‘রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়াই সংকটের সমাধান’ | বিশ্ব | DW | 04.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

‘রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়াই সংকটের সমাধান’

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মনে করে, রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নেয়াই রোহিঙ্গা সংকটের একমাত্র সমাধান৷ আর জাতিগত নিধনের যে ঘটনা ঘটেছে তার জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে তদন্ত চায় দেশটি৷

শনিবার ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন যুক্তরাষ্ট্রের জনসংখ্যা, শরণার্থী ও অভিবাসন ব্যুরোর ভারপ্রাপ্ত সহকারী মন্ত্রী সাইমন হেনশ ও পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের মুখপাত্র হিদার নুয়ার্ট৷ সংবাদ সম্মেলনে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাটও উপস্থিত ছিলেন৷ মার্কিন মন্ত্রী মিয়ানমার সফরের পর বাংলাদেশে আসেন৷ তিনি একটি প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন৷ বাংলাদেশে তিনি কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরনার্থীদের আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন৷

সাইমন হেনশ বলেন, ‘‘বাংলাদেশ সরকার ও বাংলাদেশের নাগরিকদের উদারতা এবং মানবিকতার প্রশংসা করি আমি৷ তারা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছেন৷ রোহিঙ্গারা জাতিগত নিধনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে৷ এবং ২৫ আগস্টের পর থেকে ছয় লাখের মত রোহিঙ্গা নারী শিশু ও পুরুষ বাংলাদেশে আসতে বাধ্য হয়েছে৷ এটা একটি বড় মানবিক সংকট৷''

তাঁর মতে এই সংকটের সমাধান হতে পারে শুধুমাত্র রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার মধ্য দিয়েই৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি মিয়ানমার সরকারের সঙ্গে কথা বলেছি দ্রুত রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার আহ্বান জানিয়েছি৷ তারা যাতে সেখানে ফেরত গিয়ে নিরাপদে ও মর্যাদার সঙ্গে বসবাস করতে পারে সেই ব্যবস্থা করতে হবে৷''

বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে দেরী করছে মিয়ানমারের এমন দাবী প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘ফেরত নেয়ার কাজটি মিয়ানমারকেই করতে হবে৷ এটা তাদেরই কাজ৷ কত দ্রুত তারা ফেরত নিতে পারে সেটা তাদের বিষয়৷ বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের মানবিক আশ্রয় দিয়েছে৷ আর এখানে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা ত্রাণ সহায়তা চালাচ্ছে৷ তাই বাংলাদেশ বিদেশি সহায়তার আশায় রোহিঙ্গাদের ফেরত দিতে দেরি করছে এমন কথা মানা যায়না৷''

মার্কিন মন্ত্রী বলেন, ‘‘বাংলাদেশ মিয়ানমারের সঙ্গে যে আলোচনা শুরু করেছে সেটা চালিয়ে যাওয়া গুরুত্বপূর্ণ৷ এই আলোচনার মাধ্যমেই সমাধান আসবে৷ এই সংকটটি একটি জটিল এবং এর দীর্ঘ ইতিহাস আছে৷''

মিয়ানমারের ওপর আরো কোনো কঠোর অবরোধ যুক্তরাষ্ট্র আরোপ করবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘আমরা মিয়ানমারকে বলেছি যারা বা যেসব ব্যক্তি জাতিগত নিধনের সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে৷ যেসব ব্যক্তি মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছি৷ মিয়ানমারে গণতান্ত্রিক উত্তরণের প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে৷ আমরা রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে মিয়ানমারকে চাপ দিচ্ছি৷ কূটনীতিক তৎপরতা চালাচ্ছি৷ আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও কাজ করছি৷''

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী টিলারসন মিয়ানমারে যাচ্ছেন, বাংলাদেশে আসবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হিদার নুয়ার্ট বলেন, ‘‘সংকটের যেখানে শুরু সেখানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রথমে যাচ্ছেন৷ আমি ঢাকায় আসার আগে তাঁর সঙ্গে বৈঠক করেছি৷ তিনি আমাকে বলেছেন রোহিঙ্গা সংকটকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র৷''

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সহায়তায় যুক্তরাষ্ট্র এপর্যন্ত ১০৪ মিলিয়ন ডলার দিয়েছে বলেও জানান তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন