রোজিনার জামিন নিয়ে আদেশ রোববার | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 20.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

রোজিনার জামিন নিয়ে আদেশ রোববার

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের জামিন নিয়ে আদেশ দেওয়া হবে আগামী রোববার৷ ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ভার্চ্যুয়ালি জামিন শুনানি শেষে একথা জানান আদালত৷

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের জামিন নিয়ে আদেশ দেওয়া হবে আগামী রোববার৷ ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ভার্চ্যুয়ালি জামিন শুনানি শেষে একথা জানান আদালত৷

মঙ্গলবার রোজিনাকে ঢাকার সিএমএম আদালতে হাজির করা হয়

আদালতে রোজিনা ইসলামের জামিন শুনানিতে অংশ নেন তার আইনজীবীরা৷ আদালতের সামনে ভিড় করেন গণমাধ্যমকর্মীরা ৷ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরাও ছিলেন সেখানে৷ রোজিনা ইসলামের স্বামী মনিরুল ইসলাম ও স্বজনেরা আদালতের বাইরে অপেক্ষা করছিলেন৷ 

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্ট ও দণ্ডবিধিতে করা এই মামলার তদন্তের দায়িত্ব গতকাল বুধবার ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগকে (ডিবি) দেওয়া হয়েছে৷ ডিবির রমনা বিভাগের উপকমিশনার এইচ এম আজিমুল হক প্রথম গণমাধ্যমকে বলেন, মামলাটির তদন্তভার তারা পেয়েছেন এবং শাহবাগ থানা থেকে নথিপত্র বুঝে নেবেন৷ 

গত মঙ্গলবার পুলিশ রোজিনা ইসলামকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে হাজির করে এবং জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড চেয়ে আবেদন করে৷ রোজিনা ইসলামের জামিনের আবেদন জানান তাঁর আইনজীবীরা৷ শুনানি নিয়ে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিম রিমান্ড আবেদন নাকচ করেন এবং রোজিনার জামিন আবেদনের ওপর অধিকতর শুনানির জন্য ২০ মে দিন ধার্য করেন৷ সেদিন আদালতের নির্দেশে রোজিনাকে কারাগারে পাঠানো হয়৷

ভিডিও দেখুন 15:32

সাংবাদিক রোজিনার গ্রেফতার ও অফিসিয়াল সিক্রেটস আইন

রোজিনার আইনজীবী এহসানুল হক সমাজী প্রথম আলোকে গতকাল বলেন, রোজিনা ইসলাম ন্যায়বিচার পাবেন বলে আইনমন্ত্রী ইতিমধ্যে আশ্বাস দিয়েছেন৷ জামিন চেয়ে তার করা আবেদনের আজ বৃহস্পতিবার ভার্চ্যুয়ালি শুনানির দিন ধার্য রয়েছে৷ তিনি বলেন, রোজিনা ইসলাম একজন নারী, তিনি অসুস্থ, সর্বোপরি তাঁর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে, তা ত্রুটিপূর্ণ৷ জামিন অযোগ্য অপরাধের উপাদান এজাহারে প্রকাশিত না হওয়ায় রোজিনা ইসলাম জামিন পাওয়ার যোগ্য৷  

রোজিনা ইসলাম গত সোমবার পেশাগত দায়িত্ব পালনে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে গেলে তাঁকে একটি কক্ষে প্রায় ছয় ঘণ্টা আটকে রাখা হয়৷ পরে তাকে শাহবাগ থানা-পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয় এবং রাত ৯টার দিকে রোজিনাকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ৷  

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের  বিরুদ্ধে সে রাতেই শাহবাগ থানায় মামলা করা হয়৷ মামলার বাদী হন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের উপসচিব শিব্বির আহমেদ ওসমানী৷

এনএস/এসিবি (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, প্রথম আলো)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়