রোহিঙ্গা ফেরাতে উদ্যোগী হতে হবে বাংলাদেশকে: সুচি | বিশ্ব | DW | 21.08.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

রোহিঙ্গা ফেরাতে উদ্যোগী হতে হবে বাংলাদেশকে: সুচি

রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ বাংলাদেশকেই নিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচি৷ তবে কবে নাগাদ এ প্রক্রিয়া শুরু হতে পারে সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো সময় বেঁধে দিতে রাজী হননি তিনি৷

সিঙ্গাপুরে দেয়া এক বক্তৃতায় সুচি বলেন, ‘‘যারা ফিরতে চায়, তাদের ফেরাতে বাংলাদেশকেই ব্যবস্থা নিতে হবে৷ আমরা শুধু তাদেরকে সীমান্তে স্বাগত জানাতে পারি৷''

মিয়ানমারে ফেরত যেতে আগ্রহী রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তার ব্যাপারে আলোকপাত না করলেও তিনি বল ঠেলে দিলেন বাংলাদেশের কোর্টেই৷ বললেন, ‘‘বাংলাদেশকেও সিদ্ধান্ত নিতে হবে কত তাড়াতাড়ি তারা এ প্রক্রিয়া শুরু করতে চায়৷''

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সন্ত্রাসবাদ এখনো বড় হুমকি এবং এর কারণে পুরো অঞ্চল ‘হুমকির মুখে' রয়েছে বলে মনে করেন দেশটির নেত্রী অং সান সুচি৷

সিঙ্গাপুরে দেয়া এক বক্তৃতায় সুচি বলেন, ‘‘রাখাইন রাজ্যে মানবিক সংকট শুরু হওয়ার মূলে ছিল সন্ত্রাসী কার্যক্রম৷ এবং এখনো তা সমানভাবে বিদ্যমান৷''

তিনি বলেন, ‘‘দ্রুত এই নিরাপত্তা হুমকি মোকাবেলা করা না হলে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা চলতেই থাকবে৷ এই হুমকি শুধু মিয়ানমারের জন্য নয়, এই অঞ্চলের অন্যান্য দেশের জন্যও ভয়াবহ ফল বয়ে আনতে পারে৷''

গণতন্ত্রের জন্য মিয়ানমারের সংগ্রামের প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হতো এই নোবেলবিজয়ীকে৷ কিন্তু রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর সেনাসহিংসতার বিরোধিতা করতে ব্যর্থ হওয়ায় এখন তাঁর সমালোচনায় মুখর বিশ্ব৷ রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সহিংসতাকে জাতিসংঘ এরই মধ্যে ‘জাতিগত নিধন' বলে উল্লেখ করেছে৷

গত বছর সাত লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম বৌদ্ধ অধ্যুষিত মিয়ানমার থেকে পালিয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে প্রবেশ করে৷ মিয়ানমার অবশ্য বরাবরই  সব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে৷ বরং রোহিঙ্গাদেরই পালটা ‘সন্ত্রাসী' ও ‘জঙ্গি' বলে আখ্যা দিয়ে আসছে দেশটির সেনাবাহিনী ও সরকার৷

এডিকে/এসিবি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন