রোগীর তুলনায় ক্যানসার বিশেষজ্ঞ অনেক কম | আলাপ | DW | 28.08.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সাক্ষাৎকার

রোগীর তুলনায় ক্যানসার বিশেষজ্ঞ অনেক কম

বাংলাদেশে হঠাৎ ক্যানসারের রোগী বেড়ে গেছে? নাকি রোগ বেশি ধরা পড়ছে? চিকিৎসা কতটা উন্নত হয়েছে? আরো অনেক বিষয়েই কথা বলেছেন জাতীয় ক্যানসার ইনষ্টিটিউট ও হাসপাতালের রেডিয়েশন অনকোলজি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক ডা. মশিউর রহমান৷

ডয়চে ভেলে : বাংলাদেশে হঠাৎ করেই ক্যানসারের রোগী বেড়েছে বলে মনে হচ্ছে৷ কারণ কী?

ডা. মশিউর রহমান : প্রকৃতপক্ষে এর কারণ হচ্ছে, আমাদের দেশে পরীক্ষা-নিরীক্ষার সুযোগ- সুবিধা বেড়েছে৷ মানুষের মধ্যে রোগ সচেতনতাও বেড়েছে৷ এ কারণে তাঁরা হাসপাতালে ও চিকিৎসকের কাছে যাচ্ছেন৷ তাই মনে হচ্ছে রোগী বেড়ে গেছে৷ আমরা প্রবীণ ডাক্তারদের কাছ থেকে শুনেছি, এই রোগটা অনেকদিন ধরেই বেশি৷ আগে এত বেশি সচেতনতা ছিল না, তাই মানুষ এ রোগটি সম্পর্কে ভালো জানতেন না৷ আগে কবিরাজি, আয়ুর্বেদি, ইউনানি চিকিৎসার মাধ্যমে মানুষ এ রোগ সারানোর চেষ্টা করতেন৷ এ কারণে এ রোগে আক্রান্তদের সংখ্যাটা ধারণা করা যেত না৷

বাংলাদেশে এখন ক্যানসারের চিকিৎসা কতটা উন্নত হয়েছে?

বাংলাদেশে বেশ কিছু চিকিৎসা কেন্দ্রে ক্যানসারের বিশ্বমানের চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে৷ এ চিকিৎসাকেন্দ্রগুলোতে আধুনিক সরঞ্জামাদি রয়েছে৷ তবে এখনো কিছু টেকনিক্যাল অসুবিধা রয়ে গছে৷ এটা সত্য যে, আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা মোতাবেক এ বিষয়ে যে পরিমাণ চিকিৎসাকেন্দ্র থাকার কথা, তা আমাদের নেই৷ তবে কিছু বেসরকারি হাসপাতালসহ দু-একটা সরকারি হাসপাতালে আমরা বিশ্বমানের চিকিৎসা দিচ্ছি৷

আমরা দেখি, ক্যানসার ধরা পড়লেই  অনেকে বিদেশে চলে যাচ্ছেন৷ দেশের চিকিৎসায় তাঁরা আস্থা পাচ্ছেন না কেন?

যে কোনো রোগেই মানুষ চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ্ হওয়ার নিশ্চয়তা চান৷ এটা খুব স্বাভাবিক৷ কিন্তু আমাদের দেশে রোগীরা অনেক দেরি করে আমাদের কাছে আসেন৷ এটা অসচেতনতার কারণেও হতে পারে৷ তখন আমাদের পক্ষে রোগী সুস্থ্ হয়ে যাবে এমন নিশ্চয়তা দেয়া সম্ভব হয় না৷ তখন তাঁরা মনে করেন যে, দেশের বাইরে হয়ত সুস্থ হওয়ার নিশ্চয়তা পাওয়া যাবে৷ আবার এর কিছু অর্থনৈতিক কারণও আছে, যে কারণে অনেকেই ক্যানসারের চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে চলে যাচ্ছেন৷ আমাদের এখানে হাসপাতালে সিট সংখ্যাও সীমিত, এটিও হয়ত একটি কারণ৷

আমাদের দেশে অনেক সময় রোগ নির্ণয়ের পরীক্ষায় ভুল তথ্য আসে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। ক্যানসারের ক্ষেত্রে রোগ নির্ণয় নির্ভুলভাবে হচ্ছে?

এটা ৮০ থেকে ৯০ ভাগই নির্ভুলভাবে হচ্ছে৷ তবে আরো বেশি নির্ভুল হওয়ার জন্য আমাদের ডিসিপ্লিনড অ্যাপ্রোচ যাকে বলি, অনকোলজিস্ট, প্যাথলজিস্ট, রেডিয়োলোজিস্ট সকলের সমন্বয়ে এটা হওয়া উচিত৷ এক্ষেত্রে সমন্বয়ের অভাব আমাদের রয়েছে৷ তাই কিছু কিছু ক্ষেত্রে ভুল তথ্য চলে আসছে৷

অডিও শুনুন 10:04
এখন লাইভ
10:04 মিনিট

‘অনেকেই ক্যানসারের চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে চলে যাচ্ছেন’

ক্যানসারের চিকিৎসা নিয়ে দেশে কতটা গবেষণা হচ্ছে?

এই একটা ক্ষেত্রে আমরা যথেষ্ট পিছিয়ে রয়েছি৷ জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনষ্টিটিউট ও হাসপাতালে অনেকেই কাজ করে চলেছেন৷ বাইরেও বিভিন্ন সেন্টারে কাজ হচ্ছে৷ অনেকে পার্সোনালি এটা করছেন, তবে আমরা সমন্বিতভাবে এই কাজটা করতে পারিনি৷ এর নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতাও রয়েছে৷

ক্যানসার বেড়ে যাওয়ার কি সুনির্দিষ্ট কোনো কারণ থাকতে পারে?

সুনির্দিষ্ট কিছু কারণ থাকতে পারে, কিন্তু আমরা এখনই সেটা বলতে পারব না৷ কিছু কিছু ফ্যাক্টর মাথায় রেখে আমরা কাজ করছি, কিন্তু সেটার রেজাল্ট বলবার মতো সময় এখনো আসেনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বলা হয়ে থাকে, ক্যানসার পুরোপুরি নির্মূল সম্ভব নয়, এটা কি ঠিক?

আসলে এটাকে কয়েকটা স্টেজে ভাগ করে চিকিৎসা দিতে হয়৷ কারো যদি প্রথম স্টেজে ধরা পড়ে, তাহলে এটা পুরোপুরি নির্মূল করা সম্ভব৷ আবার কারো যদি অ্যাডভান্স স্টেজ, অর্থাৎ স্টেজ-৪-এ ধরা পড়ে, তাহলে সেটা ছড়িয়ে যায় এবং এটা নির্মূল করা সম্ভব নয়৷ এটা শুধু আমাদের দেশে নয়, বিশ্বের অনেক দেশেই সেটা সম্ভব না৷ বাইরে আরো নানা ধরনের টেকনিক্যাল সুযোগ-সুবিধার কারণে বেশিদিন বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব হয়৷

বাংলাদেশে ক্যানসার বিশেষজ্ঞদের সংখ্যা কত?

এই মুহুর্তে দেশে ক্যানসার বিশেষজ্ঞের সংখ্যা ১৩৫ জনের কাছাকাছি৷

রোগীর তুলনায় বিশেষজ্ঞের সংখ্যা কতটা কম?

এটা বেশ কম৷ একটা উদাহরণ বলি, হু'র সুপারিশ হলো, প্রতি এক মিলিয়ন মানুষের জন্য একটা ক্যানসার সেন্টার থাকতে হবে৷ সেক্ষেত্রে আমাদের ১৬০ মিলিয়ন জনগণের জন্য ১৬০টা ক্যানসার সেন্টার থাকা দরকার, যার প্রতিটিতে দু'টি করে মেশিন এবং আনুষঙ্গিক যন্ত্রপাতি দরকার৷ প্রতিটি মেশিনের জন্য প্রতিটি সেন্টারে ৮ থেকে ১০ জন বিশেষজ্ঞ দরকার৷ সেক্ষেত্রে আমরা ১০ থেকে ১৪টি সেন্টারের জন্য বিশেষজ্ঞ দিতে পারছি৷ সরকারের সদিচ্ছা আছে৷ বিভিন্ন পোস্ট গ্রাজুয়েশন চালু হয়েছে৷ বিশেষজ্ঞ বাড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে৷ আগামী কয়েক বছরের মধ্যে আমরা যাতে মিনিমাম একটা চিকিৎসা দিতে পারি, সেই চেষ্টা করা হচ্ছে৷

বর্তমানে দেশে ক্যানসারের রোগীর সংখ্যা কত? এমন কোনো তথ্য আছে?

সর্বশেষ ২০১২ সালের একটা হিসাব আছে, সেখানে আমরা প্রতি বছর দুই থেকে আড়াই লাখ ক্যানসারের রোগী পাই৷ এটা হাসপাতালের রেজিস্ট্রি অনুযায়ী৷ এর মধ্যে মাত্র ৫০ হাজার রোগীকে আমরা চিকিৎসা দিতে পারি৷ ২০০ রোগী বিদেশে চলে যাচ্ছেন৷ তাঁরা এখানকার হাসপাতালে যাচ্ছেন না৷ এই মুহুর্তে জনসংখ্যার হিসেবে আমাদের কোনো পরিসংখ্যান নেই, যা আছে তা হাসপাতালের তথ্য৷ তা-ও আবার সব হাসপাতালের তথ্য একজায়গায় করা নেই৷ সেটা করতেও বছরখানেক লেগে যাবে৷ তখন হয়ত আমরা একটা ফিগার দিতে পারব৷

ক্যানসার চিকিৎসার মূল ওষুধগুলো কি বাংলাদেশে পাওয়া যায়?

এখন প্রধান ওষুধগুলো দেশেই তৈরি হচ্ছে৷ এ কারণে দামও অনেক কমে গেছে৷ আর আমাদের ক্যানসার গবেষণা ইনষ্টিটিউটে অর্ধেক রোগী ফ্রি চিকিৎসা পাচ্ছে৷

এখানে উৎপাদিত ওষুধ কতটা মানসম্পন্ন?

এটা আসলে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর দেখে৷ আমরা যে ওষুধগুলো দেখি, সেগুলো লো স্ট্যান্ডার্ড, তা বলতে পারব না৷ আমাদের কাজ চলে যাওয়ার মতো একটা স্ট্যান্ডার্ড এখানে মেনটেইন করা হচ্ছে৷

যাদের ক্যানসার ধরা পড়েছে, তাদের প্রতি আপনার পরামর্শ কী হবে?

আমি জোর দিয়ে বলতে চাই, হতাশ হওয়ার কিছু নেই৷ ক্যানসারের কিছু প্রিভেনটিভ জায়গা রয়েছে৷ এটা নিয়ে মোটিভেশনাল প্রচার থাকা উচিত৷ যদি প্রিভেনটিভ মেজার না নেয়া যায়, তাহলে ধরা পড়লে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে৷ সঠিক চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে প্রাথমিক স্টেজে ধরা পড়লে শতকরা ৯০ থেকে ৯৫ ভাগ রোগী ভালো হয়ে যায়৷ যত দেরি করবেন, তত জটিল আকার ধারণ করবে৷ শেষ পর্যন্তও এই রোগের চিকিৎসা আছে৷

অনেক রোগীই তো চিকিৎসকের কাছে পৌঁছাতে পারেন না...

সরকারের কাছে আমাদের প্রস্তাব আছে৷ সরকারও সম্মতি দিয়েছে৷ সেটা হলো, প্রতিটি বিভাগীয় শহরে একটা করে ক্যানসার সেন্টার করা হবে৷ তখন রোগীদের কষ্ট করে প্রত্যন্ত এলাকা থেকে ঢাকায় আসতে হবে না৷ এখানে আসলে থাকা-খাওয়াও কঠিন৷ সেক্ষেত্রে তাঁরা কাছের সেন্টারগুলোতে গিয়ে চিকিৎসা করাতে পারবেন৷ এই সেন্টারগুলো চালাতে যে বিশেষজ্ঞ প্রয়োজন, সেটাও এই প্রজেক্ট চলাকালে তৈরি হয়ে যাবে৷

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন