানাচ্ছে৷ এক বিক্ষোভকারী বলেন, ‘‘আমার মতে, গাড়ির জন্য যথেষ্ট অবকাঠামো রয়েছে৷ এবার সাইকেলের অবকাঠামো আরো বাড়ানোর ব্যবস্থা করতে হবে এবং বার্লিনকে আরও সবুজ করে তুলতে হবে৷’’

গাড়ির তুলনায় বেশি সাইকেলের কারণে বিক্ষোভের সময় যানজট সৃষ্টি হয়েছে৷ গাড়ি চালকদের মত কী? যানজটে আটকে পড়া এক চালক বলেন, ‘‘আমার মতে, উভয়ের জন্যই জায়গা থাকা উচিত৷ শুধু সাইকেল চালক নয়, সবারই কিছু পাওয়া উচিত৷’’

পরিবহণের ক্ষেত্রে পরিবর্তনের দাবি বাড়ছে৷ এবার এমনকি হাইওয়ের উপরেও সাইকেল নামছে৷ পুলিশ সবকিছু ঘিরে রেখেছে৷ বার্লিনের রাজ্য সরকার সেটা সম্ভব করছে৷ নতুন এক পরিবহণ কনসেপ্টের আওতায় শহরের বেশ কয়েকটি সড়ক শুধু পথচারী ও সাইকেলের জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে৷ তবে সেই লক্ষ্যে আরো পরিবর্তনের জন্য চাপ বাড়ছে৷ ‘গাড়িমুক্ত বার্লিন' অভিযানের প্রতিনিধি নিনা নোবলে বলেন, ‘‘আমরা বার্লিনকে গাড়িমুক্ত করতে গণভোটের পক্ষে৷ এই মুহূর্তে না হলেও শহরের কেন্দ্রস্থল গাড়িতে ভরে থাকে বলে আমাদের মাথায় এই আইডিয়া এসেছিল৷ বিশেষ করে শহরের কেন্দ্রস্থলে অনেক মানুষ গাড়ি চেপে ঘোরাঘুরি না করলেও তাদের জন্য বরাদ্দ জায়গা অত্যন্ত কম৷ আমাদের মতে এই বণ্টন মোটেই ন্যায্য নয়৷ তাছাড়া গাড়ি আর সময়োপযোগী নয়৷’’

ইউরোপে শহরের মধ্যে গাড়ি কমানোর প্রচেষ্টা

মহামারির জের ধরে নতুন ভাবনাচিন্তা

বিশ্বের অনেক শহরের কেন্দ্রস্থল দ্রুত বদলে যাচ্ছে৷ আন-লিন নিয়ো নামের এক স্থপতি সে বিষয়ে ভাবনাচিন্তা করছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘বর্তমান মহামারি বহুকাল ধরে চলে আসা এক প্রক্রিয়াকে আরও ত্বরান্বিত করছে বলে আমি মনে করি৷ পথচারীদের জন্য বরাদ্দ এলাকার মধ্য দিয়ে হেঁটে গেলে নিজেই সমস্যাগুলি দেখতে পাবেন৷’’

মানুষ ইন্টারনেটে কেনাকাটা করতে অভ্যস্ত হয়ে পড়েছে৷ করোনা সংকটের কারণে ডিপার্টমেন্ট স্টোরের সমস্যাগুলি আরো কঠিন হয়ে পড়েছে৷ বিক্রিবাটা ও পার্কিংয়ের জায়গার একটা বড় অংশ আর কাজে লাগছে না৷

যেমন ল্যুনেন শহরে একটি বিশাল বিপনি ভবন খালি পড়ে ছিল৷ ইস্পাতের কাঠামো ছাড়া বাকি সব কিছু খুলে নেওয়া হয়েছে৷ ভবনটিকে বসতবাড়িতে রূপান্তরিত করা হয়েছে৷ কিছু দোকানও রয়েছে৷ গাড়ির উপর নির্ভরতা অনেক কমে গেছে৷ আন-লিন নিয়ো বলেন, ‘‘কাজকর্ম ও বসবাসের জায়গা হিসেবে শহরকে সামগ্রিকভাবে ভাবতে হবে৷ সেটা করলে নিত্যযাত্রীর সংখ্যা আমরা কমাতে পারবো৷’’

গাড়ির গ্যারেজ ছাড়াই বার্লিনের একটি ভবন ডিজাইন করা হয়েছে৷ সেখানে দোকান, আর্ট গ্যালারি ও ফ্ল্যাট রয়েছে৷ একই ছাদের নীচে কিছু অফিসও স্থান পেয়েছে৷ ফলে কাজের জন্য দূরে যাবার প্রয়োজন নেই৷ ভবনের ভেতরে অনায়াসে উঁকি মারা যায়৷ ইচ্ছা করে ভবন কমপ্সেক্সের মাঝে মানুষের হাঁটাপথও রাখা হয়েছে৷ ভবনের বাসিন্দা ক্লাউডিয়া ফুংক বলেন, ‘‘ঘরে-বাইরের মধ্যে ফারাক কমিয়ে সবকিছু অনেক স্বচ্ছ করে তোলা হয়েছে৷ কে আসছে যাচ্ছে, কী হচ্ছে – সবকিছু দেখা যাচ্ছে৷ বারান্দার গাছ আমাকে আনন্দ দেয়৷’’

ইউরোপের একাধিক শহরে একই প্রবণতা

শহরের কেন্দ্রস্থলে মনোরম জীবনযাত্রা ও সাইকেল-বান্ধব পরিবেশ পরস্পরের সঙ্গে যুক্ত৷ বহুকাল আগেই শহরের কেন্দ্রস্থলকে গাড়িমুক্ত করে কোপেনহেগেন দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছে৷ প্যারিসও সেই পথে এগোচ্ছে৷ আগামী কয়েক বছরের মধ্যে শঁজেলিজে সড়ক ও বিজয় তোরণের আশাপাশে আরও অনেক গাছ লাগিয়ে গাড়ি পরিবহণের জায়গা কমিয়ে আনা হবে৷ নিউ ইয়র্কের ব্রডওয়ে পাড়ার টাইমস স্কোয়্যার এলাকাকে গাড়িমুক্ত করে তোলা হয়েছে৷ ডেনমার্কের নগর পরিকল্পনাকারীরা রাস্তার উপর ক্যাফে ডিজাইন করেছেন৷

এমনকি গাড়ি কোম্পানিগুলিও ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত হতে চায়৷ ফলক্সভাগেন অটোনোমাস শাটল কার তৈরি করার পরিকল্পনা করছে৷ ট্যাক্সি হিসেবে এমন যান শহরের কেন্দ্রস্থলের উপর চাপ কমিয়ে আনবে বলে আশা করা হচ্ছে৷ ফলক্সভাগেন কোম্পানির মুখপাত্র ক্রিস্টিয়ান বুলমান বলেন, ‘‘ব্র্যান্ড হিসেবে আমরা গাড়ি তৈরির কোম্পানি থেকে মোবিলিটি প্রোভাইডার হয়ে উঠছি৷ আপনি কোনো গাড়ি কিনতে, লিজ নিতে, ভাড়া নিতে অথবা হয়তো শুধু ব্যবহার করতে পারেন৷ আপনি নিজে চালাবেন, নাকি শুধু গন্তব্যে পৌঁছতে চান, সেটা আমাদের বিজনেস মডেলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়৷’’

আবার সাইকেলের বিক্ষোভে ফেরা যাক৷ এবার বার্লিন শহরের মাঝে হাইওয়ে নিয়ে চর্চা চলছে৷ কয়েক বছরের মধ্যে সেটির আর প্রয়োজন হবে না বলে বিক্ষোভকারীরা আশা করছেন৷

ক্রিস্টিয়ান প্রিসেসিউস/এসবি

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

Bangladesch Gewalt unter Studentengruppen

মাঠে লাঠি, কথায় লাঠি কোন দিকে যাচ্ছে রাজনীতি

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান