রোহিঙ্গা ক্যাম্পে করোনা নিয়ন্ত্রণে সফলতার দাবি | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 07.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে করোনা নিয়ন্ত্রণে সফলতার দাবি

মে মাসে প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়ার পর জনবহুল রোহিঙ্গা ক্যাম্পে করোনা মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা ছিল৷ তবে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ায় তা সফলভাবে ঠেকানো গেছে বলে মনে করছে কর্তৃপক্ষ৷

(Getty Images/AFP/S. Rubel)

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে করোনা সংক্রমণ ঠেকানো গেছে৷

মে মাস থেকে এখন পর্যন্ত ক্যাম্পের ৭২৪ জন রোহিঙ্গাকে পরীক্ষা করা হয়েছে৷ এর মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছেন ৫৪ জন৷ এখন পর্যন্ত ভাইরাসটি আক্রান্ত হয়ে পাঁচজন মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের শরণার্থী বিষয়ক কমিশনার মাহবুব আলম তালুকদার৷ বার্তা সংস্থা এএফপিকে তিনি বলেন, ‘‘আমরা সফলতার সাথে প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে পেরেছি৷’’

গোটা কক্সবাজার জেলায় ২৪ লাখ মানুষের বাস৷ তার মধ্যে দুই হাজার ৭৭৬ জনকে করোনা আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে৷ মারা গেছেন ৬০ জন, জানান মাহবুব আলম তালুকদার৷

ভিডিও দেখুন 03:47

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্বাস্থ্যবিধি মানার সুযোগ কতটা?

রোহিঙ্গাদের মধ্যে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ার শুরুর পর্যায়েই ত্রিশটির বেশি ক্যাম্পে লকডাউন কার্যকর করা হয়৷ রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পের বাইরে যাওয়ার উপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়৷ পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি মানতে কৃর্তৃপক্ষ ক্যাম্পে ব্যাপক প্রচার চালিয়েছে বলে জানান কুতুপালং আশ্রয়কেন্দ্রের শিক্ষক মোহাম্মদ শাফি৷ এই সময়ে ক্যাম্পের বেশিরভাগ দোকান বন্ধ রাখা হয়েছে৷ বাহির থেকে সহায়তা কর্মীদের ক্যাম্পে প্রবেশেও নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হয়৷ রোহিঙ্গাদের মধ্যে সাবানও বিতরণ করেছে কর্তৃপক্ষ৷

তবে গত কয়েক সপ্তাহে অনেকে মৌসুমি ফ্লু, মাথা ও শরীর ব্যথা আর ডায়রিয়ায় ভুগেছেন বলে জানিয়েছেন শাফি৷

‘‘বেশিরভাগই হাসপাতালে যেতে পারেননি৷ তার বদলে তারা (ক্যাম্পের) স্থানীয় ফার্মেসি থেকে ওষুধ নিয়েছেন,’’ বলেন তিনি৷ ক্যাম্পে পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করা হয়নি এবং সেখানে যারা মারা গেছেন তাদেরকেও পরীক্ষার আওতায় আনা হয়নি৷

এফএএস/এসিবি (এএফপি)

গত বছরের সেপ্টেম্বরের ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন