শবরীমালা মন্দির নিয়ে ভারতে তুলকালাম | বিশ্ব | DW | 03.01.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

শবরীমালা মন্দির নিয়ে ভারতে তুলকালাম

কেরালা রাজ্যের শবরীমালা মন্দিরে দুই নারীর প্রবেশকে কেন্দ্র করে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালন করেছে বিজেপি৷ ভাঙচুর করা হয়েছে শতাধিক বাস৷ ২৬৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ৷ সরকারপন্থিদের সঙ্গে ব্যাপক সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন বিজেপির এক কর্মী৷

কেরালা রাজ্যের শবরীমালা মন্দিরে দুই নারীর প্রবেশকে কেন্দ্র করে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালন করেছে বিজেপি৷ ভাঙচুর করা হয়েছে শতাধিক বাস৷ ২৬৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ৷ সরকারপন্থিদের সঙ্গে ব্যাপক সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন বিজেপির এক কর্মী৷

বুধবার ইতিহাসে প্রথমবারের মতো দক্ষিণ ভারতের শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশ করেন দুই নারী৷ ১০ থেকে ৫০ বছর বয়সি নারীদের প্রবেশে বাধা দেয়া যাবে না - আদালত এমন রায় দেয়ার পর এই প্রথম কোনো নারী মন্দিরটিতে ঢুকলেন৷

এরপর থেকেই উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে পুরো কেরালা রাজ্য৷ মন্দিরে নারী প্রবেশের প্রতিবাদে ডাকা বৃহস্পতিবারের হরতালে সহিংস হয়ে ওঠে হিন্দু উগ্রবাদীরা৷

এর আগে রাজ্যের বামপন্থি সরকার সিপিএমের কর্মীদের সাথে বিজেপির নেতৃত্বে হিন্দুত্ববাদী দলগুলোর সংঘর্ষে নিহত হন ৫৪ বছরের চন্দ্রন উন্নিথান৷

কেরালা পুলিশের মুখপাত্র প্রমোদ কুমার এএফপিকে জানিয়েছেন, ‘‘নিহত ব্যক্তি বিজেপির (ভারতীয় জনতা পার্টি) একজন সদস্য৷ বুধবার রাতে তিনি মারা যান৷ এছাড়া রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষে আরো ১৫ জন আহত হয়েছেন৷''

বিজেপির হরতাল ও বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই পরিস্থিতি থমথমে ছিল৷ গুরুত্বপূর্ণ মোড় ও স্থাপনাগুলোতে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়৷

কিন্তু বিভিন্ন স্থানে সিপিএম কর্মীরা মন্দিরে নারী প্রবেশের পক্ষে রাস্তায় নেমে আসলে বিজেপির বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে তাঁদের সংঘর্ষ লাগে৷ বিজেপি ও সংঘ পরিবারকে রীতিমতো ‘ক্রিমিনাল' আখ্যা দিয়ে হরতালের নামে সহিংসতা রুখতে রাস্তায় হাজার হাজার কর্মী জড়ো করে সিপিএম৷

বৃহস্পতিবার হরতালের শুরুতেই বিভিন্ন জায়গায় জড়ো হয়ে সব ধরনের গাড়ি চলাচল ও দোকানপাট বন্ধ করে দেয় বিজেপির কর্মীরা৷ এসময় রাজ্যজুড়ে শুরু হয় সিপিএম কর্মী ও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ

এর মধ্যেও চলাচল বন্ধ করেনি কেরালা রাজ্য নিয়ন্ত্রিত বাস সার্ভিস৷ এক পর্যায়ে হামলা চালিয়ে শতাধিক রাজ্য বাস ভাঙচুর করে বিক্ষোভকারীরা৷ এই ভাঙচুরের প্রতিবাদে বিকেলে সব ভাঙা বাস নিয়েই একটি মিছিল বের করে কেরালা স্টেট রোড ট্রান্সপোর্ট করপোরেশন- কেএসটিআরসি৷ সংস্থাটি জানিয়েছে শুধু বাস ভাঙার কারণেই প্রায় তিন কোটি ৩৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে রাজ্যের৷

বিভিন্ন স্থানে হরতালের খবর সংগ্রহে যাওয়া সাংবাদিকদের ওপর বিজেপি কর্মীদের হামলার খবর এসেছে৷ কেরালা ইউনিয়ন অব ওয়ার্কিং জার্নালিস্ট এরই মধ্যে হামলার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে৷ তাঁদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে সরকারকে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছে দিল্লি ইউনিয়ন অব জার্নালিস্টসও৷

সুপ্রিম কোর্ট ঋতুমতী নারীদের ঐ মন্দিরে প্রবেশের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছিল গত বছরের ২৮ সেপ্টেম্বর৷ চার মাস কেটে যাওয়ার পরও ঋতুমতী কোনো নারী এর আগে মন্দিরে প্রবেশ করতে পারেননি৷

কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন বলেছেন, ‘‘দুই জন নারী মন্দিরে প্রবেশ করেছেন৷ কেউ যদি ঐ মন্দিরে যেতে চান, তবে পুলিশ তাদের নিরাপত্তা দিয়ে নিয়ে যাবে৷''

মন্দিরের এক মুখপাত্র জানান, মন্দিরের পুরোহিতরাও ঐ দুই নারীর প্রবেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন৷ তবে ঐ নারীরা বেরিয়ে যাওয়ার পর পুরোহিতরা মন্দির ধুয়ে ‘শুদ্ধ' করেছেন বলেও জানান তিনি৷

মুখ্যমন্ত্রী বিজয়ন বলছেন, দুই নারী মন্দিরে ‘হেলিকপ্টারে নয়', বরং ‘সবার সামনে দিয়েই' প্রবেশ করেছেন৷ তখন এ নিয়ে কোনো অভিযোগ বা বাধার সম্মুখীন না হলেও কয়েক ঘণ্টার মধ্যে এ নিয়ে তুলকালাম সৃষ্টি হয়ে যাওয়াকে বিজেপি ও সংঘ পরিবারের ‘ধর্ম ব্যবহার করে রাজনৈতিক চাল' বলেও উল্লেখ করছেন কেরালার মুখ্যমন্ত্রী৷

এমনকি, ‘নারী প্রবেশের অনুমতি' দিয়ে আদালতের নির্দেশ না মানতে পারলে শবরীমালা মন্দিরের প্রধান পুরোহিতকে মন্দির ছেড়ে যাওয়ার আহ্বানও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী বিজয়ন৷

এদিকে রাজ্যে কংগ্রেসের ভূমিকা নিয়েও চলছে সমালোচনা৷ কেন্দ্রীয় কংগ্রেস আদালতের রায়ের পক্ষে অবস্থান নিলেও, রাজ্য কংগ্রেসের নেতারা মন্দিরে নারী প্রবেশের বিপক্ষে৷

এডিকে/জেডএইচ (রয়টার্স, এপি, এএফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন