রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ‘গণহত্যা’ পরিচালনা করছে মিয়ানমার | বিশ্ব | DW | 01.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

রোহিঙ্গা সংকট

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ‘গণহত্যা’ পরিচালনা করছে মিয়ানমার

রোহিঙ্গা জাতিকে নির্মূলের লক্ষ্যে গণহত্যা পরিচালনা করছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী৷ আর আন্তর্জাতিক সমাজ এই গণহত্যা রোধে উদ্যোগী হচ্ছে না বলে বার্লিনে এক সম্মেলনে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা৷

default

রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতনের প্রতিবাদে বার্লিনে বিক্ষোভ (ফাইল ফটো)

জার্মানির রাজধানী বার্লিনের ইহুদি জাদুঘরে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশ নেন গণহত্যা বিষয়ক একাধিক গবেষক, অধ্যাপক, রোহিঙ্গা অ্যাক্টিভিস্ট এবং আইনজীবীরা৷ ‘বার্লিন কনফারেন্স অন রোহিঙ্গা জেনোসাইড' শীর্ষক সম্মেলনে বক্তারা রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর জন্য মিয়ানমারে নিরাপদ পরিবেশ সৃষ্টিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় পর্যাপ্ত উদ্যোগ নিচ্ছে না বলে মত দেন৷

বার্লিন সম্মেলনের আহ্বায়ক ড. মারিয়া দো মার কাস্ত্রো ভ্যারেলা এই বিষয়ে বলেন, ‘‘অনেকে বলেন, আমাদের গণহত্যার কথা বলা উচিত নয়৷ কেননা, গণহত্যার মানদণ্ড পূর্ণ হয়নি৷ কিন্তু আমরা মনে করি, সেটা হয়েছে৷ মিয়ানমারে গণহত্যা হচ্ছে৷ তাই রোহিঙ্গাদের রক্ষায় আন্তর্জাতিক সুশীল সমাজ এবং বিভিন্ন রাষ্ট্রের উদ্যোগ গ্রহণ জরুরি৷''

বিশেষজ্ঞরা রাখাইনে গণহত্যা হচ্ছে বললেও জাতিসংঘ সেটা মনে করছে না৷ এর একটি ব্যাখ্যাও দিয়েছেন বার্লিন সম্মেলনে অংশ নেয়া বক্তারা৷ তাঁরা মনে করেন, কোনো দেশে গণহত্যা পরিচালিত হচ্ছে স্বীকার করা হলে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জন্য সেটা বন্ধে উদ্যোগ নেয়ার দায়িত্ব তৈরি হয়৷ রাখাইন অঞ্চলের সঙ্গে যেহেতু চীনসহ একাধিক শক্তিশালী রাষ্ট্রের ব্যবসায়িক স্বার্থ জড়িত আছে, তাই তাদের চাপে কঠোর হতে পারছে না জাতিসংঘ৷

বার্লিনে ইহুদি জাদুঘরের কাছেই হলোকস্ট মেমোরিয়াল অবস্থিত৷ চট্টগ্রাম থেকে আসা রোহিঙ্গা আইনজীবী সুলতানা রাজিয়া সম্মেলনের ফাঁকে মেমোরিয়াল পরিদর্শন করেন৷ তিনি মনে করেন, রোহিঙ্গাদের নির্মূলের শেষ পর্যায়ে পৌঁছে গেছে মিয়ানমার৷

তবে তথ্য-উপাত্ত যা-ই থাক, রাখাইনে গণহত্যা বা নির্বিচারে রোহিঙ্গা হত্যা হচ্ছে বলে মানতে রাজি নয় মিয়ানমার৷ সেদেশের সরকারের এক মুখপাত্র বলেন, ‘‘রাখাইনের ঘটনা প্রবাহের সঙ্গে ‘জাতিগত নির্মূল' বা ‘গণহত্যার' মতো শব্দ ব্যবহারে আপত্তি জানাচ্ছে সরকার৷''

উল্লেখ্য, মিয়ানমারে নির্যাতনের শিকার প্রায় দশ লাখ রোহিঙ্গা বর্তমানে বাংলাদেশে শরণার্থী হিসেবে অবস্থান করছেন৷ তাঁরা শীঘ্রই নিজেদের দেশে ফিরে নিরাপদে জীবনযাপন করতে পারবেন, এমন সম্ভাবনা দেখছেন না বিশেষজ্ঞরা৷

এ সংক্রান্ত ভিডিও প্রতিবেদনটি দেখতে ক্লিক করুন এখানে

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন