‘লোভী′ অভিভাবক, ‘সুযোগসন্ধানী′ স্কুল, অসহায় শিকার শিক্ষার্থী | বিশ্ব | DW | 14.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

‘লোভী' অভিভাবক, ‘সুযোগসন্ধানী' স্কুল, অসহায় শিকার শিক্ষার্থী

ঢাকায় বসবাসরত অভিভাবকদের চাওয়া কী? এমন প্রশ্নের জবাবে সবাই সমস্বরে বলে উঠবেন, সন্তানকে নামকরা স্কুলে পড়ানো৷ তাঁদের এই চাওয়াকে ‘মূল্য দিয়ে' গড়ে উঠেছে ভর্তি কোচিং, কোটি টাকার ভর্তি বাণিজ্য এবং নামকরা স্কুলের অসংখ্য শাখা৷

রাজধানীতে নামজাদা স্কুলের তালিকায় ভিকারুননিসা নূন, আইডিয়েল, মডেল, সাউথপয়েন্ট ও ক্যাম্ব্রিয়ান অন্যতম৷ এ ধরনের প্রায় সব স্কুলেরই তিনটি বা ততোধিক শাখা রয়েছে৷ এসব শাখায় ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে অভিবাবকরা শিক্ষার্থীদের ঠেলে দিচ্ছেন এক ধরনের যুদ্ধের দিকে৷ সম্প্রতি ভিকারুননিসা শিক্ষার্থী অরিত্রীর আত্মহত‌্যার ঘটনায় ফের স্কুল ও অভিভাবকদের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ৷ ভালো ও নাম করা স্কুল বলে যেসব স্কুলের পেছনে ছুটছেন অভিবাবকরা, সেগুলো কেমন চলছে?

গত ৫ মাসে ৩ আত্মহত্যা

২০১৮ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত তিন স্কুল শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে৷ প্রাথমিকভাবে জানা যায়, স্কুল থেকে টিসি দেওয়ার হুমকি ও পরীক্ষায় কম নম্বর পাওয়াই এসব আত্মহত্যার কারণ৷

২৪ জুলাই, মঙ্গলবার রাতে স্কুলছাত্রী সুমাইয়া আক্তার মালিহা (১৪) ঢাকার শাহজাহানপুরের নিজ বাসায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে৷ সে শহীদ ফারুক ইকবাল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী ছিল৷ তার একটি সুইসাইড নোট উদ্ধার করেছে পুলিশ৷ তাতে লেখা আছে, ‘‘আমার সুইসাইড করার কারণ একমাত্র রিমি ম্যাডাম৷ সে অযথা পরীক্ষায় আমার খাতা নিয়েছে৷ আর পরীক্ষায় কম নম্বর দিয়েছে৷ তোমরা যদি পারো তাহলে সেই ম্যাডামকে মানসিক চিকিৎসা দাও, মেন্টাল হসপিটালে পাঠাও৷ ম্যাডাম আমারে অভিশাপ দিয়েছে, তাই আমার ভালো রেজাল্ট খারাপ হয়েছে৷''

একই দিনে উত্তরা রাজউক মডেল কলেজের ১০ম শ্রেণির ছাত্রী নাফিসা নেওয়াজ ইথিকা ভবনের ৪র্থ তলা থেকে পড়ে নিহত হন৷ স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি, নাফিসা পা ফসকে পড়েছে৷ কিন্তু ঐ কলেজের শিক্ষার্থীরা দাবি করছেন, ইথিকা আত্মহত্যা করেছে৷ পরীক্ষার নম্বর নিয়ে সে মানসিক চাপে ছিল৷ গণিত পরীক্ষার খাতায় পাওয়া ৩৯ নম্বরকে ৬৯ করে ধরা পড়ায় তাকে টিসির হুমকি দিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন তার শিক্ষক৷ এক পর্যায়ে আত্মহত্যা করে ইথিকা৷

ভিকারুননিসা স্কুলের  অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার দগদগে ঘা-ও এখনো শুকায়নি। কিন্তু কেন এমনটা ঘটছে? কেন এত বাড়তি চাপ?

‘আমরা সিস্টেমের কাছে জিম্মি'

এ প্রসঙ্গে সাংবাদিক প্রভাষ আমিন বলেন, ‘‘চাপটা সিস্টেমের অংশ৷'' তাঁর সন্তান প্রসূন সেন্ট যোশেফ স্কুলের এসএসসি পরীক্ষার্থী৷ সামগ্রিক চাপ থেকে বের করতে পারেননি নিজের সন্তানকে৷ স্কুল নির্বাচনের ক্ষেত্রে তিনি মাঠটাকে প্রধান গুরুত্ব দিয়েছিলেন৷ সঙ্গে সেন্ট যোসেফের সুনাম তো আরেকটি কারণে রয়েছেই৷ চলমান জিপিএ ফাইভের চাপে তিনিও আর সবার মতো জিম্মি৷ তবে নম্বর কম পেলে নানা তিরষ্কারের ঘটনা থাকলেও গুরুতর দুর্ঘটনার নজির পাননি তিনি৷ পড়ালেখার পাশাপাশি অনেক ডিবেট ক্লাব,  ‌ল্যাংগুয়েজ ক্লাব বা সায়েন্স ক্লাবের মতো আন্ত প্রতিষ্ঠানে সংযুক্ত থাকার সুযোগ রয়েছে, যেটিকে এই চাপের মাঝেও মানসিক বিকাশের একটি পথ বলে মনে করেন তিনি৷

অন্যদিকে সাউথ পয়েন্ট স্কুলের অভিবাবক লীনা পারভীন ভীষণ ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করলেন স্কুল নিয়ে৷ তিনি বলেন,  ‘‘স্কুলের সামগ্রিক পরিবেশ নিয়ে অভিবাবক হিসেবে আমি মোটেই সন্তুষ্ট নই, কারণ, ক্লাসে বাচ্চাদের প্রতি মনযোগ দেওয়া হয় না সমানভাবে৷ কোচিং-বাণিজ্য আছে৷ ইংলিশ ভার্সনের স্কুল নাই বললেই চলে৷ তাই ভরসা হিসাবে এখানে ভর্তি করা হয়েছিল৷''

 আরো একটি কারণ হিসেবে তিনি এটি যে ভিকারুন্নেছা স্কুলের সাবেক অধক্ষ্য হামিদা আলী প্রতিষ্ঠিত স্কুল সেই বিষয়টিও উল্লেখ করলেন৷

তিনি আরো জানান, আর সব বাচ্চার মতোই ভর্তি যুদ্ধে লড়াই করে উত্তীর্ণ হয়েই এই স্কুলে আসতে হয়েছিল তাঁর সন্তানদের৷ কিন্তু স্কুলে শিক্ষকরা মোটেই শিক্ষার্থীদের প্রতি যত্নশীল নন৷ পরীক্ষার খাতায় নম্বর কম দেওয়া হয়, কিন্তু কেন কম দেয়া হয় সে বিষয়ে কোনো উত্তর পাওয়া যায় না৷

তিনি আরো বলেন, ‘‘একজন অভিভাবক হিসেবে আমার চাওয়া স্কুল এমন একটি জায়্গা হবে, যেখানে কেবল পরীক্ষা আর পাস-ফেলের হিসাবই বড় হবে না৷ এখানে আমার সন্তান শিখবে একজন মানবিক গুণাবলীসম্পন্ন মানুষ হবার সব শিক্ষা৷ মুখস্থবিদ্যা না, মগজের শিক্ষা দেবে৷ সিলেবাস নির্দিষ্ট করা থাকবে, যাতে বাসায় গাইড করার জন্য অভিভাবকদের হয়রান না হতে হয়৷ স্কুল দায়িত্ব নেবে ভালো বা খারাপ ফলের৷ নিয়মতান্ত্রিক হতে শেখাবে বাচ্চাদের। শাস্তি কেবল নয়, মূল্যবোধ শিখাবে৷ ছাত্রদের সাথে বিতর্কিত কোনো রাজনৈতিক আলাপ করবে না অপ্রাসঙ্গিকভাবে৷'' তবে এমন স্কুল তাঁর চোখে পড়েনি৷ তিনিও বলেন, ‘‘আমরা সিস্টেমের কাছে জিম্মি৷''

‘অভিভাবকদের মানসিকতার পরিবর্তন প্রয়োজন'

ঢাকার শীর্ষস্থানীয় স্কুলগুলোর মধ্যে গভর্নমেন্ট ল্যবরেটরি অন্যতম৷ ভালো ফল করার সুনাম দীর্ঘদিনের৷ সেই স্কুলের অধ্যক্ষ আবদুল খালেক দাবি করেন, তাঁর স্কুলে শিক্ষার্থীদের কোনো চাপ দেওয়া হয় না৷ যদি নিয়মিত ক্লাসে উপস্থিত থাকার বিষয়টি চাপের হয়ে থাকে, তবে সেইটুকু চাপই দেওয়া হয় শিক্ষার্থীদের। এই চাপ অভিবাবকদেরও দেওয়া হয় বলে তিনি জানান৷ তাঁর দাবি, আর সব সরকারি স্কুলের মতোই স্বাভাবিক পড়াশোনার পদ্ধতি অনুসরণ করেই ভালো ফল করে তাঁর স্কুল৷ তিনি বলেন, ‘‘এখানে নিয়মিত পড়াশোনার পাশাপাশি নানা ক্লাব রয়েছে, যেখানে শিক্ষার্থীরা নিজেদের সৃ্জনশীল কর্মকাণ্ডে ব্যস্ত রাখে৷'' এর মধ্যেও চলতি বছর তাঁর স্কুলের এসএসসি পাস করা শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে ৫৬ জন সরকারি বৃত্তির তালিকাভূক্ত হয়েছে বলে জানানা তিনি৷ এটি চাপমুক্ত অর্জন বলেও দাবি তাঁর৷ 

এদিকে অভিভাবকদের চাপের অভিযোগ অস্বীকার করে সাউথ পয়েন্ট স্কুলের ভাইস প্রিন্সিপাল জেরিনা ফেরদৌ্স বলেন, ‘‘ আলাদা করে কোনো স্কুল চাপ দিচ্ছে এমনটি বলা যাবে না৷ এখানে বড় চাপ হচ্ছে সৃ্জনশীল কারিকুলাম৷ এটি শেষ করতেই শিক্ষার্থীরা বড় চাপে থাকে৷ তবে আমাদের চেষ্টা থাকে সহজ করে তাদের সামনে সিলেবাস তুলে ধরার৷ আমাদের প্রতি ক্লাসে ২৫-৩৫ জন শিক্ষার্থী থাকে সর্বোচ্চ৷''

যদি ফেসবুক, টেলিভিশন ও ইন্টারনেট আসক্তি না থেকে থাকে, তবে কোনো কোচিংয়ের প্রয়োজন নেই বলেও মনে করেন তিনি৷ তবে তিনি মনে করেন, ‘‘অভিভাবকদের একটি সামাজিক সমস্যার নাম কোচিং৷ তাঁরা প্রায়ই বলেন, অমুকের ছেলে তিন বিষয়ে কোচিং করছে, আমার ছেলে এক বিষয়ে করছে, তাকে বঞ্চিত করছি কিনা৷ এমন মানসিকতা থেকেই কোচিং বাণিজ্যের পেছনে ছোটেন অভিভাবকরা৷ নতুবা এমনটি হওয়ার কথা নয়৷ স্কুলগুলো ভালো কিছু করার চেষ্টা করে সবসময়৷'' 

অভিভাবক ও স্কুলের প্রতিযোগিতামূলক আচরণ পরিবর্তনের কথা বললেনগতানুগতিক ধারার বাইরের স্কুল সহজপাঠ-এর ট্রাস্টি বোর্ডের সদস‌্য পারভেজ হোসেন৷ তিনি বলেন, ‘‘প্রথমত আমরা একটি নির্ভয়ের স্থান তৈরি করেছি স্কুলকে৷ এখানে শিশুদের শিক্ষকদের সঙ্গে ভালোবাসার ও নির্ভয়ের সম্পর্ক৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘আমাদের শিশুরা নম্বর পাওয়ার জন‌্য পড়ে না৷ তারা জানার ও বোঝার জন্য পড়ে৷ এখানে চাপ ছাড়াই শিক্ষাবোর্ডের কারিকুলামে ভালো ফল করা সম্ভব৷'' এ প্রসঙ্গে তিনি নালন্দা স্কুলের উদাহরণ টানেন৷ তিনি বলেন, ‘‘ইতোমধ্যে ৬টি ব্যাচ বের হয়েছে। তারা সবাই ভালো ফল করেছে৷ সুতরাং এটি সম্ভব৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন