রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে চাপ দেয়ার আহ্বান | বিশ্ব | DW | 14.10.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জাতিসংঘ

রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারকে চাপ দেয়ার আহ্বান

বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া পাঁচ লাখ রোহিঙ্গাকে ফিরিয়ে নিতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের মিয়ানমারের উপর চাপ প্রয়োগ করা উচিত বলে জানান কোফি আনান৷ জাতিসংঘের এই সাবেক মহাসচিব মনে করেন, অন্যথায় বর্তমান সংকটের অবসান ঘটবে না৷

রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে সম্প্রতি একটি পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন প্রস্তুত করেছে আনানের কমিশন৷ শুক্রবার নিরাপত্তা পরিষদের এক অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে তিনি বলেন, মিয়ানমার সরকারকে অবশ্যই রাখাইনে রোহিঙ্গাদের সম্মানের সঙ্গে বসবাসের উপযোগী পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে৷

‘‘প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া শরণার্থীদের ঘরে ফিরে যেতে সহায়তা দরকার৷ তাঁদের মিয়ানামারে ফিরে কোনো ক্যাম্পে অবস্থান করা উচিত হবে না", বলেন কোফি আনান৷

নিরাপত্তা নিশ্চিত করা প্রয়োজন

গত কয়েক সপ্তাহে পাঁচ লাখের বেশি মানুষ, যাঁদের অধিকাংশই রোহিঙ্গা, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেন৷ জাতিসংঘ মনে করে, সেদেশের নিরাপত্তা বাহিনীর ‘সিস্টেমেটিক' হামলা থেকে বাঁচতে দেশত্যাগে বাধ্য হন এ সব মানুষ৷

মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ অবশ্য বলছে, গত ২৫ আগস্ট ৩০টি পুলিশ চৌকিতে হামলার ঘটনার পর রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে সেদেশের নিরাপত্তা বাহিনী৷ জাতিসংঘের দাবি করা ‘জাতিগত নির্মূলের' ঘটনা রাখাইনে ঘটছে না বলেও দাবি করেছে মিয়ানমার৷

রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে নিরাপত্তা পরিষদের সঙ্গে মিয়ানমারের একটি সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনায় সম্মত হওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন কোফি আনান৷ এ জন্য মিয়ানমারে তাঁদের জন্য নিরাপদ পরিবেশ সৃষ্টির প্রতি জোর দিয়ে আনান সবাইকে সতর্ক করে বলেন যে, অন্যথায় বিশ্ব সম্প্রদায় এক দীর্ঘমেয়াদি জটিলতার মধ্যে পড়বে৷

অভ্যন্তরীণ তদন্ত কমিটি

এদিকে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী শুক্রবার জানিয়েছে যে, গত আগস্টে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের হামলার পর পরিচালিত অভিযানে কোনো আইনবহির্ভূত ঘটনা ঘটেছে কিনা - তা খতিয়ে দেখতে অভ্যন্তরীণ তদন্ত শুরু হয়েছে৷ তবে সেই অভিযান বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটির সংবিধান মেনেই পরিচালনা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সেনাবাহিনী৷ ওদিকে দেশটির বেসামরিক নেতা অং সান সু চি বৃহস্পতিবার বলেছেন যে, রাখাইন রাজ্যে আন্তর্জাতিক এবং জাতীয় সহায়তা কার্যক্রম দেখভালের জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে৷

নিরাপত্তা পরিষদের আলোচনায় কোফি আনানের প্রস্তাবকে সমর্থন করেন ফ্রান্সের প্রতিনিধি৷ তবে জাতিসংঘ মিশনে থাকা চীন এবং রাশিয়ার প্রতিনিধিরা এই বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি৷

উল্লেখ্য, রোহিঙ্গারা গত কয়েক প্রজন্ম ধরে রাখাইনে বসবাস করলেও সেদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধ সম্প্রদায় তাঁদের মিয়ানমারের নাগরিক মনে করে না৷ সেদেশের সরকারও মনে করে যে, রোহিঙ্গারা আসলে বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে যাওয়া অভিবাসী৷ দেশটিতে ১৯৮২ সালে করা নাগরিকত্ব আইনের আওতায় রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব বাতিল করা হয়৷ ফলে রোহিঙ্গারা এক রাষ্ট্রহীন সম্প্রদায়ে পরিণত হয়৷

এআই/ডিজি (রয়টার্স, এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন