রোহিঙ্গাদের কারণে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন স্থানীয়রা | বিশ্ব | DW | 04.04.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

রোহিঙ্গাদের কারণে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন স্থানীয়রা

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কারণে কক্সবাজারের স্থানীয়রা খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে আন্তর্জাতিক এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে৷ ডয়চে ভেলের সঙ্গে আলাপকালেও স্থানীয়রা অস্বাভাবিক এক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছেন৷

‘২০১৯ গ্লোবাল রিপোর্ট অন ফুড ক্রাইসিস' নামের একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ‘গ্লোবাল নেটওয়ার্ক অ্যাগেনস্ট ফুড ক্রাইসিস' সংস্থা৷ জাতিসংঘের খাদ্য সংস্থা, বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন এই সংস্থার সদস্য৷ 

অডিও শুনুন 00:44

‘নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দামও বেড়ে গেছে’

এই প্রতিবেদন বলছে, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কারণে কক্সবাজারের স্থানীয় মানুষের মধ্যে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা চরম আকার ধারণ করেছে৷ মঙ্গলবার প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়৷ প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশসহ মিয়ানমার, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের প্রায় ১ কোটি ৪৭ লাখ মানুষ তীব্র খাদ্য নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে আছেন৷ 

কক্সবাজারের ১৫ লাখ মানুষের তথ্য বিশ্লেষণ করে প্রতিবেদন জানাচ্ছে, সেখানে খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় থাকা মানুষের সংখ্যা ১৩ লাখ৷ এদের মধ্যে স্থানীয় ও রোহিঙ্গা উভয় জনগোষ্ঠীর সদস্যরাই আছেন৷ তবে শরণার্থীদের ক্ষেত্রে এ সংকটের তীব্রতা বেশি৷

প্রতিবেদনে বলা হয়, কক্সবাজারে অনেকেই আবাদী জমি ও মৎস্যক্ষেত্রের নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছেন৷ তাদের অনেকেই দিনমজুর হিসেবে কাজ করতে বাধ্য হয়েছেন৷ সস্তায় শরণার্থী পাওয়া যায় বলে স্থানীয়দের কাজের সুযোগ কমেছে, মজুরিও কমে গেছে৷

‘অস্বাভাবিক পরিস্থিতি'

কক্সবাজারের কুতুপালং এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘অন্যান্য খাদ্যদ্রব্যের পাশাপাশি মাছের সংকটও দেখা দিয়েছে৷ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দামও বেড়ে গেছে৷ বিপরীতে স্থানীয় মানুষের কাজের সুযোগ কমে যাচ্ছে৷ স্থানীয় দিনমজুররা কাজ পাচ্ছেন না, কারণ রোহিঙ্গারা কম মজুরিতে কাজ করেন৷ ফলে এক অস্বাভাবিক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে৷'' 

তিনি বলেন, ‘‘রোহিঙ্গারা ত্রাণ সহায়তা পেলেও স্থানীয় দরিদ্র মানুষরা তা পাচ্ছেনা৷ আবার ত্রাণ বিতরণে আছে অব্যস্থাপনা৷ কেউ কেউ উদ্বৃত্ত ত্রাণ বাজারে বিক্রিও করে দিচ্ছে৷ তারা স্থানীয়দের ছোট খাট ব্যবসায়ও ভাগ বসিয়েছে৷''

টেকনাফের আরেকজন স্থানীয় বাসিন্দা জিয়াউল করিম ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘রোহিঙ্গারা ক্যাম্পের বাইরেও আছেন৷ ক্যাম্প এলাকার আশপাশ ছাড়াও আরো অনেক এলাকার কৃষি জমি দখল হয়ে গেছে, বনভূমিও উজার হচ্ছে৷ ফলে কৃষি ও শাকসবজি উৎপাদন কম হচ্ছে৷ সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে, এখানে এখন নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম অন্য এলাকার চেয়ে অনেক বেশি৷ রোহিঙ্গারাতো সরকারি সহায়তা পায়, স্থানীয়রাতো পায়না৷ স্থানীয় অনেকের থাকার জায়গাও নাই৷ ফলে ভারসাম্যহীন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে৷''

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘রোহিঙ্গাদের এখানে থাকার ও খাবার নিশ্চয়তা আছে৷ যে কাজের দাম ৫০০ টাকা সেটা তারা ৩০০ টাকায় করতে পারে৷ ফলে স্থানীয় শ্রমিকরা মার খাচ্ছে৷'' 

অডিও শুনুন 04:14

‘আমরা গত ১০-১২ বছর ধরে খাদ্যে সয়ংসম্পূর্ণ’

জিয়াউল করিম আরো বলেন, ‘‘এই পরিস্থিতি চলতে থাকলে কক্সবাজার এলাকায় তীব্র খাদ্য ও কাজের সংকট তৈরি হবে, যা প্রধানত স্থানীয় বাসিন্দাদের বিপাকে ফেলবে৷''

কক্সবাজারের কুতুপালং ক্যাম্পের রোহিঙ্গা শরণার্থী সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘‘আমরা ত্রাণ পাচ্ছি৷ তবে বাইরে খাদ্যের দাম অনেক বেশি৷ আর এখন যেহেতু সব মিলিয়ে মানুষ বেশি, তাই খাবারের টানতো থাকবেই৷''

বিশেষজ্ঞ মত

বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান, বিআইডিএস এর অর্থনীতিবিদ ড. নাজনীন আহমেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশে রোহিঙ্গারা যখন থেকে আসা শুরু করেছে তখনই খাদ্য নিরাপত্তার ব্যাপারে সরকারকে সতর্ক করা হয়েছে৷ আর আমরা তখন থেকেই বলেছিলাম খাদ্য কিন্তু অর্থ থাকলেও কেনা যায়না৷ খাদ্যের সংস্থান থাকতে হয়৷ আমরা গত ১০-১২ বছর ধরে খাদ্যে সয়ংসম্পূর্ণ৷ আমরা যে কিছু চাল আমদানি করি তা কিন্তু চালের ঘাটতির কারণে নয়৷ বিশেষ ধরণের কিছু চাল বিশেষ প্রয়োজনে আমদানি করা হয়৷ এখন যে ১৩ লাখ অতিরক্ত মানুষের (রোহিঙ্গা) চাপ নিতে হচ্ছে, তাদের খাওয়াতে হচ্ছে, তার নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে৷ কারণ আমাদের উদ্বৃত্ত এত বেশি না যে আমরা তাদের বছরের পর বছর খাওয়াতে পরি৷ ফলে এখন আমরা খাদ্য নিরাপত্তাহীন দেশের তালিকায় চলে গেছি৷''

অডিও শুনুন 02:58

‘রোহিঙ্গারা ক্যাম্পের বাইরেও আছেন’

তিনি বলেন, ‘‘রোহিঙ্গাদের খাদ্য চাহিদা স্থানীয় উৎপাদন বা বাজার থেকে মেটালে এখানে খাদ্যের দাম বেড়ে যাবে৷ সারাদেশেই তার প্রভাব পড়বে৷ তাই খাদ্য আমদানি করে তাদের চাহিদা মেটাতে হবে৷ নয়তো বাজারের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যাবে৷ সরকারকে এখনই ঠিক করতে হবে রোহিঙ্গাদের জন্য কোথা থেকে চাল আমদানি করা হবে৷ অর্থের সংস্থান কীভাবে হবে৷''

তাঁর মতে, ‘‘স্থানীয় পর্যায়ে সংকট আরো বেশি হবে৷ সঠিক পরিকল্পনা না নিলে খাদ্যের সংকট ছাড়াও সামাজিক, নিরাপত্তা, কর্মসংস্থান, স্যানিটেশন এগুলোর সংকট আরো বাড়বে৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন