রোহিঙ্গা তাড়ানো বিষয়ে তদন্ত করতে চান যুদ্ধাপরাধ কৌঁসুলি | বিশ্ব | DW | 10.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

রোহিঙ্গা সংকট

রোহিঙ্গা তাড়ানো বিষয়ে তদন্ত করতে চান যুদ্ধাপরাধ কৌঁসুলি

মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গাদের বিতাড়নের বিষয়টি তদন্ত করার এখতিয়ার হেগের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত, আইসিসির আছে কিনা, সে ব্যাপারে জানতে চেয়েছেন ঐ আদালতেরই একজন কৌঁসুলি৷ আদালতে দাখিল করা নথিপত্র থেকে এ তথ্য জানা গেছে৷

default

কৌঁসুলি ফাতু বেনসুদা

বিষয়টি নিয়ে একটি শুনানির আয়োজন করতে আইসিসিকে অনুরোধ জানিয়েছেন কৌঁসুলি ফাতু বেনসুদা৷ শুনানিতে বেনসুদা তাঁর যুক্তি তুলে ধরতে চান৷ পাশাপাশি আগ্রহী ব্যক্তি ও সংস্থাও তাদের যুক্তি তুলে ধরার সুযোগ পাবেন৷

বেনসুদার এই আবেদন বিবেচনার দায়িত্ব পড়েছে কঙ্গোর বিচারপতি অ্যান্টোনি কেসিয়া-এমবে মিন্দুয়ার উপর৷

এই বিষয়ে আইসিসির রায় যদি বেনসুদার পক্ষে যায় তাহলে তিনি রোহিঙ্গা বিতাড়নের বিষয়ে তদন্ত করার সুযোগ পাবেন৷ যদিও মিয়ানমার এক্ষেত্রে সহায়তা করবে কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে৷ কারণ বাংলাদেশ আইসিসির সদস্য হলেও মিয়ানমার নয়৷ তাছাড়া মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন চালানোর যে অভিযোগ রয়েছে তা প্রত্যাখ্যান করে আসছে দেশটি৷

তবে বেনসুদার যুক্তি হচ্ছে, বিতাড়নের সঙ্গে যেহেতু সীমান্ত পারাপারের বিষয়টি জড়িত তাই আইসিসি যদি তদন্ত করার পক্ষে রায় দেয় তাহলে তা বিদ্যমান আইনের ভিত্তিতেই হবে৷

অবশ্য তিনি বিতাড়ন সংক্রান্ত অপরাধের সংজ্ঞা আর আইসিসির এখতিয়ারের সীমাবদ্ধতা বিষয়ে অনিশ্চয়তা থাকার বিষয়টিও স্বীকার করেছেন৷

জাতিসংঘের হিসেবে, গত আগস্ট মাসের পর থেকে মিয়ানমার থেকে প্রায় সাত লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে৷ আগস্টে একটি জঙ্গি হামলার পর মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী রাখাইন অঞ্চলে অভিযান শুরু করে৷ এই অভিযানকে ‘জাতিগত নিধন’এর সঙ্গে তুলনা করেছে জাতিসংঘ

মিয়ানমার এ সব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলেছে, দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী যৌক্তিক কারণে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়েছে৷ কারণ রোহিঙ্গারাই সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে হামলা চালিয়েছিল বলে পাল্টা অভিযোগ করেছে মিয়ানমার৷

জেডএইচ/ডিজি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন