লোকসংস্কৃতির চর্চা ছাড়া দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয় | আলাপ | DW | 25.12.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্লগ

লোকসংস্কৃতির চর্চা ছাড়া দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়

আকাশ সংস্কৃতির কারণে লোকসংস্কৃতি থেকে আজ আমরা বিচ্ছিন্ন৷ কিন্তু নিজের শেকড়কে না জানলে কোনো জাতির উন্নয়ন সম্ভব না৷ আমাদের শেকড় লুকিয়ে লোকগান, হস্তশিল্প ও সাহিত্যে৷ তাই এগুলোকে টিকিয়ে রাখতে প্রয়োজন সমন্বিত উদ্যোগ৷

বাংলাদেশের সংস্কৃতির ধারা তিনটি: নগরসংস্কৃতি, গ্রামসংস্কৃতি ও উপজাতীয় সংস্কৃতি৷ কিন্তু এ সব সংস্কৃতিকে ছাপিয়ে আজ মুখ্য হয়ে উঠেছে আকাশ সংস্কৃতি৷ এই আকাশ সংস্কৃতির প্রভাবেই আমরা ভুলতে বসেছি আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতি৷

ছোটবেলায় আমরা গ্রীষ্ম ও শীতের ছুটিতে মামাবাড়ি বেড়াতে যেতাম৷ গাইবান্ধার নূরপুর গ্রামে তখনও বিদ্যুৎ পৌঁছায়নি৷ প্রতিদিন দুপুরের খাওয়া শেষে দেখতাম শীতল পাটি বিছিয়ে বাড়ির মেয়ে-বউরা কাঁথা সেলাই করতে বসতেন৷ একজন গান ধরতেন, যেটাকে তাঁরা বলতেন গীত৷ এই গীত কিন্তু কোনো শেখা গান নয়, যার যা মনে আসতো তাই দিয়ে একজনের কাছ থেকে আর একজন কথা কেড়ে নিয়ে গান বাঁধতেন৷ এ এক অপূর্ব দৃশ্য৷

এছাড়া ঢেঁকিতে ধান বা জলপান ভাঙার সময়ও তাঁরা গীত গাইতেন৷ বিয়ের সময় গায়ে হলুদের দিন বাড়ির বৃদ্ধারা গীত বানাতেন নতুন জামাই বা নতুন বউয়ের ‘বদনাম' করে৷ সেটা উপস্থিত প্রতিটা মানুষকে আনন্দ দিতো৷ পাশাপাশি এই যে সুখ স্মৃতি নিয়ে বড় হয়ে ওঠা এটা আমার কাছে একটা সম্পদের মতো৷ এই যে সংস্কৃতি এটা কিন্তু চলে আসছে প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম ধরে৷

আরও একটা বিষয়ের কথা উল্লেখ করতেই হয়৷ সেটা হলো দুর্গা পূজার সময় এই ছোট্ট গ্রামটিতে যাত্রাপালা হতো পুরো পাঁচ দিনব্যাপী৷ এই যাত্রার শিল্পীদের ঐ গ্রামের বাইরে থেকে আনা হলেও স্থানীয় সংস্কৃতি কর্মীরাও কিন্তু অংশ নিতেন এতে৷

গ্রামের নারী-পুরুষ সবাই কিন্তু তালপাখা বানাতে জানতেন৷ প্রচণ্ড গরমে শিতলপাটি আর তালপাখার হাওয়ার শীতল পরশ বুলিয়ে দিত শরীরে৷ আর একটি বিষয় ছিল পুঁথি পড়া৷ সোনাভানের পুঁথি – কী অসাধারণ লাগত গানের সুরে পুঁথি পড়া৷ শহুরে শিশুদের কথা দূরে থাক, গ্রামের শিশুরাও কিন্তু এ সব সংস্কৃতি থেকে বঞ্চিত৷ কারণ প্রত্যন্ত গ্রামেও ঢুকে পড়েছে বোকা বাক্স৷ আর তাতেই বন্দি তাদের শৈশব৷ এরা জানে না পুঁথি কী, যাত্রা কী, প্রবাদ-প্রবচন কী, লোকগান কী৷ তবে এটা তাদের ব্যর্থতা নয়৷ ব্যর্থতা আমাদের, এই রাষ্ট্রের৷ কারণ আমরা আমাদের লোকসংস্কৃতিকে সংরক্ষণ করার কোনো চেষ্টাই করিনি৷

এখন বিভিন্ন স্কুলে যেসব প্রতিযোগিতা হয়, সেখানে জারি, সারি, ভাটিয়ালি, ভাওয়াইয়া, মুর্শিদি, মারফতি – এ সব গানের কোনো প্রতিযোগিতা হয় না৷ হয় না কোনো গম্ভীরা৷ যাত্রাপালার নামে বসে মাদকের আড্ডা৷ ভাটি অঞ্চলের মানুষ তাঁদের গানের মাধ্যমে কী কথা বলতে চাইছেন সেটা যখন গানের মাধ্যমে শেখা হয়, তখন সেই অঞ্চলের সাথে একটা আত্মিক সম্পর্ক তৈরি হয়৷

বাংলাদেশের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা গ্রামের বিশাল জনগোষ্ঠী নিজস্ব জীবনপ্রণালীর মাধ্যমে শতকের পর শতক ধরে যে বহুমুখী ও বিচিত্রধর্মী সংস্কৃতি গড়ে তুলেছে৷ দীর্ঘকাল ধরে গড়ে ওঠা এই সংস্কৃতি জাতির প্রকৃত পরিচয় বহন করে৷

আমাদের হস্তশিল্প আজ বিদেশে ভীষণ চাহিদা৷ কিন্তু নিজের দেশে এর চাহিদা আছে কি? আমাদের বাড়িতে ছোটবেলায় দেখেছি পাটের দড়ি দিয়ে বানানো শিকায় মাটির ভাড়ে রসুন, শুকনো মরিচ এ সব রাখা হতো৷ অথবা শিকায় গাছ ঝোলানো হতো৷ এখন শিকা কয়জনের বাসায় দেখতে পাওয়া যায়?

হস্তশিল্পের জায়গা দখল করেছে সস্তার প্লাস্টিকের দ্রব্য৷ মোড়া বা বেতের চেয়ারের জায়গা দখল করেছে প্লাস্টিকের চেয়ার৷ শীতল পাটিরও বিকল্প বের হয়েছে৷

গরমের সময় মাটির কুঁজোর পানি যে কী ঠান্ডা লাগতো! রেফ্রিজেটরের কারণে এখন তো এটা কেউ ব্যবহারই করে না৷ আমাদের এলাকায় প্রতি বৃহস্পতিবার হাটে কুমোরেরা মাটির জিনিসপত্রের পসরা সাজিয়ে বসত৷ দু'বছর আগে সেই হাটে গিয়েছিলাম একটা কুঁজো কিনবো বলে৷ কিন্তু খুঁজেই পেলাম না৷ কেবল মাটির টব আর খুঁটি নাটি কয়েকটা জিনিস৷ আগে বিশাল জায়গা জুড়ে যে পসরা বসত৷ আজ তা দু-তিনটি দোকানে সীমাবদ্ধ৷

পটুয়া কামরুল হাসান আমাদের সরা শিল্পকে বিখ্যাত করে তুলেছেন৷ আগে পূজামণ্ডপে এই মাটির সরাতেই প্রাদ বিতরণ করা হত৷ আজ হয় প্লাস্টিকের ব্যাগে৷

আমাদের লোকগান সংগ্রহ করা হচ্ছে কি? না কিছু ব্যান্ডের বদৌলতে অল্প কয়েকটি গান হয়ত জনপ্রিয়তা পেয়েছে৷ কিন্তু আমাদের লোকগানের যে বিশাল ভাণ্ডার তা সংরক্ষণ করা তো হচ্ছে না৷ তার চর্চাও হচ্ছে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

আমাদের যে হস্তশিল্প তাতে কিন্তু মানুষের কথাই বলা হয়েছে , বলা হয়েছে গ্রাম বাংলার কথা৷ এ দেশে লোক সংস্কৃতির ধারা প্রায় অচল হতে বসেছে আমাদেরই কারণে, আমাদের পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে৷ আমরা আমাদের লোকসংস্কৃতিকে হাতে ধরে নষ্ট করছি৷

পরনির্ভর মানসিকতার কারণে আমরা নিজেদের দিকে তাকাই না, নিজের সম্পদ ও সম্ভাবনার দিকেও তাকাই না৷ এমনিভাবে লোকসংস্কৃতির গভীরে প্রবেশ করি না, লোকসংস্কৃতিকে জীবনের আহ্বানে সম্পর্কিত করি না৷

লোককাঁথা চকচকে ঘরে শোভা পায়, ড্রইংরুমে শোভা পায়, লোকশিল্পের হস্ত নির্মিত বিভিন্ন সামগ্রী ড্রইংরুমে প্রদর্শিত হয়, এর বৈচিত্র্যময় আবেদনের কারণে৷ এছাড়া লোকসংস্কৃতির সামগ্রীসমূহ বিদেশে রপ্তানি করে অনেকে টাকা-পয়সা রোজগারে সফলও হচ্ছেন৷ এভাবে একদিকে লোকসংস্কৃতির ব্যবহার ও চাহিদা বাড়ছে৷ কিন্তু দেশের মধ্যে দেশের মানুষের কাছে তা গুরুত্বপূর্ণ তাৎপর্যে টেনে আনি না৷ এ জন্য সচল ও সচেতন দৃষ্টিভঙ্গি প্রয়োজন৷ এ দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে উঠতে পারে আপন সংস্কৃতির প্রতি টান থেকে, মান থেকে; গড়ে উঠতে পারে জীবনকে নিজস্ব ঐতিহ্যে রূপময় করে বিকশিত করার ইচ্ছে থেকে৷ এ জন্য জাগরণ প্রয়োজন বিভিন্ন স্তরে৷

অনেক লোককাহিনি এখনো গ্রামবাংলায় টিকে আছে৷ সেইসব লোককাহিনি গ্রন্থে গ্রন্থে প্রকাশিত হতে পারে৷ এ বিষয়ে বাংলা একাডেমি ও শিশু একাডেমিসহ উৎসাহী প্রকাশক উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারেন৷ লোককাহিনি, ছড়া, প্রবচন ইত্যাদিতে সমৃদ্ধ আমাদের লোক সংস্কৃতির ভাণ্ডার৷ অথচ সেগুলো সংগ্রহ বা সংরক্ষণের কোনো ব্যবস্থা নেই৷

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে হস্তশিল্পগুলো যেমন বেতশিল্প, বাঁশশিল্প, কাঠশিল্প, চামড়াশিল্প, বুননশিল্প ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে৷ কিন্তু হস্তশিল্পের সঙ্গে যেসব পেশাজীবী জড়িয়ে আছেন, তাঁরা বিভিন্নভাবে শোষিত৷ তাঁরা পণ্যের সঠিক মূল্য পান না৷ তাই এ সব পেশায় টিকে থাকা তাঁদের জন্য বেশ কষ্টকর৷ এ বিষয়ে সরকারি সহযোগিতা দরকার৷ এদের পৃষ্ঠপোষকতা জরুরি, না হলে হস্তশিল্পের সম্ভাবনা যেটুকু আছে তাও হারিয়ে যাবে৷

অমৃতা পারভেজ

অমৃতা পারভেজ, ডয়চে ভেলে

লোকসংস্কৃতির আর এক বৈশিষ্ট্যপূর্ণ ঐশ্বর্য গ্রামীণ খেলাধুলা৷ বহু যুগ ধরে বিনোদনের মাধ্যম হিসেবে গ্রাম বাংলায় নানা ধরনের খেলাধুলার প্রচলন রয়েছে৷ কিন্তু পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে সেগুলো হারিয়ে যেতে বসেছে৷

অবহেলায় অবহেলায় লোকসংস্কৃতির সহজ সরল ধারা আজ শহরের সংস্কৃতির সঙ্গে সংঘর্ষে উপনীত হচ্ছে৷ এ দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ছে রাষ্ট্রও৷ রাষ্ট্র, প্রতিষ্ঠান ও গণমাধ্যম – সংস্কৃতির ধারাকে বেশ নিয়ন্ত্রণ করে থাকে, সে কারণে এ সবের ওপর সংস্কৃতির বিকাশও নির্ভরশীল৷

মোদ্দা কথা হলো, নিজের সংস্কৃতিকে যদি না জানি, যদি চর্চা না করি তাহলে জাতি হিসেবে আমাদের উন্নয়ন সম্ভব না৷ আর জাতির উন্নয়ন না হলে একটি দেশের সার্বিক উন্নয়ন কীভাবে হবে?

এ বিষয়ে আপনার কিছু বলঅর থাকলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়