রোহিঙ্গাদের সাহায্যে এগিয়ে আসার আহ্বান | পাঠক ভাবনা | DW | 30.08.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

মতামত

রোহিঙ্গাদের সাহায্যে এগিয়ে আসার আহ্বান

রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে থাকা যেমন কঠিন, বাংলাদেশে প্রবেশ করাও ঠিক তেমনি৷ রোহিঙ্গাদের এই সমস্যা সমাধানে ডয়চে ভেলের অনেক পাঠকই জাতিসংঘের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন৷ তবে ভিন্নমতও রয়েছে কয়েকজনের৷

রোহিঙ্গাদের কষ্টে ডয়চে ভেলের পাঠক রফিকুল ইসলাম সোহেল কষ্ট পাচ্ছেন৷ ফেসবুক পাতায় তাঁর মন্তব্য, ‘ ‘রাখাইনদের উপরে এই হামলা মধ্যযুগীয় বর্বরতাকে হারমানাচ্ছে ৷ মানবতা শুধু ক্ষমতাবান দেশগুলোর জন্য৷ আজ কোথায় জাতি সংঘ? ''

জাতিসংঘ কোন পদক্ষেপ নিচ্ছে না কেন তা পাঠক নিলয়ও বুঝতে পারছে না৷

মর্তুজা চৌধুরীর লিখেছেন, ‘‘মানবাধিকার সংগঠন ও বিশ্বমানবতার কন্ঠ আজ নিরব কেন? মানুষ হত্যা নয়, মুসলিম হত্যা চলছে বলে? মুসলিমবিদ্বেষ আজ কোথায় গিয়ে ঠেকেছে, এ ঘটনা তারই স্বাক্ষর বহন করছে৷''

মারুফ আহমেদ মনে করেন এটা একটা বড় ইস্যু৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘এখানে যত দ্রুত সম্ভব বিশ্বের মুসলিম দেশগুলোর প্রধানদের এগিয়ে আসতে হবে এবং জাতিসংঘের সাথে বসতে হবে এবং এর সমাধান করতে হবে৷ এভাবে তো চলতে পারে না৷ আমাদের শুধু দেখে দেখে দু'চোখের জল ফেলা ছাড়া আর কিছুই করার নাই৷''

‘‘ওরা রোহিঙ্গা নয়, ওদের বড় পরিচয় হচ্ছে ওরাও মানুষ'' – এ কথা বলে রোহিঙ্গাদের বাঁচানোর তাগিদ দিয়েছেন মো. রঞ্জু৷

‘‘গুলির মুখে বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় রোহিঙ্গারা' এই শিরোনামে ডয়চে ভেলের প্রতিবেদনটি পড়ার পর পাঠক রাতুল হাসান সোহাগ ডয়চে ভেলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি লিখেছেন,  ‘‘আপনাদের সংবাদটি প্রচারণার ওপর যথেষ্ট সম্মান রেখেই বলছি, ওরা দুদিকেই গুলির মুখোমুখি নয়৷ ওরা শুধু মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর গুলির মুখে আর বাংলাদেশের বিজিবির বাধার মুখে৷ বাংলাদেশের বিজিবি তাদের কখনো গুলি করেনি৷ করলে এতগুলো রোহিঙ্গা বাংলাদেশে জায়গা পেতো না৷ আশা করি, আপনাদের ব্যাপারটা বোঝাতে পেরেছি৷''

অন্যদিকে রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারেই পাঠিয়ে দেয়া উচিত বলে মনে করেন পাঠক সজল মাহমুদ৷ আসিকিন হক ভাবছেন, নিজের দেশের কথা৷ তাঁর মতে, বাংলাদেশেই এত সমস্যা, এর ওপর রোহিঙ্গাদের বাড়তি ঝামেলা নেওয়ার প্রয়োজন নেই৷

তবে মোহাম্মদ লোকমান হাকিম বলছেন ‘‘আমি চাই রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আসতে দেওয়া হোক৷ ধর্মের করণে নয়, মানুষ হিসেবে৷ মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারত বাংলাদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষকে আশ্রয় দিয়েছিল৷ তাহলে বাংলাদেশে কেন রোহিঙ্গাদের আশ্রয় হবে না?''

সংকলন: নুরুননাবহার সাত্তার

সম্পাদনা: আশীষ চক্রবর্ত্তী

নির্বাচিত প্রতিবেদন