শরণার্থী বাড়ছে, বাড়ছে অপরাধপ্রবণতাও | বিশ্ব | DW | 03.01.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

শরণার্থী বাড়ছে, বাড়ছে অপরাধপ্রবণতাও

২০১৫ সাল থেকে জার্মানিতে শরণার্থীর সংখ্যা কয়েকগুণ বেড়েছে৷ তার সঙ্গে কি বেড়েছে অপরাধ প্রবণতাও? হাওয়ায় ঘুরছিল প্রশ্ন৷ এতদিনে একটি সূত্রও পাওয়া গেল৷ সমীক্ষা বলছে, শরণার্থী বৃদ্ধির সঙ্গে অপরাধপ্রবণতার আনুপাতিক সম্পর্ক আছে৷

জার্মান সরকারের অর্থে জুরিখের অ্যাপলায়েড সায়েন্স বিশ্ববিদ্যালয় লোয়ার স্যাক্সনি প্রদেশে একটি সমীক্ষা চালিয়েছিল৷ সমীক্ষার ফলাফল বলছে, শরণার্থীদের কারণে ওই প্রদেশে অপরাধ ১০ দশমিক ৪ শতাংশ বেড়েছে৷ পুলিশের কাছ থেকে অপরাধের নথি সংগ্রহ করেই রিপোর্টটি তৈরি করা হয়েছে৷ ২০১৫ এবং ২০১৬ সালের নথিভুক্ত অপরাধ থেকেই এই রিপোর্ট তৈরি হয়েছে৷ দেখা যাচ্ছে, সংঘটিত ঘটনার ৯২ দশমিক ১ শতাংশই ঘটিয়েছেন শরণার্থীরা

ভিডিও দেখুন 03:13

জার্মানিতে শরণার্থীদের জন্য আশার আলো

সমীক্ষা অনুযায়ী, আনুপাতিক হারে জার্মান নাগরিকের তুলনায় দ্বিগুণ হারে অপরাধ কর্মে জড়াচ্ছেন শরণার্থীরা৷ দেখা গেছে, শরণার্থীদের মধ্যে ১৪ থেকে ৩০ বছর বয়সিদেরই অপরাধপ্রবণতা সবচেয়ে বেশি৷ এবং এই বয়সসীমার শরণার্থীরাই  গত দু'বছরে লোয়ার স্যাক্সনিতে সবচেয়ে বেশি সংখ্যায় এসেছেন৷

সমীক্ষায় আরো জানা গেছে, সিরিয়া, ইরাক এবং আফগানিস্তান থেকে যে শরণার্থীরা এসেছেন, তাদের অপরাধপ্রবণতা তুলনামূলকভাবে কম৷ মূলত উত্তর আফ্রিকা থেকে আসা শরণার্থীদের মধ্যেই অপরাধের প্রবণতা বেশি৷ তবে সমীক্ষাটিতে অন্যান্য দেশের শরণার্থীদের উল্লেখ নেই কেন, তা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে৷ কারণ, এর আগেও এ ধরনের বিষয় নিয়ে গবেষণা হয়েছে৷ শরণার্থী এবং অপরাধপ্রবণতা নিয়ে নানা ধরনের তথ্য সেখানে উঠে এসেছে৷ ফলে বিষয়টি নিয়ে যথেষ্ট বিতর্কের অবকাশ আছে৷

২০১৫ সালে আঙ্গেলা ম্যার্কেল শরণার্থীদের জন্য জার্মানির সীমান্ত খুলে দেন৷ ফলে যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়া এবং সংলগ্ন অঞ্চল থেকে বহু শরণার্থী জার্মানিতে এসে বসবাস করতে শুরু করেন৷ 

এসজি/এসিবি (ডিপিএ,এআরডি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন