লাইভ স্ট্রিমিংয়ে বদলে যাচ্ছে মিডিয়া | আলাপ | DW | 31.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

লাইভ স্ট্রিমিংয়ে বদলে যাচ্ছে মিডিয়া

মহামারিকালে গৃহবন্দি জীবনে সারাবিশ্বেই যোগাযোগের নতুন এক মাধ্যম হয়ে উঠেছে লাইভ ভিডিও স্ট্রিমিং৷ সাধারণ মানুষ থেকে তারকারা কে গা ভাসাননি এই ট্রেন্ডে?

ভাবুন, রাফায়েল নাদাল আর ফেডেরার গল্প করছেন তাদের টেনিস ভুবন আর ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে৷ কিংবা নাদাল আর মারের মধ্যে চলছে নানা খুনসুঁটি৷ ফুটবলের ভদ্রস্থ মানুষ স্প্যানিশ তারকা আন্দ্রে ইনিয়েস্তা তুলে ধরছেন তার জীবনের দর্শন আর অজানা কাহিনী৷ ক্রিস মার্টিন, জন লিজেন্ড, বুনো, মারায়া ক্যারি থেকে শুরু করে বিশ্ব সঙ্গীতের তারকারা একের পর এক গান গেয়ে দর্শক মাতিয়ে চলছেন৷ অথবা অপরাহ উইনফ্রা মুখোমুখি ইদ্রিস এলবা আর তার স্ত্রীর সঙ্গে৷

এমন মারদাঙ্গা সব আয়োজন অথচ কোনটিই টেলিভিশন চ্যানেল কিংবা প্রতিষ্ঠিত কোন স্ট্রিমিং প্লাটফর্মেও নয়৷ সরাসরি প্রচার হচ্ছে ইনস্টাগ্রাম, ফেসবুক, টুইটার কিংবা ইউটিউবে৷ নিজেদের অ্যাকাউন্ট বা চ্যানেলে৷ স্বাভাবিক সময়ে হয়তো যা কেউ চিন্তাও করেননি ঠিক এমনটাই ঘটেছে করোনার এই মহামারিকালে৷ সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে তারকা সবাই যুক্ত ছিলেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে৷ কোয়ারান্টিন বা গৃহবন্দি জীবনের গল্প তারা বিনিময় করেছেন একে অন্যের সঙ্গে৷ শিল্পীরা ভক্তদের বিনোদন দেয়ার চেষ্টা করেছেন, তহবিলও সংগ্রহ করেছেন স্বাস্থ্যকর্মী আর দুর্গতদের সহায়তায়৷

সেই এপ্রিলে নাদাল তার ভক্তদের উদ্দেশ্যে ঘোষণা দিলেন, দুই চির প্রতিদ্বন্দ্বী ফেডেরার আর মারের সঙ্গে মাঠে নামবেন তিনি৷ তবে রেকেটে নয়, কোর্টেও নয়৷ হবে কথার লড়াই, ইনস্টাগ্রামে৷ কিন্তু ১৯ বারের গ্র্যান্ড স্লাম চ্যাম্পিয়নের জন্য অতিথিদের লাইভে যুক্ত করাটা মোটেও সহজ ছিল না৷ অনেকটা ভজঘট অবস্থাই পাকিয়ে ফেললেন তিনি৷ এ নিয়ে কম যান না ফেডেরার আর মারেও৷ সেই লাইভের কমেন্টস বক্সেই নাদালকে নাস্তানুবাদ করেছেন তারা৷ যেমনটা মারে লিখেছিলেন, ‘‘বাহ অসাধারণ! ৫২ বার ফ্র্যাঞ্চ ওপেন জিততে পারেন তিনি (নাদাল), কিন্তু ইন্সটাগ্রাম চালাতে পারেন না৷'' সে যাই হোক শেষ পর্যন্ত তাদের আলোচনাটি কয়েক লাখ দর্শক সরাসরি উপভোগ করেছেন৷

বিনোদন জগতের খুব কম তারকাই পাওয়া যাবে যিনি এরপর সামাজিক মাধ্যমে লাইভে আসেননি৷ মজার বিষয় হচ্ছে অনেক টিভি অনুষ্ঠানও এমনকি সোশ্যাল মিডিয়ায় লাইভ স্ট্রিমিং হয়েছে৷ অ্যামেরিকার বিভিন্ন চ্যানেলের লেইট নাইট শো গুলোর হোস্টরা নিজেদের ঘর থেকে চমক উপহার দিয়েছেন একের পর এক৷ জনপ্রিয় কমেডিয়ান ও উপস্থাপক ট্রেভর নোয়াহতো তার ‘দ্য ডেইলি সোশ্যাল ডিসটেন্সিং শো’-নিয়ে ইউটিউবে ৮০ লাখ সাবস্ক্রাইবারের সামনে হাজির হয়েছেন প্রতিদিন৷

অ্যাপলের ফ্রি টিভি সিরিজে ‘অপরাহ টকস কভিড নাইনটিন'- এ নিয়মিত এসেছেন অপরাহ উইনফ্রে৷

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্যোগে লাইভ কনসার্ট ‘টুগেদার অ্যাট হোম'- এ নিজেদের ঘর থেকে যোগ দিয়েছেন সেলিন ডিওন, আন্দ্রে বোসেল্লি, লেডি গাগা, পল ম্যাককার্টনি, এল্টন জন, জেনিফার লোপেজ, টেইলর সুইফট থেকে শুরু করে সঙ্গীত অঙ্গনের সব জীবন্ত কিংবদন্তীরা৷ ইউ টু ব্যান্ড এর বুনোতো ফেসবুক লাইভে এসে তার নতুন গানই প্রকাশ করে ফেললেন এবার৷

এই লাইভ স্ট্রিমিংয়ের তোড়ে সবচেয়ে মজার ব্যাপার যেটি ঘটেছে তা হল তারকারা দর্শকের হৃদয়ের আকাশ থেকে মাটিতে নেমে এসেছেন৷ স্টুডিওর ঝলমলে আলো কিংবা চেহারা বদলে দেয়া মেকআপের প্রলেপ ছিল না তাদের মুখে৷ ছিল না ক্যামেরার পারফেক্ট ফোকাস, হোয়াইট ব্যালেন্স কিংবা চকচকে রেজ্যুলেশন বজায় রাখার তাড়না৷ মোবাইলে আর আট দশজন যেমন লাইভে হাজির হতে পারেন ঘর বা ঘরের বাইরে থেকে তেমনি তারাও হাজির হয়েছেন৷ পর্দার এতদিনের তারকা আর সাধারণের মোটাদাগের যে দূরত্বও তা যেন অনেকটা ঘুঁচে গেছে এর মধ্য দিয়ে৷

শুধু তাই নয়, সুযোগের অভাবে আড়ালে পড়ে থাকা অনেকেও ডিজিটাল দুনিয়ার পাদপ্রদীপের আলোয় নতুন ধরা পড়েছেন৷ লকডাউনে সোশ্যাল মিডিয়ার সার্বক্ষণিক কনটন্ট শিকারীদের বদৌলতে বিশাল ফ্যান ফলোয়ারও গড়েছেন অনেকে৷

DW-Mitarbeiter Porträt Faisal Ahmed (Masum Billah)

ফয়সাল শোভন,ডয়চে ভেলে

সব মিলিয়ে লাইভ স্ট্রিমিংয়ের এই ট্রেন্ড সীমাবদ্ধ ছিল না কোন মহাদেশ, দেশ কিংবা কোন একটি নির্দিষ্ট গন্ডিতে৷ সীমাবদ্ধ ছিল না তারকাদের মধ্যেও৷ সাধারণের মাঝেও যে অসাধারণত্ব রয়েছে সেটিও বড় পরিসরে মানুষ জানতে পেরেছেন৷ কোয়ারান্টিনের সময়ে ইটালির বাসিন্দাদের ব্যালকনি মিউজিকের নানা ভিডিও সারা বিশ্বের মানুষের হৃদয় ছুঁয়েছে৷

পৃথিবীতে কোন প্রযুক্তিগুত সুবিধা বা সেবাই এখন আর খুব বেশিদিন মানুষের মন যোগাতে পারে না৷ সময়ের ব্যবধানে তার নতুন কিছু না কিছু চাই৷ সোশ্যাল মিডিয়ার টেক্সট, লিংক, অডিও আর প্রথাগত ভিডিও কনটেন্টের স্তূপে মানুষ যেন অনেকটা হাঁপিয়ে উঠেছিল এরিমধ্যে৷ লাইভ স্ট্রিমিং জনপ্রিয় হয়ে উঠছিল ক্রমশই৷ এই ট্রেন্ডস মূল স্রোত হয়ে উঠতে কিছুটা সময় হয়তো লাগত৷ কিন্তু করোনায় তা অনেকটা ঘূর্নিঝড়ের মতোই হাজির হল সবার কাছে৷

হোম অফিসে কর্পোরেট দুনিয়ার মিটিং থেকে শুরু করে সাধারণের বিনোদন কিংবা যোগাযোগের অনিবার্য মাধ্যম হয়ে উঠেছে লাইভ ভিডিং স্ট্রিমিং৷ টাইম ম্যাগাজিনের দৃষ্টিতে যার স্বর্ণযুগের কেবল সূচনা ঘটেছে৷

প্রযুক্তির এই পালাবদলে মিডিয়া জগৎ কতটা বদলে যাবে কিংবা কী ধরনের নেতিবাচক উপসর্গ তৈরি হবে, কতদিনই বা কতদিনইবা আমাদের মোহবিষ্ট করে রাখবে তা-ই দেখার বিষয়৷

ইন্টারনেট লিংক

বিজ্ঞাপন