লর্ডসে এই প্রথম বাংলাদেশ! | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 04.07.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্বকাপ ক্রিকেট

লর্ডসে এই প্রথম বাংলাদেশ!

ক্রিকেট সমর্থকদের প্রায় সবাই লর্ডসের নাম জানেন৷ একজন ক্রিকেটারের জন্যও সেখানে খেলতে পারা অনেক সম্মানের৷ অথচ সেই মাঠে এখনো টাইগারদের একদিনের ক্রিকেট খেলা হয়নি৷

শুক্রবার বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো লর্ডসে একদিনের ম্যাচ খেলতে নামছে বলে ডয়চে ভেলেকে জানান বাংলাদেশ দলের মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমাম৷

ক্রিকেট খেলার আইন প্রণয়ন করে যে মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব বা এমসিসি, লর্ডস তাদেরই মাঠ৷

অবশ্য লর্ডসে এটাই প্রথম বাংলাদেশের খেলা নয়৷ এর আগে ২০০৫ ও ২০১০ সালে দুটি টেস্ট খেলেছিল টাইগাররা৷ দুটোতেই ইংলিশদের কাছে হেরে যায় তারা৷

তবে ব্যক্তিগতভাবে সফলতা দেখান শাহাদাত হোসেন ও তামিম ইকবাল৷ ২০১০ সালের টেস্টের এক ইনিংসে পাঁচ উইকেট পাওয়ায় প্রথমে শাহাদাত আর পরে ব্যাট হাতে সেঞ্চুরি (১০৩ রান) করায় তামিমের নাম উঠে যায় লর্ডসের সম্মানজনক অনার্স বোর্ডে৷

লর্ডসে খেলতে নেমে যাঁরা শতক করেন কিংবা বল হাতে পাঁচ উইকেট পান, শুধুমাত্র তাঁদের নামই ওঠে এই অনার্স বোর্ডে৷ সে কারণে শচীন টেন্ডুলকার কিংবা ব্রায়ান লারার মতো নাম নেই সেই বোর্ডে৷

অনার্স বোর্ডে নাম তোলার বিষয়টি তামিমের কাছে অনেক সম্মানের ছিল৷ পরবর্তীতে লর্ডস কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে তিনি সেটি উল্লেখও করেন৷ তামিম জানান, সেঞ্চুরি করে নাম ওঠার আগে তিনি নাকি অর্ধশতকের মালিকদের নাম দিয়ে আরেকটি বোর্ড তৈরির প্রস্তাব দিয়েছিলেন এবং সেটার খরচও তিনি বহন করতে চেয়েছিলেন!

শুরুতে শুধুমাত্র টেস্টে সফল ক্রিকেটারদের নাম উঠলেও চলতি বছর থেকে একদিনের ম্যাচের নায়কদের নামও সেখানে অন্তর্ভুক্ত করা শুরু হয়েছে৷ ফলে শুক্রবার বাংলাদেশ যখন প্রথমবারের মতো খেলতে নামবে, তখন অন্য টাইগারদেরও এই অনন্য সম্মানের অধিকারী হওয়ার সুযোগ থাকবে৷ পাকিস্তানের সঙ্গে ভালো করতে এটিও একটি অনুপ্রেরণা হয়ে উঠতে পারে৷

জেডএইচ/এসিবি (ইএসপিএনক্রিকইনফো)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন