শরীরে ফ্যাটের প্রভাব জিনের উপরেও নির্ভর করে | অন্বেষণ | DW | 12.02.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

শরীরে ফ্যাটের প্রভাব জিনের উপরেও নির্ভর করে

সুস্বাদু খাবার মানেই তাতে ফ্যাট রয়েছে৷ তার উৎস বাদাম বা অন্য কোনো নিরামিষ খাদ্য হতে পারে, অথবা প্রাণিজ চর্বিও হতে পারে৷ গবেষকরা ফ্যাটের বিপদ, জিনের প্রভাব, সুস্থ ও অসুস্থ মানুষের খাদ্যাভ্যাস নিয়ে নতুন তথ্য সংগ্রহ করছেন৷

ফ্যাট আসলে কতটা খারাপ?

ফ্যাট হৃদযন্ত্রের জন্য ভালো নয় – এমন একটা ধারণা আজও বদ্ধমূল হয়ে রয়েছে৷ কেউ বলেন, ফ্যাটের মধ্যে ইতিবাচক কিছুই নেই৷ অবশ্যই মোটা করে তোলে৷ কেউ কেউ ফ্যাট কথাটা শুনলেই সজাগ হয়ে ওঠেন৷ কারণ তাঁদের মনে হয় বেশি ফ্যাট পুষ্টির জন্য সহায়ক হয় না৷

কিন্তু খারাপ ফ্যাট পুরোপুরি ত্যাগ করা কখনো সম্ভব হয়নি৷ মানবজাতির ইতিহাসে মানুষ কখনো এখনকার মতো মোটা ছিল না৷ গোটা বিশ্বে প্রতি তিনজনের মধ্যে একজন অতিরিক্ত ওজনের সমস্যায় ভুগছেন৷ কম ফ্যাটের খাবার সহজলভ্য করা ও অনেক প্রচার অভিযান সত্ত্বেও এমনটা ঘটছে৷ কিন্তু এর পেছনে কারণ কী? পুষ্টি বিশেষজ্ঞ ড. মাটিয়াস রিডল বলেন, ‘‘কেউ যদি ফ্যাট ও তেলের পরিমাণ অতিরিক্ত মাত্রায় কমিয়ে দেন, তখন কার্বোহাইড্রেট বা শর্করা সেই শূন্যস্থান পূরণ করতে এগিয়ে আসে৷ ফলে ওজন ও রক্তে ফ্যাটের মাত্রা বেড়ে যায়৷'' 

কিন্তু ফ্যাট কি তার ভাবমূর্তির মতো সত্যি এত খারাপ? সাধারণ মানুষের মনে এ বিষয়ে নানা ধারণা রয়েছে৷ কেউ মনে করেন, নির্ভর করছে, কী ধরনের ফ্যাট৷ যদি ভালো মানের কোল্ড প্রেসড তেল হয়, তাহলে তা ভালো হতে পারে৷ অনেকে সবকিছু অলিভ অয়েল দিয়ে রাঁধেন৷ কেউ বা লিনসিড অয়েল বা বাদাম তেল পছন্দ করেন৷

জিনের প্রভাব

কিছু ধরনের ফ্যাট অবশ্যই আমাদের অসুস্থ করে তোলে৷ কিন্তু সবার ক্ষেত্রেই কি তা প্রযোজ্য?  জার্মানির পুষ্টি গবেষণা কেন্দ্রের প্রোফেসর আন্দ্রেয়াস ফাইফার ৪৬ জো়ড়া যমজ ভাইবোনের উপর সেই পরীক্ষা চালাচ্ছেন৷ কয়েক সপ্তাহ ধরে তাঁদের খাদ্যে ফ্যাটের অনুপাত বাড়িয়ে ৪৫ শতাংশ করা হয়েছে৷  তাতে দেখা গেছে, যে যমজ ভাইবোনদের একই প্রতিক্রিয়া হচ্ছে৷ কিন্তু সব যমজদের ক্ষেত্রে তা ঘটছে না, বরং বিশাল পার্থক্য চোখে পড়ছে৷ কিছু যমজ ভাইবোন ফ্যাটযুক্ত খাবার খেয়ে অন্যদের তুলনায় বেশি মোটা হয়ে যাচ্ছে৷ কোলেস্টরলের মাত্রা সম্ভবত জিনের উপর নির্ভর করে৷ জার্মান পুষ্টি গবেষণা কেন্দ্র প্রোফেসর আন্দ্রেয়াস ফাইফার বলেন, ‘‘কোলেস্টরলের মাত্রা হয় বেশি অথবা কম, জিনের মধ্যেই তা স্থির করা আছে৷ খাদ্যগ্রহণের মাধ্যমে বড়জোর ১৫ শতাংশ বাড়ানো অথবা কমানো সম্ভব৷ কারো কোলেস্টরলের মাত্রা খুব বেশি হলে এমনকি খুব স্বাস্থ্যকর খাবার খেয়েও তা কমানো সম্ভব নয়৷''

অর্থাৎ খাদ্যগ্রহণের মাধ্যমে কোলেস্টরলের মাত্রায় অতি সামান্য হেরফের সম্ভব৷ হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ হিসেবে ড. মেলানি হ্যুমেলগেন তাই রোগীদের পাউঁরুটিতে মাখন লাগিয়ে খাবার অনুমতি দেন৷ কারণ আজকাল কোলেস্টরল কমানোর ওষুধ আগের তুলনায় অনেক বেশি কার্যকর হয়ে উঠেছে৷ তবে তা সত্ত্বেও তিনি রোগীদের সতর্ক থাকতে বলেন৷ কার্ডিওলজিস্ট ড. মেলানি হ্যুমেলগেন বলেন, ‘‘কার্ডিওলজিস্ট হিসেবে মাঝেমাঝে ভাবি, সতর্ক থাকা উচিত৷ কী আর হবে, সকালে ভালো করে সসেজ খেয়ে দুপুরেও মাংস ও কিমার পদ খাওয়া যাক – এমন কথা বললে চলবে না৷ কারণ এ সব খাবার আসলে প্রাণিজাত কোলেস্টরল ও ফ্যাটের  বোমা৷ কিছু মানুষের ক্ষেত্রে এমন খাবার বিশাল পরিবর্তন আনতে পারে৷'' 

স্যাচুরেটেড ফ্যাট সম্পর্কে সাবধান!

কোলেস্টরলের মাত্রা ১৫ শতাংশ কম হলে তা হার্ট অ্যাটাকের রোগীদের জন্য অবশ্যই ইতিবাচক৷ প্রাণিজাত ফ্যাট সম্পর্কে তাদের সতর্ক থাকা উচিত৷ ঝুঁকিপূর্ণ রোগী থেকে শুরু করে সুস্থ মানুষ – সবার ক্ষেত্রেই স্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিডের অনেক নেতিবাচক প্রভাব রয়েছে৷ প্রোফেসর ফাইফার বলেন, ‘‘প্রদাহ থেকে শুরু করে শরীরের যে সব প্রক্রিয়া ডায়াবিটিস, আর্টারিওস্কেলেরোসিস ও স্মৃতিভ্রংশের বিকাশের জন্য দায়ী, সেগুলির উপর এর প্রভাব রয়েছে৷ এ নিয়ে কোনো সংশয় নেই৷ আমাদের গবেষণায়ও তা স্পষ্ট হয়ে উঠেছে৷ সে কারণে স্যাচুরেটেড ফ্যাট মোটেই ভালো নয়৷''

পেট্রা শুখার্ড ও হাইকে বাউয়ার ফ্যাটযুক্ত খাবার খাওয়ার সময়ে অনেক সতর্ক হয়ে উঠেছেন৷ সুস্থ মানুষ হিসেবে অবশ্য তাঁদের কম ফ্যাট নিয়ে কোনো কড়া নিয়ম মানার প্রয়োজন নেই৷ কারণ আজ আমরা জানি, ভাবমূর্তি খারাপ হলেও ফ্যাট মোটেই তত ক্ষতিকারক নয়৷

বির্গিট আউগুস্টিন/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

বিজ্ঞাপন