রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর পরিকল্পনায় নতুন সংকট দেখছে জাতিসংঘ | বিশ্ব | DW | 12.03.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

রোহিঙ্গা সংকট

রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর পরিকল্পনায় নতুন সংকট দেখছে জাতিসংঘ

২৩,০০০ রোহিঙ্গাকে ভাসানচর দ্বীপে স্থানান্তরের পরিকল্পনা নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের মিয়ানমার বিষয়ক মানবাধিকার তদন্তকারী এক কর্মকর্তা৷ তাঁর মতে দ্বীপটি সম্ভবত বসবাস উপযোগী নয়, ফলে নতুন সংকট তৈরি হতে পারে৷

৭,৩০,০০০ রোহিঙ্গা অধ্যুষিত ক্যাম্পের উপর চাপ কমাতে কক্সবাজার থেকে তাদেরকে হাতিয়ার ভাসানচরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা করেছে বাংলাদেশ সরকার৷ কিন্তু ঘূর্ণিঝড়ে ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার কারণে জায়গাটিকে বসবাস অনুপযোগী হিসেবে অভিহিত করে এই পরিকল্পনার সমালোচনা করে আসছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন৷

জাতিসংঘের মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত ইয়াংঘি লি গেল জানুয়ারিতে দ্বীপটি সফর করেছেন৷ সোমবার এ নিয়ে জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থার কাছে নিজের মতামত জানান তিনি৷ বলেন, ‘‘এই সফরের পরও বেশ কিছু বিষয়ে আমি এখনও নিশ্চিত নই, বিশেষ করে দ্বীপটি সত্যিকার অর্থেই বসবাস উপযোগী কিনা৷'' 

অপরিকল্পিতভাবে এবং শরণার্থীদের মতামত না নিয়ে স্থানান্তর পরিকল্পনা হাতে নেয়ায় নতুন সংকট তৈরি হতে পারে বলেও জানান তিনি৷

তবে বিষয়টি নিয়ে জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার সাথে সরকার আলোচনা করেছে বলে দাবি করেন বাংলাদেশের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সচিব শাহ কামাল৷ তিনি বলেন, ‘‘সংস্থাগুলো এই বিষয়ে সম্মতি জানিয়েছে৷ স্থানান্তর প্রক্রিয়াসহ অন্য সব বিষয় তাদের সাথে আমরা এখন চূড়ান্ত করছি৷'' আবাসন, বিদ্যুৎ, স্বাস্থ্যসেবা, যোগাযোগ ব্যবস্থা, বাঁধ নির্মাণ, সাইক্লোন শেল্টার সেন্টারসহ সব ধরণের সুযোগ সুবিধাই সেখানে নিশ্চিত করা হয়েছে বলেও তিনি রয়টার্সকে জানিয়েছেন৷ ‘‘আমরা একটি বাঁধ তৈরি করেছি, কাজেই বন্যা নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনো কারণ নেই,'' বলেন তিনি৷

তদন্তের জন্য বাংলাদেশে আইসিসি কর্মকর্তারা

সহিংসতা ও মানবিক সাহায্যের অভাবে গেল নভেম্বর থেকে ১০,০০০ নাগরিক মিয়ানমারের  রাখাইন রাজ্যে নিজেদের বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছেন বলে জেনেভা ফোরামকে জানিয়েছেন লি৷ তিনি মিয়ানমারের নৃশংসতার অভিযোগ আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত আইসিসির কাছে তুলে ধরতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহবান জানান৷ 

এদিকে, রোহিঙ্গা বিতাড়নের ঘটনায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে বিচার প্রক্রিয়া শুরু করা যায় কিনা প্রাথমিকভাবে তা খতিয়ে দেখতে আইসিসির কর্মকর্তারা বাংলাদেশে এসেছেন বলেও জানিয়েছেন লি৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি খুবই আশাবাদী৷ এটি অভূতপূর্ব একটি ঘটনা৷ এটা খুবই ছোট পদক্ষেপ৷ কিন্তু আমার আশা এর মাধ্যমে বিচারের বড় দুয়ার খুলে যাবে৷'' মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গাদের জোরপূর্বক বিতাড়নের মাধ্যমে যুদ্ধাপরাধ কিংবা মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটিত হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে গত সেপ্টেম্বরে প্রাথমিক পরীক্ষা শুরু করেন আইসিসির তদন্ত কর্মকর্তারা৷ যদিও মিয়ানমার এখনও এই আদালতের সদস্য নয়৷ সে কারণে মিয়ানমারের বিচার করার অধিকার তাদের নেই বলে মন্তব্য করেছেন মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত কিয়াও মো তুন৷

এফএস/জেডএ (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন