লুহানস্ক দখলের দাবি রাশিয়ার | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 03.07.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইউক্রেন

লুহানস্ক দখলের দাবি রাশিয়ার

ইউক্রেনের পুর্বাঞ্চলের লুহানস্ক অঞ্চল দখলে নিয়েছে বলে দাবি করেছে রাশিয়া৷ দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী সেরজেই সোইগু প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিনের কাছে লুহানস্ক দখলের খবর জানিয়েছেন৷

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তাসংস্থা ইন্টারফ্যাক্স থেকে এ খবর জানানো হয়৷    

প্রতিরক্ষামন্ত্রী অবশ্য লুহানস্ক দখলকে বর্নণা করেছেন এইভাবে যে, ‘‘এ অঞ্চলটিকে কিয়েভের অর্থাৎ ইউক্রেনের শাসন থেকে মুক্ত করা হয়েছে৷'' লুহানস্কের ইসেচানস্ক শহরের দখলের পর এমন ঘোষণা দেয় রাশিয়া৷   

তবে ইউক্রেন অবশ্য রাশিয়ার এ দাবির সতত্যা নিশ্চিত করেনি৷ গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই ইসিচানস্কে নিজেদের অবস্থার ধরে রাখার জোরালো চেষ্টা করে যাচ্ছিল ইউক্রেনীয় সেনারা৷

ইউক্রেনের পুর্বাঞ্চলে রাশিয়ার সীমান্তে অবস্থিত লুহানস্ক৷ ইউক্রেনে হামলা চালানোর কয়েক সপ্তাহ পর দেশটির রাজধানী কিয়েভ দখলের চেষ্টা ব্যর্থ হলে লুহানস্ক ও দনেৎস্ক দখলের চেষ্টা চালায় রাশিয়ার সেনারা৷

রাশিয়ান সেনাদের সঙ্গে মিলে এ অঞ্চলের বিদ্রোহীরাও ইউক্রেনের সেনাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে৷ বিদ্রোহীরা অবশ্য ২০১৪ সালে রাশিয়ার হামলার পর থেকেই এ অঞ্চলে সরব ছিল৷

রোববার প্রতিরক্ষামন্ত্রী জানান, রাশিয়ার সেনা ও তাদের মিত্ররা ইসিচানস্ক শহরের পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে৷ 

তবে যুক্তরাষ্ট্রের ইনস্টিটিউট ফর দ্য স্টাডি অব ওয়ার-এর বিশ্লেষকরা এক বিবৃতিতে জানায়, সম্ভবত ইসিচানস্ক শহর থেকে ইউক্রেনের সেনাদের উদ্দেশ্যমূলকভাবে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে৷ এর পরে রাশিয়ান সেনারা শহরটির দখল নেয়৷

রাশিয়ান সেনারা যে লুহানস্ককে ঘিরে নিজেদের অবস্থান শক্তিশালী করছে সে বিষয়টি আগেই টের পাওয়া গিয়েছিল৷

অঞ্চলটি পুরোপুরি দখলের বিষয়ে রাশিয়ার ঘোষণা আসার আগেই, লোহানস্কের গভর্নর সেরহি গিদাই টেলিগ্রামে দেওয়া এক বার্তায় জানান, ‘‘লুহানস্ককে ঘিরে রাশিয়ান সেনারা তাদের অবস্থান শক্তিশালী করছে৷ তারা নিষ্ঠুরভাবে শহরটিতে আক্রমণ করছে৷’’

আন্তর্জাতিক সহায়তার আহ্বান জেলেনস্কির

এদিকে যুদ্ধে আক্রান্ত ইউক্রেনের পুনর্গঠনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি৷

রোববার দেওয়া এক ভিডিও বার্তায় জেলেনস্কি বলেন, দখলদাররা যা ধ্বংস করেছে তা পুনর্গঠনই নয়, ইউক্রেনের মানুষের জন্য নতুন করে সবকিছু করতে হবে৷ আর এর মানে হলো এই মুহূর্তে ইউক্রেনে মোটা অংকের বিনিয়োগ প্রয়োজন৷

উল্লেখ্য ইউক্রেনের পুনর্গঠন নিয়ে আলোচনা করতে সোমবার  সুইজারল্যান্ডে দুইদিনের এক আলোচনায় বসছেন পশ্চিমাদেশগুলোসহ বিশ্বের কয়েক ডজন দেশের নেতারা৷

আরআর/এডিকে (রয়টার্স, এপি, এফপি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন