শরণার্থীদের সন্তানদের ‘মূল্যবোধ’ শেখানোর পরিকল্পনা | জার্মানি ইউরোপ | DW | 07.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

শরণার্থীদের সন্তানদের ‘মূল্যবোধ’ শেখানোর পরিকল্পনা

জার্মানির রক্ষণশীল রাজনীতিকরা স্কুলে উদ্বাস্তু শিশুদের জন্য ‘মূল্যবোধের’ ক্লাস চালু করতে চান বলে একটি জার্মান পত্রিকার বিবরণে প্রকাশ৷ এই মূল্যবোধ সাংস্কৃতিক অথবা ধর্মীয় দৃষ্টিকোণের উপরে স্থান পাবে৷

রক্ষণশীল জার্মান রাজনীতিকরা স্কুলে উদ্বাস্তু শিশুদের জন্য জার্মান ভাষাশিক্ষা ছাড়া সামাজিক মূল্যবোধের পাঠের ব্যবস্থা করতে চান বলে ‘রাইনিশে পোস্ট’ পত্রিকা তাদের সোমবারের সংস্করণে জানিয়েছে৷

রিপোর্ট অনুযায়ী, শাসক সিডিইউ-সিএসইউ দলের উচ্চপদস্থ বিধায়করা স্কুলে তথাকথিত ‘মূল্যবোধ শিক্ষা’ সম্পর্কে একটি খসড়া প্রস্তুত করেছেন৷ সংশ্লিষ্ট শিক্ষাক্রমে উদ্বাস্তু শিশুরা আইনের শাসন, নারী-পুরুষের সমতা ও একমাত্র রাষ্ট্রের বলপ্রয়োগের একচেটিয়া অধিকার সম্পর্কে অবহিত হবে৷

‘‘জার্মানিতে যাঁরা থাকার অধিকার পাবেন, বিশেষ করে আমাদের সমাজে শান্তি বজায় রাখার জন্য তাঁদের অন্তর্ভুক্তি একটি জরুরি প্রসঙ্গ,’’ বলে বিধায়কদের খসড়ায় মন্তব্য করা হয়েছে৷ ‘‘এই শিক্ষাক্রমের লক্ষ্য হবে, উদ্বাস্তুদের আমাদের মূল্যবোধ ও আইনের শাসন সম্পর্কে অবহিত করা৷ আমাদের আইনগত ব্যবস্থার সীমানা ও কর্তব্য সম্পর্কেও তাঁদের শিক্ষা দেওয়া হবে৷’’

ফ্রাংকফুর্টে আজ সোমবার সিএসইউ ও সিডিইউ দলের সংসদীয় তথা রাজ্য বিধানসভার বিধায়ক গোষ্ঠীর নেতারা মিলিত হবেন৷ সেই সাক্ষাতে মূল্যবোধ শিক্ষা সংক্রান্ত খসড়াটি পেশ করা হবে৷ চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল স্বয়ং সেই সাক্ষাতে উপস্থিত থাকবেন বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে৷

মূল্যবোধের স্থান সংস্কৃতি ও ধর্মের উপরে

পরিকল্পিত শিক্ষাক্রমে নারী-পুরুষের সমতা, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা এবং মানব মর্যাদার সুরক্ষার মতো যেসব মূল্যবোধ আলোচিত হবে, ‘‘অপরিহার্য আদর্শ হিসেবে সেগুলি বিভিন্ন সাংস্কৃতিক বা ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গীর উপরে স্থান পাবে’’ বলে খসড়াতে ঘোষণা করা হয়েছে৷

গত মাসে বাভেরিয়ার মুখ্যমন্ত্রী মার্কুস জ্যোডার (সিএসইউ) ও হেসে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ফল্কার বুফিয়ের (সিডিইউ) যুগ্মভাবে ‘মূল্যবোধ শিক্ষার’ পরিকল্পনাটি পেশ করেন৷ বুফিয়ের জার্মান ‘স্পিগেল’ পত্রিকাকে বলেন যে, গত দু'বছর ধরে একাধিক উদ্বাস্তু কেন্দ্রে অনুরূপ একটি অন্তর্ভুক্তি প্রকল্প প্রয়োগ করা হয়েছে৷

প্রকল্পটি খুবই সফল হয়েছে বলে দাবি করেছেন বুফিয়ের৷ তিনি বলেন, ‘‘সেই অভিজ্ঞতার আলোকে আমরা আগামী সরকারি কর্মকালে (মূল্যবোধ শিক্ষার) ক্লাস গুলিকে বাড়াতে চাই৷’’

বাভেরিয়া ও হেসে, উভয় রাজ্যেই আগামী অক্টোবর মাসে রাজ্য বিধানসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে চলেছে৷

এসি/এসিবি (রয়টার্স, এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন