রোহিঙ্গাদের মধ্যে করোনা আতঙ্ক | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 26.03.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

রোহিঙ্গাদের মধ্যে করোনা আতঙ্ক

কক্সবাজারের বিভিন্ন শিবিরে বাস করা রোহিঙ্গাদের মধ্যে করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে৷ পরিস্থিতি সামাল দিতে ঐ এলাকায় ইন্টারনেট সেবা চালুর আহ্ৱান জানিয়েছে জাতিসংঘ৷

গত বছরের শেষ দিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে দেয়া হয়৷ ফলে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে রোহিঙ্গারা পর্যাপ্ত তথ্য পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ করছেন স্থানীয় রোহিঙ্গা নেতারা৷

‘‘আমাদের অনেকেই জানেন না এই ভাইরাসটা কী, এর মাধ্যমে কী রোগ ছড়ায়? মানুষ শুধু শুনেছে এর কারণে অনেক মানুষ মারা যাচ্ছেন৷ ইন্টারনেট না থাকায় কী ঘটছে, আমরা জানতে পারছি না,'' বলেন রোহিঙ্গা নেতা সৈয়দ উল্লাহ৷ ইন্টারনেট না থাকায় অনেক ভুল তথ্য ছড়িয়ে পড়ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি৷ ‘‘আমরা আল্লাহর দয়ার উপর ভরসা করছি,'' এএফপিকে বলেন সৈয়দ উল্লাহ৷

বিদেশে বাস করা রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে অনেকে ইতিমধ্য টেলিফোনে করোনা ভাইরাস সম্পর্কে জানতে পেরেছেন৷ 

এছাড়া গত সপ্তাহে ভারত থেকে ফেরা চার সদস্য়ের একটি রোহিঙ্গা পরিবারকে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে কোয়ারান্টিনে নেয়ার খবরে রোহিঙ্গাদের মধ্যে করোনা নিয়ে আতঙ্ক তৈরি হয়৷ এরপর কক্সবাজারে এক নারীর করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর এই আতঙ্ক আরও বাড়িয়ে দেয়৷ 

‘‘আমরা খুবই আতঙ্কিত৷ ভাইরাস যদি এখানে আসে তাহলে দাবানলের মতো তা ছড়িয়ে পড়তে পারে'' বলে মনে করছেন আরেক রোহিঙ্গা নেতা মোহাম্মদ জুবায়ের৷ ‘‘অনেক ত্রাণকর্মী ও স্থানীয় কমিউনিটি কর্মী প্রতিদিন ক্যাম্পে ঢোকেন৷ অভিবাসী কয়েকজন রোহিঙ্গাও সম্প্রতি এখানে ফিরে এসেছেন৷ তারা হয়ত ভাইরাসটা বহন করছেন,'' বলেন তিনি৷

ক্যাম্পে বাস করা আরেক রোহিঙ্গা লোকমান হাকিম ক্যাম্পগুলোতে করোনা প্রতিরোধে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না নেয়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাদের শুধু সাবান দেয়া হয়েছে এবং হাত ধুতে বলা হয়েছে৷''

টেকনাফের কুতুপালং শরণার্থী শিবিরের বেশিরভাগ রাস্তার প্রস্থ দুই মিটারের মতো৷ করোনার বিস্তার কমাতে বিভিন্ন দেশ তাদের নাগরিকদের এক অপরের চেয়ে এই পরিমাণ দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ দিচ্ছে৷

এছাড়া ক্যাম্পগুলোর ১০ বর্গমিটার আকারের একেকটি ঘরে সর্বোচ্চ ১২ জন করে থাকেন৷ ‘‘পাশের ঘর থেকে প্রতিবেশীর শ্বাস নেয়ার শব্দ শোনা যায়,’’ বলে জানান একজন ত্রাণকর্মী৷

ডক্টর উইদাউট বর্ডারের বাংলাদেশ প্রধান পল ব্রোকম্যান বলছেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ‘‘আসলে অসম্ভব’’৷

ইতিমধ্যে ক্যাম্পগুলোতে হাত ধোয়া ও হাইজিন ক্যাম্পেন চালু করেছে জাতিসংঘ৷ এছাড়া ক্যাম্পগুলোতে স্বাভাবিক ইন্টারনেট সেবা চালু করতে বাংলাদেশ সরকারকে আহ্বান জানিয়েছে তারা৷ জীবন বাঁচানো কর্মসূচির সফলতার জন্য দ্রুত ও কার্যকর যোগাযোগ প্রয়োজন বলে জানান ক্যাম্পে কাজ করা জাতিসংঘের মুখপাত্র লুইস ডনোভান৷

তবে ক্যাম্পে ইন্টারনেট সেবা চালুর বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে চায়নি বাংলাদেশের শরণার্থী বিষয়ক কমিশনারের কার্যালয়৷

অবশ্য ক্যাম্পগুলোতে বাইরের যোগাযোগ কমানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন কমিশনার কার্যালয়ের কর্মকর্তা বিমল চাকমা৷ ‘‘আমরা ক্যাম্পে ত্রাণ কার্যক্রম কমিয়েছি৷ শুধুমাত্র খাবার, স্বাস্থ্য ও আইন সংক্রান্ত কাজ চলবে,’’ বলে জানান তিনি৷

জেডএইচ/এসিবি (এএফপি) 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন